দীর্ঘ ১৬ বছর পর আল-আকসা মসজিদে নামাজ আদায় করল ফিলিস্তিনিরা !

মক্কা ও মদিনা শরীফের পর মুসলিমদের জন্য তৃতীয় পবিত্র স্থান ছিল আল-আকসা মসজিদ। জানা যায়, ২০০৩ সালে আল-আকসা মসজিদের আল-রাহমা গেট বন্ধ করে দিয়েছিল ইসরায়েল। মক্কা ও মদিনা শরীফের পর মুসলিমদের তৃতীয় পবিত্র এই মসজিদের দরজাটিও বন্ধ হয়ে যায়।

আল-জাজিরা, মিডল ইস্ট আই পূর্ব জেরুজালেমের অধিকাংশ এলাকা ইসরায়েল দখল করে নেয়ার ফলে সেখানে অবস্থিত আল-আকসায় ফিলিস্তিনিদের প্রবেশে কড়াকড়ি আরোপ করে। এরই ধারাবাহিকতায় ইসরায়েল একটি ফন্দি আরোপ করে, সেখানে দখল করে নেওয়া আল-আকসায় ফিলিস্তিনিদের প্রবেশে দ্বার বন্ধ করে দেওয়ার জন্য কড়াকড়ি করে। ফলে আল-রাহমা দরজা দিয়ে প্রবেশ বন্ধ করে দেয়া হয়।এই দরজার ভিতরে ছিল একটা হল রুম, সেটিও তালা বন্ধ করে ফিলিস্তিনিদের নামাজ আদায় করা থেকে বিরত রাখা হয়। তারা দরজাটি বন্ধ করেও ক্ষান্ত হননি বরং সেখানে অতিরিক্ত সৈন্যও মোতায়েন করে রেখেছিল।

গত রবিবার ফিলিস্তিনিরা দরজাটি উন্মুক্ত করতে আন্দোলন শুরু করে এবং তা খুলে দেয়া হলেও পরে তা নিরাপত্তা বাড়িয়ে দরজাটি আবারো বন্ধ করতে লোহার চেইন সংযুক্ত করা হয়। তবুও ফিলিস্তিনিরা আন্দোলন অব্যাহত রাখে এবং শুক্রবার পর্যন্ত সেখানে অবস্থান করে বিক্ষোভ প্রদর্শন করে। বিক্ষোভ থেকে ইতোমধ্যেই অন্তত ৬০ জন আন্দোলনকারীকে আটকও করেছে ইসরায়েল। ফলে প্রায় ১৬ বছর পর আল-আকসা মসজিদের আল-রাহমা গেট খুলে নামাজ পড়লেন ফিলিস্তিনিরা। শুক্রবার বিকেল গড়ালে মসজিদটির তত্ত্বাবধানে দ্য ওয়াকফ কমিটি তা স্থায়ীভাবে খুলে দেয়। পরে ইসরায়েলও ওয়াকফ কমিটির এ সিদ্ধান্ত মেনে নিয়েছে।

এদিকে ফিলিস্তিনি রাষ্ট্রীয় সংবাদ সংস্থা ওয়াফা জানায়, ফিলিস্তিনিরা শুক্রবার বিগত ১৬ বছরে প্রথমবারের মতো আল-রাহমা গেট দিয়ে প্রবেশ করেছে এবং নামাজ আদায় করেছে। এই দরজাটি দিয়ে প্রবেশ করে মুসুল্লিরা হলরুমটিতে ফিলিস্তিনি পতাকাও লাগিয়ে দিয়েছে।

অবশেষে জানা গেলো চট্টগ্রামে বিমান ছিনতাইয়ের আসল কারণ!

চট্টগ্রামে যাত্রী-ক্রুদের জিম্মি বিমান ছিনতাইয়ের চেষ্টাকারী একজন ব্যর্থ প্রেমিক বলে জানা গেছে। অজ্ঞাত এক নায়িকার প্রেমে ব্যর্থ হয়ে তিনি এ ঘটনা ঘটিয়েছেন বলে সূত্র জানিয়েছে।
রবিবার (২৪ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে বাংলাদেশ বিমানের বিজি-১৪৭ নং ফ্লাইটটি দুবাইয়ের উদ্দেশে ঢাকা ছেড়ে চট্টগ্রামের শাহ আমানত বিমানবন্দরে জরুরি অবতরণ করে।

বিমানে ওই ব্যক্তি অস্ত্র নিয়ে অবস্থান করছে বুঝতে পেরে যাত্রীরা পাইলটকে অবহিত করলে তিনি দ্রুত বিমানটি অবতরণ করেন।
এ খবর লেখা পর্যন্ত ঢাকা থেকে চট্টগ্রাম হয়ে দুবাইগামী বাংলাদেশ বিমানের ওই উড়োজাহাজ ঘিরে রেখেছে পুলিশ। উড়োজাহাজটি ছিনতাইয়ের চেষ্টা করা হয়েছে। এমন খবর পাওয়ার পরই সেটি ঘিরে রেখেছে পুলিশ ও র‌্যাব। উড়োজাহাজের ভেতরে ওই সন্দেহভাজন অস্ত্রধারী পাইলটকে জিম্মি করে রেখেছে।

এ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন সিভিল এভিয়েশন সচিব মহিবুল হক। তিনি বলেন, বিমানটির মধ্যে সন্দেহভাজন এক ব্যক্তি ও দুইজন ক্রু রয়েছেন। সন্দেহভাজনের হাতে অস্ত্র রয়েছে।

ঘটনার পরপরেই র‌্যাবের একাধিক গাড়ি বিমানবন্দরের মধ্যে প্রবেশ করেছে। বিমানবন্দরটি বর্তমানে বন্ধ রাখা হয়েছে। বিমানবন্দরে বাইরে উৎসুক জনতা ভিড় করছেন।

বাংলাদেশ বিমান ছিনতাইয়ের চেষ্টা, ভেতরে অস্ত্রধারী

চট্টগ্রামের শাহ আমাণত বিমানবন্দরে বাংলাদেশ বিমানের দুবাইগামী একটি ফ্লাইট জরুরি অবতরণ করেছে। বিমানের ভিতরে ক্রুদের জিম্মি করে রাখার অভিযোগ পাওয়া গেছে। রানওয়ের চারিদিক ঘিরে রেখেছে পুলিশ।

বিমানটি রবিবার (২৪ ফেব্রুয়ারি) বিকেল ৫টা ৪০ মিনিটের দিকে জরুরি অবতরণ করে। বিমানবন্দরের একাধিক কর্মকর্তা এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। এই মুহূর্তে চট্টগ্রাম শাহ আমানত বিমানবন্দরে ফ্লাইট ওঠানামা বন্ধ রয়েছে।

সংশ্লিষ্ট এক কর্মকর্তা বলেন, ঢাকা থেকে উড্ডয়নের পরে বিভিন্ন কারণে পাইলটের মনে হয় উড়োজাহাজটি ছিনতাইয়ের আশঙ্কা আছে। এ কারণে শাহ্ আমানতে এটি জরুরি অবতরণ করে। ঢাকা থেকে ছেড়ে চট্টগ্রাম হয়ে দুবাই যাওয়ার পথে রোববার বিকেল পৌনে ৬টার দিকে জরুরি অবতরণ করে উড়োজাহাজটি।

সিভিল এভিয়েশনের সচিব মহিবুল হক জানিয়েছেন, ভেতরে একজন সন্দেহভাজন ও দুইজন ক্রু রয়েছেন। যাত্রীদের নামিয়ে আনা হয়েছে। জরুরি অবতরণের পর থেকে উড়োহাজটি ঘিরে রেখেছে র‌্যাব ও পুলিশ সদস্যরা।

বিষয়টি নিশ্চিত করে চট্টগাম ফায়ার সার্ভিসের সহকারী পরিচালক মোহাম্মদ জসিম উদ্দিন বলেন, ফায়ার সর্ভিসের চার ইউনিটের দশটি গাড়ি বিমানবন্দরে উপস্থিত রয়েছে।

গির্জার যাজকসহ ৬৫ খ্রিস্টানের ইসলাম ধর্ম গ্রহণ !

পূর্ব আফ্রিকার দেশ কেনিয়ার ‘গডস কল’ নামক গির্জার সাবেক যাজক ‘চার্লস ওকাওয়ানি’। সম্প্রতি তিনি ‘ওহিয়ে ইলাহি’ নামক গির্জায় প্রার্থনারত ৬৫ জন খ্রিস্টান ধর্মাবলম্বীসহ নিজে ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেছেন।

‘ওহিয়ে ইলাহি’ নামক গির্জার স্থানে বর্তমানে নির্মাণ করেছেন একটি মসজিদ। জানা যায় ইসলাম গ্রহণের পূর্বে ওই স্থানে এক সঙ্গে প্রার্থনা করতেন তারা। আর তাই ইসলাম গ্রহণের পরও যেন একই স্থানে ইবাদত-বন্দেগি করতে পারেন তাই নির্মাণ করেছেন মসজিদ।

বাংলাদেশ বিমানের একটি উড়োজাহাজ ছিনতাইয়ের চেষ্টা, ঘিরে রেখেছে পুলিশ ।

রোববার বিকেলে বাংলাদেশ বিমানের একটি উড়োজাহাজ ছিনতাইয়ের চেষ্টা করে দুর্বৃত্তরা। পরে চট্টগ্রামের শাহ আমানত বিমানবন্দরে বিমানটিকে জরুরি অবতরণ করানো হয়। বিমানটি ঘিরে রেখেছে পুলিশ।

রোববার (২৪ ফেব্রুয়ারি) বিকালে বাংলাদেশ বিমানের ওই ফ্লাইটটি দুবাইয়ের উদ্দেশে ঢাকা ছেড়ে চট্টগ্রামের শাহ আমানত বিমানবন্দরে যায়।বিমানটি ৫টা ৪০ মিনিটের দিকে জরুরি অবতরণ করে। বিমানবন্দরের একাধিক কর্মকর্তা এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। বর্তমানে সেখানে বিমান ওঠানাম বন্ধ রয়েছে। ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন সিভিল এভিয়েশন সচিব মহিবুল হক। তিনি জানান, বিমানটির মধ্যে সন্দেহভাজ এক ব্যক্তি ও দুইজন ক্রু রয়েছেন। ঘটনার পরপরেই র‌্যাবের একাধিক গাড়ি বিমানবন্দরের মধ্যে প্রবেশ করেছে।

বিমানবন্দরটি বর্তমানে বন্ধ রাখা হয়েছে।জানা যায়, বিমানটি ঢাকা থেকে চট্টগ্রাম হয়ে দুবাই যাচ্ছিলো। বিমান থেকে যাত্রীদের নামিয়ে ফেলা হয়েছে। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর একটি সূত্র জানিয়েছে বিমানের ভেতরে অস্ত্রধারীরা রয়েছে।

গির্জার যাজকসহ ৬৫ খ্রিস্টানের ইসলাম ধর্ম গ্রহণ!

পূর্ব আফ্রিকার দেশ কেনিয়ার ‘গডস কল’ নামক গির্জার সাবেক যাজক ‘চার্লস ওকাওয়ানি’। সম্প্রতি তিনি ‘ওহিয়ে ইলাহি’ নামক গির্জায় প্রার্থনারত ৬৫ জন খ্রিস্টান ধর্মাবলম্বীসহ নিজে ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেছেন।

‘ওহিয়ে ইলাহি’ নামক গির্জার স্থানে বর্তমানে নির্মাণ করেছেন একটি মসজিদ। জানা যায় ইসলাম গ্রহণের পূর্বে ওই স্থানে এক সঙ্গে প্রার্থনা করতেন তারা। আর তাই ইসলাম গ্রহণের পরও যেন একই স্থানে ইবাদত-বন্দেগি করতে পারেন তাই নির্মাণ করেছেন মসজিদ।

একই পরিবারের ৪৬ জনই পবিত্র কুরআনে হাফেজ

পবিত্র কুরআনে হাফেজ – পটুয়াখালীর বাউফলের বাঁশবাড়িয়া গ্রামের শাহজাহান হাওলাদার (৬৮)। সাধারণ শিক্ষায় শিক্ষিত তিনি। বাউফল সরকারি কলেজ থেকে এইচএসসি পাস করেছেন। অথচ তিনি নিজ এলাকায় প্রতিষ্ঠা করেছেন ছয়টি হাফিজি মাদরাসা।

পবিত্র কোরআনের হাফেজ বানিয়েছেন নিজের ছেলেমেয়েসহ পরিবারের অন্যদের। তাদের বিয়েও দিয়েছেন হাফেজদের সঙ্গে। সব মিলিয়ে পরিবারের এখন ৪৬ জন হাফেজ। বাড়ির ছোটরাও একই পথে হাঁটছেন।জানতে চাইলে শাহজাহান হাওলাদার বলেন, বাবা (নুর মোহাম্মদ হাওলাদার) ছিলেন ধর্মপ্রাণ মুসলমান। তিনি হজ করেছেন। হজ পালনরত অবস্থায় ইন্তেকাল করেছেন তিনি। বাবা হাফেজদের খুব ভালোবাসতেন।এ কারণেই তিনি লক্ষ্য স্থির করেন, পরিবারের সবাইকে হাফেজি পড়াবেন। সেই সূত্র ধরে আত্মীয়তাও করেছেন হাফেজদের সঙ্গে। সে লক্ষে তিনি নিজের ছয় ছেলে ও চার মেয়েকে হাফিজি পড়ান।

পরে ছেলে-মেয়েদের বিয়েও দিয়েছেন হাফেজদের সঙ্গে। এরপর তার ইচ্ছা অনুযায়ী, তার ছেলে-মেয়েরাও তাদের সন্তানদের হাফিজি পড়িয়েছেন ও পড়াচ্ছেন।
শাহজাহান হাওলাদারের মেজ ছেলে হাফেজ মাওলানা নুর হোসেন বলেন, আমিসহ আমার বাবার ছয় ছেলে ও চার মেয়ের মধ্যে এক ছেলে ও এক মেয়ে সৌদি আরব থাকেন। বাকি সবাই ব্যবসার পাশাপাশি হাফিজি মাদরাসায় শিক্ষকতা ও মসজিদের খতিবের দায়িত্ব পালন করছি। ছয় ছেলের ২৮ সন্তান এবং চার মেয়ের ২৩ সন্তান রয়েছে। এরই মধ্যে তাদের ২৭ জন পবিত্র কোরআনে হাফেজ হয়েছে। বাকিরা হাফিজি পড়ছে।

শাহজাহান হাওলাদার জানান, এলাকায় ছয়টি মাদরাসা স্থাপন করেছি। এর মধ্যে তিনটি ছেলেদের ও তিনটি মেয়েদের। এছাড়া বরিশালের আলেকান্দা এলাকায় মেয়েদের জন্য নুর জাহান বেগম হাফিজি মাদরাসা ও কামরাঙ্গীরচর ঢাকায় দারুল আখরাম নুরানী হফিজি মাদরাসাও স্থাপন করেছেন তিনি।
ছেলেদের মাদরাসা পরিচালনা করেন তার ছেলেরা ও মেয়েদের মাদরাসা পরিচালনা করেন তার মেয়ে ও ছেলের বৌরা।

আমার যা ছিল তার সব কিছু মাদরাসা স্থাপন ও বর্তমান খরচ পরিচালনায় খরচ করি। তারপরও মাদরাসার সব খরচ পোশাতে পারি না। এজন্য সরকার যদি এতিম ছেলে-মেয়েদের জন্য সহায়তা করত তাহলে ভালো হতো।১২ নং বাউফল সদর ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান মুহা. জসিম উদ্দিন খান বলেন, শাহজাহান হাওলাদারের পরিবারের সবাই ধার্মিক ও বিনয়ী। পরিবারের সবাইকে হাফেজ বানিয়ে এক বিরল দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন তিনি।

আগামী ৬ মে পবিত্র রমজান শুরু !

জ্যোতির্বিজ্ঞানী ও আকাশ গবেষকদের তথ্য মতে আগামী ৫মে শাবান মাসের শেষ দিন। সে হিসেবে ৬ মে থেকে শুরু হবে পবিত্র রমজান মাসের রোজা।সূত্র জানায়, ৫ মে সংযুক্ত আরব আমিরাতের স্থানীয় সময় ২টা ৪৬ মিনিটে জন্ম লাভ করবে পবিত্র রমজান মাসের চাঁদ।

ঐ দিন দুপুরের পর রমজান মাসের চাঁদ জন্ম লাভ করলেও সে দিন বিকেলে তা দেখা যাবে না বলে জানিয়েছেন দেশটির আকাশ গবেষণাকারী প্রতিষ্ঠান সারজা সেন্টার ফর অ্যাস্ট্রোনিওমি অ্যান্ড স্পেস সাইন্স।রীতি অনুযায়ী চাঁদ দেখার ওপর নির্ভরশীল আরবি মাস। আর চাঁদ দেখার মাধ্যমেই সারাবিশ্বের মুসলিমরা মাসব্যাপী রোজা পালন করেন। আকাশ গবেষক ও জ্যোতির্বিজ্ঞানীরা যাই বলুক না কেন, মুসলিম বিশ্ব চাঁদ দেখেই পালন করবেন পবিত্র রমজান মাসের রোজা। আর এটাই ইসলামের নীতি।

সংযুক্ত আরব আমিরাতের আকাশ গবেষণা প্রতিষ্ঠানটি আরো জানায়, ‘এবার রমজান মাসের শুরু দিকে মুসলিম উম্মাহ ১৩ ঘণ্টা ১০ মিনিট রোজা পালন করবে আর শেষ দিকে ১৩ ঘণ্টা ৪০ মিনিটে গিয়ে দাঁড়াবে এবারের রোজার সময়।উল্লেখ্য যে, মুসলিম উম্মাহর কাছে রমজান মাস ও রোজা অনেক গুরুত্বপূর্ণ ও মর্যাদাবান।

তাই সব মুসলিমই জ্যোতির্বিজ্ঞানের গবেষণার চেয়ে খালি চোখে চাঁদ দেখে রোজা পালন করতেই বেশি স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করে থাকেন। যদিও রোজা ও রমজানের তারিখ প্রযুক্তির কল্যাণে খালি চোখে চাঁদ দেখার আগেই নির্ধারণ হয়ে যায়।

সূত্রঃ গালফ নিউজ

এমপি হতে পারিনি বলে কি মানুষের সেবা করা বন্ধ দেব ?

গত ২০ ফেব্রুয়ারি বুধবার রাজধানীর চকবাজারে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডের পর আহতদের বেশিরভাগই ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে (ডিএমসি) চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

এদিকে তাদের দেখতে ঢাকা মেডিকেলে গিয়েছিলেন হিরো আলম। এ সময় তিনি পুড়ে যাওয়া রোগী ও রোগীর স্বজনদের সাথে কথা বলেন এবং তাদের চিকিৎসার ব্যাপারে খোঁজ খবর নেন।এ সময় হিরো আলম পুড়ে যাওয়া রোগীদের বলেন, ‘আপনাদের জন্য আমি আল্লাহর কাছে দোয়া করছি। আপনারা কোন কিছুর জন্য চিন্তা করবেন না। আল্লাহ আপনাদের সাথে আছেন।’

এ সময় বিভিন্ন রোগীর স্বজনদের তিনি নিজ হাতে নিজের ফোন নাম্বার দিতে দেখা যায়।এ সময় হিরো আলম বলেন, ‘আমার রাজনীতি মানুষের জন্য। এমপি হলাম কী হলাম না, সেটা বড় কথা না। এমপি হতে পারিনি বলে মানুষের সেবা বন্ধ করব না? এটা হতে পারে না।’এ সময় তিনি আরও বলেন, ‘এদেশে ধনী লোকের সংখ্যা কম নয়। সবাই যদি ক্ষতিগ্রস্তদের দিকে এগিয়ে আসে, তাহলে পুড়ে যাওয়া রোগীদের ভাল চিকিৎসা হওয়া সম্ভব।’

বরিশাল শের-ই বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ডাস্টবিনে ৩১ শিশুর ভ্রুণ !

বরিশাল শের-ই বাংলা মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের ডাস্টবিন থেকে ৩১টি মানবভ্রুন উদ্ধারের ঘটনায় তিন সদস্যের কমিটি গঠন করা হয়েছে।কমিটির প্রধান করা হয়েছে অধ্যাপক জহিরুল ইসলাম মানিককে। কমিটিকে তিনদিনের মধ্যে প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে।

এ ঘটনায় হাসপাতালের গাইনি ওয়ার্ডের ইনচার্জ সিনিয়র স্টাফ নার্স জোছনা আক্তারকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। আর গাইনি বিভাগের প্রধান অধ্যাপক খুরশিদ জাহানকে সাময়িক বরখাস্ত করার সুপারিশ করা হয়েছে।সোমবার রাতে পরিচ্ছন্নতাকর্মীরা হাসপাতালের পশ্চিম পাশে প্রধান পানির ট্যাংকের পাশে থাকা ডাস্টবিনের ময়লা অপসারন করতে যান। তারা ময়লার স্তুপের ভেতর প্লাস্টিকের বালতিতে অনেকগুলো ভ্রুন দেখতে পান। পরিচ্ছন্নতাকর্মীরা বিষয়টি হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে জানান।

চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, কিছু পরিবার অপরিণত ভ্রুণ হাসপাতালে ফেলে যান। বিভিন্ন বয়সের এসব ভ্রুণ ফরমালিন দিয়ে হাসপাতালের গবেষণার জন্য সংরক্ষণ করা হয়। এগুলো মেডিকেলের শিক্ষা উপকরণ হিসেবে ব্যবহৃত হয়।ডাস্টবিনে পাওয়া ভ্রুণগুলো উপকরণ হিসেবে আর ব্যবহারযোগ্য না থাকায় ফেলে দেয়ার সিদ্ধান্ত হয়। তবে সেগুলো মাটিচাপা না দিয়ে ডাস্টবিনে ফেলে দেয়া উচিত হয় নি বলে জানিয়েছেন হাসপাতালের পরিচালক ডাক্তার বাকির হোসেন।

মঙ্গলবার সকালে হাসপাতালের পরিচালকের কক্ষে এ বিষয়ে এক জরুরি সভা অনুষ্ঠিত হয়। হাসপাতালের পরিচালক ও মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষসহ ঊর্ধ্বতনরা সভায় উপস্থিত ছিলেন। সভায় হাসপাতালের সার্জারি বিভাগের প্রধান অধ্যাপক ডা. জহুরুল হক মানিককে প্রধান করে ৩ সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। কমিটিকে ৩ কার্যদিবসের মধ্যে প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে।

এছাড়া মন্ত্রণালয়ের নির্দেশে গাইনী বিভাগের বিভাগীয় প্রধান সহযোগী অধ্যাপক ডা. খুরশীদ জাহান এবং গাইনী ওয়ার্ডের নার্সিং ইনচার্জ জোৎস্না আক্তারকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে।
তবে অভিযুক্ত ডা. খুরশীদ জাহান নিজেকে নির্দোষ দাবি করে বলেছেন, তিনি এই ঘটনার কিছুই জানেন না।অপরদিকে মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার মোশারেফ হোসেন জানান, ভ্রুণগুলো উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হয়েছে। ময়নাতদন্ত শেষে দেহাবশেষগুলো যথাযথ প্রক্রিয়ায় সৎকার করা হবে।

এ ঘটনায় সিটি করপোরেশনের পরিচ্ছন্ন কর্মী মিরাজ হাওলাদার বাদী হয়ে গত সোমবার রাতে কোতয়ালী মডেল থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা করেন। মামলা তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়ার কথা জানিয়েছেন পুলিশ কমিশনার।উল্লেখ্য, গত সোমবার রাতে মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ডাস্টবিন থেকে ৩১টি মানব ভ্রুণ উদ্ধার করা হয়। বিষয়টি নিয়ে তোলপাড় হলে এই পদক্ষেপ নেয় কর্তৃপক্ষ।