হঠাৎ সেই মেয়েটির বাড়িতে আবুধাবির রাজা

যুবরাজের সাথে হাত মেলাতে পারেনি কিশোরী আয়েষা,এ কথা শুনে আয়েষার বাড়ি গেলেন আবুধাবির শাসক…একটি অনুষ্ঠানে আবু ধাবির যুবরাজ শেখ মোহামেদ বিন জায়েদের সঙ্গে করমর্দন করতে চেয়েছিল ছোট্ট মেয়ে আয়েশা আল মাজরুয়েই। কিন্তু তার দিকে না তাকিয়েই পাশ দিয়ে হেঁটে চলে যান যুবরাজ। মেয়েটি হতাশ হয়ে পড়ে।এরপর তাকে অবাক করে হঠাৎ তাদের বাড়িতেই চলে যান যুবরাজ। সেই শিশুর কাছে ক্ষমাও চাইলেন রাজা। আয়শার

কপালে চু*মু দিয়ে আদর করলেন।এভাবেই শিশুর আয়শার মনকে আবার আনন্দে ভরিয়ে দিলেন আবুধাবির রাজা।এ ঘটনা সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমসহ আর্ন্তজাতিক গণমাধ্যমেও বেশ সাড়া ফেলেছে।অবাক হওয়ার পাশাপাশি আবুধাবির রাজাকে প্রশংসায় ভাসাচ্ছে নেট দুনিয়া।গত সপ্তাহে সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়েছিল আরো একটি ভিডিও। যেখানে দেখা যায়, ভুলবশত অভ্যর্থনাঅনুষ্ঠানে লাইনে দাঁড়িয়ে থাকা আয়শা নামের ওই শিশুর সঙ্গে হাত মেলাতে ভুলে যান রাজা শেখ মোহাম্মদ বিন জায়েদ।সংযুক্ত আরব আমিরাতের প্রভাবশালী দৈনিক খালিজ টাইমস জানিয়েছে, গত সপ্তাহে আবুধাবির রাষ্ট্রপতি ভবনে

সৌদি আরবের রাজা মোহাম্মদ বিন সালমানকে স্বাগত জানানোর জন্য ‘ওয়েলকাম সেরিমোনি’-তে অন্যান্য শিশুদের সঙ্গে অংশ নিয়েছিল আয়েশা।রাজাকে ছুঁতে পারবে সে। তার দিকে চেয়ে মিস্টি হাসবেন রাজা। কিন্তু সব স্বপ্নই মিথ্যা হয়েছিল তার।তার সঙ্গে সৌজন্য দেখাতে ভুলে গিয়েছিলেন আবুধাবির রাজা শেখ মোহাম্মদ বিন জায়েদ। অন্য সব শিশুর সঙ্গে হাত মেলালেও ভিড়ের মধ্যে আয়শাকে খেয়ালই করেননি তিনি।ভুলবশত: আয়শার সঙ্গে হাত না মিলিয়ে চলে যান আবুধাবির রাজা শেখ মোহাম্মদ বিন জায়েদ।আর সেই দৃশ্য নেট দুনিয়ায় ভাইরাল হয়ে যায়।ভিডিওতে দেখা গেছে, রেড কার্পেটের ওপর দিয়ে

হেঁটে আসছেন সৌদি বাদশাহ সালমান ও আবুধাবির রাজা বিন জায়েদ। দুই রাজাকে সংবর্ধনা দিতে রেড কার্পেটের দুই ধারে লাইন করে সেজেগুজে দাঁড়িয়ে শিশুরা। রাজার সঙ্গে হ্যান্ডশেক করতে ব্যাপক উৎসাহ নিয়ে দেখা যায় আয়েশা দাঁড়িয়ে। দুজনের সঙ্গে হাত মেলানো উদ্দেশ্যে একবার জায়গাও বদল করে নেয় আয়েশা। কিন্তু আবুধাবির রাজা মোহাম্মদ বিন জায়েদ বেখেয়ালে আয়েশাকে পাশ কাটিয়ে চলে যান।এ ঘটনা কানে যায় রাজার। সময় পেয়েই সারপ্রাইজ

দিয়ে সোজা পৌঁছে যান ছোট্ট মেয়েটির বাড়িতে। আয়েশার হাতে এবং কপালে চুমু খেয়ে তার কষ্ট লাঘব করেন রাজা।আয়শার পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে দেখাও করেন তিনি। ছবি তোলেন আয়শার সঙ্গে। আর সেসব ছবি সোশ্যাল মিডিয়ায় নিজেই শেয়ার করেন।

সংযুক্ত আরব আমিরাতে নতুন সম্ভাবনার মন্ত্রণালয় চালু ! এগিয়ে গেলো আরেক ধাপ।

সংযুক্ত আরব আমিরাতের ভাইস প্রেসিডেন্ট ও প্রধানমন্ত্রী ও দুবাইয়ের শাসক শেখ মোহাম্মদ বিন রাশিদ আল মাকতূম মঙ্গলবার দুবাই সরকারের অধীনে ” মিনিস্ট্রি অফ প্রোবাবিলিটিজ ” নামে একটি নতুন মন্ত্রণালয় উদ্বোধন করার ঘোষণা দেন ।

এই অনন্য মন্ত্রণালয় কাউন্সিল থেকে গঠিত মন্ত্রী ছাড়াই কাজ করবে।মন্ত্রণালয় বিভিন্ন প্রজেক্টে কাজ শুরু করবে, জনসাধারণের জন্য সক্রিয় পরিষেবা প্রদানের পাশাপাশি সরকারি সেবা সহজতর করার জন্য এটি একটি অনলাইন প্ল্যাটফর্মের বিকাশ যা 60 মিনিট সময় থেকে কমিয়ে 6 মিনিটের মধ্যে কায্য সম্পন্ন করবে । এটি অনুসন্ধানের জন্য বিশেষ ব্যবস্থা স্থাপন করে কাজ করবে।যা সংযুক্ত আরব আমিরাতে তরুণ প্রতিভা অনুসন্ধান করে ।

টুইট সিরিজের একটি ধারাবাহিকতায় শেখ মোহাম্মাদ বলেন যে ভবিষ্যতে সরকারের অনেক কাঠামো রয়েছে যা সরকারের কাঠামোতে ক্রমাগত পরিবর্তন প্রয়োজন – আমাদের অভিধানে “অসম্ভব ” শব্দটি নেই ।

আরব আমিরাতের ফেডারাল অথরিটি একটি নতুন ভিসা সিস্টেম ঘোষণা করেছে !

সংযুক্ত আরব আমিরাতের ফেডারাল অথরিটি ফর আইডেন্টিটি এবং সিটিজেনশিপ সম্প্রতি ভ্রমণ যাত্রীদের জন্য আরব আমিরাতে বৈধ দুই ধরণের ট্রানজিট ভিসা চালু করেছে ।একটি ট্রানজিট ভিসা 48 ঘন্টার জন্য বৈধ কোন খরচ হবে না ফ্রি , অন্য ভিসাটি পদ্ধতি ৯৬ ঘন্টার জন্য বৈধ যা খরচ হবে 50

দিরহাম ।এই উভয় ভিসা শুধুমাত্র সংযুক্ত আরব আমিরাত-ভিত্তিক বিমান সংস্থাগুলি স্পনসর করে এবং সংযুক্ত আরব আমিরাতে প্রবেশের আগে প্রক্রিয়াটি এপ্রোভ করতে হবে।কর্তৃপক্ষ এই ভিসা সম্পর্কে সতর্ক দিয়েছিল যে এই দু ধরণের ভিসা কোনোটাই পুনৰায়ণ বা রিনিউ করা যাবে না ।

আরব আমিরাতের ৪৮তম জাতীয় দিবসে ৪৭ চালকেকে ২০০০দিরহাম জরিমানা সহ কালো পয়েন্ট দিয়েছে !

ফুজাইরাহ পুলিশ ৪৮ তম সংযুক্ত আরব আমিরাতের জাতীয় দিবস উদযাপনের সময় পার্ক গাড়ি , চলন্ত গাড়ি এবং অবৈধ ট্র্যাফিক লঙ্ঘনের সাথে জড়িত ৪৭ টি গাড়ি জব্দ করেছে।জব্দকৃত গাড়িগুলি বিভিন্ন সময় আটক করা গাড়ি গুলো পুলিশ ইয়ার্ডমেন্ট ইয়ার্ডে থাকবে, ফুজাইরাহ পুলিশ ট্রাফিক ও টহল বিভাগের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার আলী রশিদ আল ইয়ামাহী জানিয়েছেন।

তিনি আরও বলেন, প্রতিটি ভুল করা গাড়ির চালকের উপর ২,০০০ দিরহাম জরিমানা এবং কালো ট্র্যাফিক পয়েন্টও জরিমানা করা হবে।
“এই গাড়ি চালকরা ট্র্যাফিক নিয়মকানুনকে লঙ্ঘন করেছিলেন। কেউ কেউ জাতীয় দিবস উদযাপনের জন্য নির্ধারিত সাজসজ্জার দিকে নজর দেয়নি , কিছু গাড়ি অন্য সব মানুষের জীবনকে হুমকির মুখে ফেলে এবং তাদের কয়েকজন উচ্চ গাড়ি মিছিল নিয়ে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করেছিল,” তিনি উল্লেখ করেছিলেন।

“কিছু ড্রাইভার ছিলেন যারা তাদের গাড়ির ইঞ্জিন এবং গাড়ির বডির গুরুত্বপূর্ণ পরিবর্তন করেছিলেন, আবার কেউ কেউ লাইসেন্স ছাড়া গাড়ি চালানোর ক্ষেত্রে ধরা পরে ছিলেন।”

ব্রিগেড আল ইয়ামাহী জানিয়েছেন, ফুজাইরাহ পুলিশ এর আগে জাতীয় দিবস উদযাপন সুরক্ষার জন্য বিপুল সংখ্যক ট্র্যাফিক টহল মোতায়েন করেছিল।

“বারবার সতর্কতা সত্ত্বেও কিছু চালক অন্যের উপর ফেনা ছড়িয়ে দিয়েছেন। কিছু গাড়ি চালক এবং যাত্রীরা গাড়িটির জানালাগুলি এবং সানরফ থেকে বেরিয়ে এসেছিল এমনকি গাড়িটি তীব্র গতিতে চলেছে তারপরেও ।”

আরব আমিরাতের দুবাই রোডা হোটেল স্টাফ ভবনে আগুন !

দুবাই একটি হোটেল স্টাফদের বাসভবনে বুধবার ভোর ৩:৩০ মিনিটের আল কউজ ৪ এ (স্প্রিংডেলস স্কুলের বিপরীতে) আগুন লাগে ।
খবর পেয়ে , রোডা হোটেল স্টাফদের আবাসনের স্টোর রুমে সকাল সাড়ে তিনটার দিকে আগুনের সূত্রপাত হয় এবং ধীরে ধীরে ভবনটি জ্বলে ওঠে ।

রিপোর্ট এ বলা হয়েছে, হোটেল শ্রমিকরা আরব আমিরাতের জাতীয় দিবসের ছুটির বিরতি উপভোগ করছিলেন এবং সেই জায়গায় ছোট্ট অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছিলেন, আগুনের কারণ বলে মনে করা হয়েছে যে কেউ জ্বলন্ত সিগারেট ফেলেছে এমন জায়গায় ।

যেহেতু এই অঞ্চলে প্রচুর আসবাব পত্র এবং জ্বলনযোগ্য আইটেম রয়েছে তাই অগ্নি শীঘ্রই অন্যান্য ঘরেও ছড়িয়ে পড়ে।

তবে, নিরাপত্তা পুলিশ শীঘ্রই হোটেল কর্মীদের সরিয়ে নিয়ে সিভিল ডিফেন্স এবং পুলিশকে জানিয়ে দিয়েছে যারা এই অঞ্চলটিকে ঘিরে রেখেছে এবং এখন আগুন নিয়ন্ত্রণে রয়েছে।
পুলিশ থেকে আগুন লাগার সঠিক কারণ সম্পর্কে আমরা এখনও নিশ্চিতকরণ পাইনি।
স্প্রিংডেলস স্কুলে আগুন লাগার বিষয়ে প্রাথমিক প্রতিবেদনগুলি ভুল ছিল।

স্কুল কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করা হলে তারা জানায় যে স্কুলটিতে কোন অগ্নিকাণ্ডের কারণে কোন ধরণের ক্ষতি হয়নি ।

আরব আমিরাতের ফেডারাল অথরিটি একটি নতুন ভিসা সিস্টেম ঘোষণা করেছে !

সংযুক্ত আরব আমিরাতের ফেডারাল অথরিটি ফর আইডেন্টিটি এবং সিটিজেনশিপ সম্প্রতি ভ্রমণ যাত্রীদের জন্য আরব আমিরাতে বৈধ দুই ধরণের ট্রানজিট ভিসা চালু করেছে ।

একটি ট্রানজিট ভিসা 48 ঘন্টার জন্য বৈধ কোন খরচ হবে না ফ্রি , অন্য ভিসাটি পদ্ধতি ৯৬ ঘন্টার জন্য বৈধ যা খরচ হবে 50 দিরহাম ।

এই উভয় ভিসা শুধুমাত্র সংযুক্ত আরব আমিরাত-ভিত্তিক বিমান সংস্থাগুলি স্পনসর করে এবং সংযুক্ত আরব আমিরাতে প্রবেশের আগে প্রক্রিয়াটি এপ্রোভ করতে হবে।

কর্তৃপক্ষ এই ভিসা সম্পর্কে সতর্ক দিয়েছিল যে এই দু ধরণের ভিসা কোনোটাই পুনৰায়ণ বা রিনিউ করা যাবে না ।

হাত মেলাতে না পেরে মুখ ভার, আয়েষার বাড়ি পৌঁছে গেলেন আরব আমিরাতের আবুধাবি শাসক !

অনেক চেষ্টা করেও হাত মেলাতে না পেরে মুখ ভার, অবশেষে কিশোরী আয়েষার বাড়ি গেলেন আবুধাবির শাসক… একাধিক বার চেষ্টা করেও আবু ধাবির যুবরাজের সঙ্গে হাত মেলাতে পারেনি এক কিশোরী। তবে সেই ফস্কে যাওয়া সুযোগ আরও বড় সুযোগ হয়ে ফিরে এলো। লাইনে দাঁড়িয়ে যার সঙ্গে হাত মেলাতে চেয়েছিল, এবার তিনিই সরাসরি পৌঁছে গেলেন ওই কিশোরীর বাড়িতে।

যুবরাজ শেখ মোহাম্মদ বিন জায়েদ বুধবার আবু ধাবির রাষ্ট্রপ্রধানের প্রাসাদে গিয়েছিলেন।সেখানে তাকে স্বাগত জানাতে মন্ত্রী, আমলাদের পাশাপাশি কয়েকজন শিশু, কিশোর-কিশোরীও উপস্থিত ছিল। যুবরাজকে এত কাছে পেয়ে তারা বেশ উত্সাহিত ছিল। সুযোগ পেয়ে সবাই তার সঙ্গে হাত মিলিয়ে নিচ্ছিল। তাদের মধ্যে ওই কিশোরীর এতটাই উত্সাহ এতটাই ছিল যে, সে লাইনের এক ধার থেকে দৌড়ে উল্টো দিকের লাইনে চলে আসে। যাতে হাত মেলানোর সুযোগ কোনও ভাবেই হাতছাড়া না হয়।

এত চেষ্টা করেও ওই কিশোরীর মনস্কামনা পূর্ণ হয়নি। যুবরাজ ওই সারির সকলের সঙ্গে হাত মেলালেও কিশোরীর সঙ্গে হাত না মিলিয়ে এগিয়ে যান। তিনি সম্ভবত খেয়াল করেননি।স্বাভাবিক ভাবেই মুখ ভার হয়ে যায় ওই কিশোরীর। কিন্তু কিছু করার ছিল না। তবে তার কপালে এর থেকেও বড় সুযোগ অপেক্ষা করছিল, তা সে জানত না।কিশোরীর নাম আয়েষা আল মাজরোউই, আবু ধাবিতেই বাড়ি। শেখ মোহাম্মদ বিন জায়েদের সঙ্গে তার হাত না মেলাতে পারার ঘটনা ধরা পড়ে ক্যামেরায়। সম্ভবত সেই কথা যায় তার কানেও। এরপর সোমবার আয়েষার বাড়ি পৌঁছে যান তিনি।

যার সঙ্গে হাত মেলাতে না পেরে দুঃখ করছিল তাকে বাড়িতে পেয়ে আয়েষার আনন্দ আর ধরে না।সেদিনের দুঃখ এর মুহূর্তে উবে আয়েষার, এ যেন হাতে চাঁদ পাওয়া তার কাছে। যুবরাজ, আয়েষা ও তার পরিবারের সঙ্গে কিছুটা সময় কাটান। আয়েশা ও তার পরিবারের অন্য সদস্যদের সঙ্গে ছবিও তোলেন। সেই সব ছবি পোস্টও হয়েছে সোশ্যাল মিডিয়ায়। ছবিগুলি দেখে তাঁর প্রশংসা করেছেন নেটিজেনরা।

সংযুক্ত আরব আমিরাতে নতুন ট্যাক্স নীতি কার্যকর যে স*মস্যায় পড়ছে ক্রেতারা !

গত রবিবার আরব আমিরাতের নতুন আবগারি শুল্ক বা নতুন ট্যাক্স কার্যকর হওয়ার পর বেশ কিছু পণ্যের দামের অনেক পরিবর্তন হওয়ায় অবাক হয়ে উঠেছে ক্রেতার , জানিয়েছে খালিজ টাইমসকে । ফেডারাল ট্যাক্স অথরিটির (এফটিএ) নির্দেশে আবগারি শুল্ক বাস্তবায়নের পর

সংযুক্ত আরব আমিরাতে সুগার ড্রিংকস এবং পাউডার, সিগারেট, অন্যান্য তামাকজাত পণ্য এবং ই-সিগারেট ইত্যাদিতে শুল্ক বা ট্যাক্স যুক্ত হয়ে আগের তুলনায় অনেক বেশি দামে বিক্রি হচ্ছে।বড় বড় সুপারমার্কেট ব্র্যান্ডের পাশাপাশি ছোট মুদি দোকানগুলি ইতিমধ্যে তাদের সংশোধিত দামের তালিকা ব্যবহার করে এই পণ্যগুলি বিক্রি করছে, করটি কার্যকর হওয়ার একদিন দুবাইয়ের বিভিন্ন স্টোরের সংশোধিত দামের তালিকা পাওয়া গেছে। কিছু কিছু পেট্রোল স্টেশন নতুন শুল্ক সহ বর্ধিত দামে সিগারেট বিক্রি করছে।

পেট্রোল স্টেশনের একটি দোকানে বিক্রয়কর্মী জানিয়েছেন “আমাদের কয়েকটি গ্রাহক ছিল যারা আমাদের দামের পরিবর্তন সম্পর্কে প্রশ্ন করেছিলেন এবং আমরা তাদের বলেছিলাম যে নতুন আবগারি শুল্কের কারণে দাম বাড়ানো হয়েছে,” ।তিনি আরো বললেন “আমি মনে করি বেশিরভাগ লোক আজই এই শুল্কটি চালু করার কথা জেনেছে এর আগে তারা জানতো না শুল্ক যুক্ত করার কথা , তাই তারা নতুন দামে খানিকটা হতবাক। আমি বিশ্বাস করি এই ট্যাক্স জনসাধারণের অস্বাস্থ্যকর পানীয় , খাওয়া বন্ধ করতে এবং ধূমপান হ্রাস করতে সহায়তা করবে ” ।

কোমল কার্বনেটেড পানীয় , চিনি যুক্ত বা অন্যান্য মিষ্টান্নযুক্ত যে কোনও পণ্যগুলিতে নতুন আবগারি শুল্কের হার 50 শতাংশ বৃদ্ধি করেছে এবং তামাকজাত পণ্য, হার্ড পানীয়, ইলেকট্রনিক ধূমপান ডিভাইস, ই-ধূমপান ডিভাইস এবং সরঞ্জামগুলিতে ব্যবহৃত তরলগুলিতে 100 শতাংশ যুক্ত করেছে ।“নতুন শুল্কের সাথে বিক্রি হচ্ছে এমন অনেকগুলি মিষ্টিজাতীয় পানীয় এবং পাউডার রয়েছে। পানীয়গুলিতে সোডাস, চিনির উপাদানযুক্ত সমস্ত রস, নেসকাফে গুঁড়ো মিশ্রণের মতো গুঁড়ো, কফি-মেট এবং ডাবল চকোলেট গুঁড়ো মিশ্রণ রয়েছে,”

বলেছিলেন একটি অফ ব্র্যান্ড সুপার মার্কেটে একজন বিক্রয়কর্মী।নীতিমালার আওতায় ‘মিষ্টিযুক্ত পানীয়’ এমন পণ্য হিসাবে সংজ্ঞায়িত করা হয়েছে যার সাথে চিনি বা অন্যান্য মিষ্টির যুক্ত করা হয় যা নিম্নলিখিত যে কোনও রূপে উত্পাদিত হয়: একটি পানীয় থেকে প্রস্তুত পানীয় পানীয় হিসাবে ব্যবহারের উদ্দেশ্যে, ঘনত্ব, গুঁড়ো, জেল, নিষ্কাশন বা মিষ্টি পানীয়তে রূপান্তরিত করা যায় এমন কোনও রূপ ।যেসব ব্যবসায়ীরা এফ টি এ তে তাদের পণ্য নিবন্ধন না করলে তাদের জরিমানার মুখোমুখি হতে পারে।

আরব আমিরাতে আজ থেকে শুরু হল নতুন ট্যাক্স বা কর নীতি !

সংযুক্ত আরব আমিরাতের অপহেলা ডিসেম্বর থেকে চিনি ও চিনি জাতীয় সকল পণ্যের উপর অধিক মাত্রায় কর প্রয়োগ কাযকর করা হবে। সর্বশেষ গবেষণায় প্রকাশিত হয়েছে যে প্রায় ৫৫ শতাংশ আর্মিরাত বাসিন্দারা চিনির উপর বা চিনি জাতীয় খাবারের উপর নতুন কর প্রয়োগের পক্ষে সমর্থন করেন

এবং মাত্র ২০ শতাংশ এটির বিরোধিতা করেন, সর্বশেষ গবেষণাটি প্রকাশ করেছে।সমীক্ষায় দেখা গেছে যে শ উচ্চ আয়ের উপার্জনকারী যারা মাসে ৪০,০০০ দিরহাম এর বেশি উপার্জন করেন তারা ট্যাক্সকে সমর্থন করে আর যারা ৫০০০ দিরহাম বা তারও কম উপার্জনকারীদের কম সংখক রয়েছে যারা ট্যাক্স সমর্থন করেছে ।১৮ থেকে ২৪ বছরের বাসিন্দারা এই ট্যাক্স নীতির বিরোধিতা করছে কিন্তু বয়স্কদের মধ্যে অধিকাংশ লোকজন চিনি জাতীয় পণ্যের উপর কর বৃদ্ধি করাকে সমর্থন করছে । মহিলাদের তুলনায় বেশি সংখ্যক পুরুষ ট্যাক্স বা কর প্রয়োগের পক্ষে।যদিও জরিপ করা বেশিরভাগ উত্তরদাতারা সরকারের এই

উদ্যোগ সম্পর্কে সচেতন ছিলেন, পাঁচ জনের মধ্যে দু’জনই এ সম্পর্কে জানতেন না।দেশে অধিকাংশ বাসিন্দা উচ্চ মাত্রায় চিনিযুক্ত পানীয় বিক্রিতে সম্পূর্ণ নিষে*ধাজ্ঞার সাথেও একমত।চিনি জাতীয় সকল হালকা দ্রব্যের উপর ৪১ শতাংশ ট্যাক্স এবং চিনি যুক্ত পানীয়তে ৪৬ শতাংশ ট্যাক্স প্রয়োগ করবে।নতুন কর প্রয়োগের লক্ষ্য হচ্ছে স্বাস্থ্যের বা পরিবেশের জন্য ক্ষ*তিকারক নির্দিষ্ট পণ্যের ব্যবহার হ্রা*স করা। প্রায় দুই-তৃতীয়াংশ বিশ্বাস করে যে চিনি জাতীয় দ্রব্য অস্বাস্থ্যকর খাবার ও পানীয়।চিনি খাবার গ্রহণের কারণে সৃষ্টি রোগের এবং চিনির সাথে যুক্ত দীর্ঘস্থায়ী রোগ প্রতিরোধ করতে সহায়তা করবে। এ লক্ষ্যে

বিক্রয়ের পণ্যের গায়ে স্পষ্ট করতে হবে এতে কত শতাংশ চিনি যুক্ত আছে। এতে ভোক্তাদের তাদের স্বাস্থ্য সম্মত খাবার বাছাই করতে সহায়তা করবে।সুগার ট্যাক্স ছাড়াও, সংযুক্ত আরব আমিরাতের স্কুলগুলিতে বাচ্চাদের খাবারের জন্য পুষ্টির মান ব্যবস্থা করার জন্য সরকারের অতিরিক্ত উদ্যোগ করে জনস্বাস্থ্য উপকৃত হবে।

আরব আমিরাতের ৪৮ তম জাতীয় দিবস সাতটি শহর সেজেছে অপরূপ সাজে !

মধ্যপ্রাচ্য অঞ্চলে আরব উপদ্বীপের দক্ষিণ-পূর্ব কোনায় অবস্থিত সংযুক্ত আরব আমিরাত। ১৯৭১ সালের (২ ডিসেম্বর) ব্রিটিশদের থেকে দেশটি স্বাধীনতা লাভ করে।এ বছর ৪৮তম স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস (০২ ডিসেম্বর) রোববার পালন করা হয়েছে। এউপলক্ষে আমিরাতের সাতটি শহরকে অপরূপ সাজে সাজানো হয়েছে। আবুধাবি, দুবাই, শারজাহ, আজমান, ফুজাইরাহ, রাস আল খাইমাহ, উম্ম আল কোয়াইন

-সহ আমিরাতের প্রধান প্রধান সড়কসহ শহরের সড়কগুলো জাতীয় পতাকার পাশাপাশি আলোকিত ফরটি সেভেন শোভা বাড়াচ্ছে এখন থেকেই।মোটর র‌্যালি, বিমান মহড়া, ড্যান্সিং ঝরনা, আলোকসজ্জা, আতশবাজি, উঁচু ভবনে রং বেরঙের সাজ আর আলোর ঝলকানি। আমিরাতজুড়ে সাজানো হয়েছে নানা রঙের ব্যানার ফেস্টুন আর আলোর ঝলকানিতে দালানগুলো অপূর্ব সাজে সজ্জিত। স্কুল কলেজ, অফিস আদালত, সুপার ও হাইপার মার্কেট সেজেছে নানা সাজে।

দিবসটি উদযাপনের লক্ষ্যে আরবের অধিবাসীরা আমিরাতের শেখদের ছবি ও পতাকা দ্বারা নিজেদের গাড়ি সাজানো হয়েছে। আমিরাতের বিভাগীয় শহরের কর্ণেস পাড়ে আজ (শনিবার- রাত ১২টার পর) দিবাগত রাতে সেসব গাড়ির প্রদর্শনী দেখানো হয়। আনন্দ ভাগাভাগি করার লক্ষ্যে ও আরব অধিবাসীদের উৎসাহ প্রদানের জন্য শহরের বিভিন্ন মহাসড়কে সেরাতে আমিরাতে অবস্থিত বিভিন্ন দেশের প্রবাসী-সহ আরবে অভিবাসী পর্যটকের ভিড় জমাবে। এ ছাড়াও বড় বড় শপিং মলগুলোতে দিবসটি উপলক্ষে উৎসবের আমেজ লক্ষণীয়।

ভিন্ন তালিকায় ন্যাশনাল ডে ফ্যাশন শো-সহ আরব সংস্কৃতি ঐতিহ্যের নানা রকম আয়োজনসহ পণ্য বিশেষ ছাড় রেখেছে এসব শপিং মল। এদিকে আবুধাবি-শেখ খলিফা বিন যায়েদ আল-নাহিয়ান, দুবাই-শেখ মোহাম্মদ বিন রশিদ আল-মাকতুম, শারজাহ-শেখ সুলতান বিন মোহাম্মদ আল-কাশিমি, আজমান-শেখ হুমাইদ বিন রশিদ আল-নুয়াইমি, ফুজাইরাহ-শেখ মোহাম্মদ বিন হামাদ বিন মোহাম্মদ আশ-শারকি, রাস আল খাইমাহ-শেখ সৌদ বিন শাকর আল-কাশিমি ও উম্ম আল কোয়াইন-শেখ সৌদ বিন

রশিদ আল-মু’আল্লা ৪৮তম স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উপলক্ষে স্থানীয় ও আমিরাতে অবস্থানরত সকল অভিবাসীদের অভিনন্দন এ উষ্ণ শুভেচ্ছা জানিয়েছে।এ বছর সাপ্তাহিক ছুটিসহ চারদিন সরকারি ছুটি ঘোষণা করা হয়েছে। তবে বেসরকারি সেক্টরের জন্য ছুটি থাকছে দুদিন-রোববার ও সোমবার। আরব উপদ্বীপের দক্ষিণ-পূর্ব কোনায় অবস্থিত সংযুক্ত আরব আমিরাত। ১৯৭১ সালের (২ ডিসেম্বর) ব্রিটিশদের থেকে দেশটি স্বাধীনতা লাভ করে।এ বছর ৪৮তম স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস (০২ ডিসেম্বর) রোববার পালন করা হয়েছে।