আরও দুই লক্ষণ পাওয়া গেল করোনার গবেষণায়

জ্বর, সর্দি-কাশি, শ্বা’সক’ষ্টই করোনা ভা’ইরাস কোভিড-১৯-এর সাধারণ ল’ক্ষণ হিসেবে জানা গিয়েছিল। তবে রোববার নিউইয়র্ক টাইমসের এক নিব’ন্ধে আরও দুটি উপসর্গ ভা’বিয়ে তু’লেছে চি’কিৎসকদের। করোনা আক্রা’ন্ত ব্যক্তির ঘ্রা’ণশ’ক্তি লো’প এবং খা’বারের স্বাদ বুঝতে না পারার উপসর্গ নিয়ে শ’ঙ্কা প্রকাশ করেছেন যুক্তরাজ্য, যুক্তরাষ্ট্র, জার্মানি, ইতালিসহ বিভিন্ন দেশের বিশেষ’জ্ঞ চিকিৎসকরা। রোববার নিউইয়র্ক টাইমসের এক নিব’ন্ধে কয়েকটি দেশের নাক, কান, গলা বিশেষজ্ঞ’দের বরাত দিয়ে বলা হয়, স্বা’দ-গ’ন্ধ লো’প পাওয়াও এ ভাইরাস সং’ক্র’মণের স’ম্ভাব্য লক্ষণ হতে পারে।

তারা বলছেন, এ ভাইরাসে আ’ক্রা’ন্ত ব্যক্তিকে আপা’তদৃষ্টিতে সুস্থ মনে হলেও কিংবা তার মধ্যে অন্য কোনো উপস’র্গ না থাকলেও ঘ্রা’ণশ’ক্তি লো’প পাওয়া এবং খাবারের স্বা’দ বুঝতে না পারার লক্ষ’ণ দেখা দেয়ার সঙ্গে সঙ্গে তাকে অ’ন্তত সাত দিনের জন্য আ’লাদা করে রাখতে হবে।বিভিন্ন দেশের সহকর্মীদের কাছ থেকে পাওয়া তথ্যের বরাতে শুক্রবার ব্রিটেনের একদল নাক, কান গলা বিশেষজ্ঞ জানিয়েছেন, অন্য ল’ক্ষণ না থাকলেও বয়স্কদের মধ্যে ঘ্রা’ণশ’ক্তি লো’প পাওয়ার ল’ক্ষণ দেখা দিলে তাকে সাত দিনের জন্য আলাদা করে রাখতে হবে।

নতুন এ উপস’র্গ নিয়ে খুব বেশি তথ্য-উ’পা’ত্ত পাওয়া না গেলেও সত’র্ক হওয়ার মতো যথে’ষ্ট কারণ রয়েছে বলে মনে করছেন চিকিৎসকরা।ব্রিটিশ রা’ইনোল’জিক্যাল সো’সাইটির প্রেসিডেন্ট ক্লে’য়ার হপকিন্স বলেন, আমরা স’ত্যিই বিষয়টি নিয়ে স’তর্ক করতে চাই, কারণ এটি সংক্র’মণের একটি লক্ষ’ণ। কারও ঘ্রা’ণশ’ক্তি লো’প পেলে তার উচিত স্বে’চ্ছায় আ’লাদা থাকা।এর ফলে (ভাইরাসের) বি’স্তারের গতি ক’মবে এবং প্রা’ণও বাঁ’চবে।

যেসব রোগীর ঘ্রা’ণশ’ক্তি লো’প পেয়েছে, এমন রোগীদের চিকিৎসার সময়ও স্বা’স্থ্যকর্মীদের প্রয়োজনীয় সুর’ক্ষা উ’পকরণ ব্যবহারের প’রামর্শ দিয়েছেন ব্রিটিশ চিকিৎসকদের সংগঠন ইএনটি ইউকের প্রেসিডেন্ট নির্মল কুমার।যুক্তরাজ্যের চিকিৎসকরা বলছেন, ঘ্রা’ণশ’ক্তি হা’রিয়ে ফে’লা ক’রোনা আক্রা’ন্ত রোগীর সংখ্যা কম নয়। দক্ষিণ কোরিয়ায় ২০০০ রোগীর ৩০ শতাংশের মধ্যেই এই উপস’র্গ পাওয়া গেছে বলে জানিয়েছেন তারা।