বিয়ের দাবিতে অনশনে প্রেমিকা, পালালেন প্রেমিক

রাজশাহীর গোদাগাড়ীতে বিয়ের দাবিতে প্রেমিকের বাড়িতে অনশন শুরু করেছেন এক কলেজছাত্রী। বুধবার (৮ জানুয়ারি) সকাল থেকে উপজেলার মাটিকাটা ইউনিয়নের ফরাদপুর এলাকার প্রেমিক খাইরুল ইসলামের বাড়িতে অবস্থান নিয়েছেন তিনি।প্রেমিক খাইরুল ইসলাম ওই গ্রামের মৃত এমদাদুল হকের ছেলে।

ভুক্তভোগী ওই কলেজছাত্রী উপজেলার কৃষ্ণবাটি কালিদিঘি গ্রামের বাসিন্দা।তারা দুইজনই রাজশাহী নিউ গভ. ডিগ্রি কলেজের অনার্স ৩য় বর্ষের শিক্ষার্থী। ঘটনার পর প্রেমিক খাইরুল ইসলাম বাড়ি থেকে পালিয়েছেন।ওই কলেজছাত্রী জানান, চার বছর ধরে তাদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক। প্রেমের ফাঁ’’দে ফেলে প্রেমিক খাইরুল তাকে এ’কা’ধিক’বার ধ’’র্ষণ করেছে।সম্প্রতি বিষয়টি পরিবার জেনে যায়। এরপর থেকেই খাইরুলকে বিয়ের জন্য চাপ দিচ্ছিলেন
তিনি। কিন্তু তাতে রাজি হননি প্রেমিক। বছর দেড়েক আগে তিনি খাইরুলের বাড়িতে গিয়ে তার মা দেলখোস বেগম এবং মামা আব্দুল কাদিরকে বিষয়টি

জানান।ওই সময় তারা বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়ে বাড়ি থেকে পাঠিয়ে দেন। এখন সেই সম্পর্ক অস্বীকার করছে প্রেমিক। তার পরিবারও এই সম্পর্ক মানতে নারাজ। এই পরিস্থিতিতে বাধ্য হয়েই প্রেমিকের বাড়িতে গিয়ে তিনি অনশন শুরু করেছেন। প্রেমিক বিয়ে না করলে আত্মঘাতি হবেন বলেও জানান ওই কলেজছাত্রী।পলাতক থাকায় এ নিয়ে প্রেমিক খাইরুল ইসলামের মন্তব্য পাওয়া যায়নি। তবে তার মা দেলখোস বেগম বলেন, তার ছেলের সঙ্গে ওই মেয়ের

প্রেমের সম্পর্ক নেই। তবে একই সঙ্গে পড়ালেখার সুবাদে তাদের মধ্যে বন্ধুত্ব রয়েছে।উপজেলার মাটিকাটা ইউনিয়নে পরিষদের চেয়ারম্যান আলী আজম তৌহিদ জানান, বিষয়টি নিয়ে উভয় পরিবারের মধ্যে আলোচনা চলছে। দুই পক্ষই মীমাংসায় রাজি হয়েছে।এ বিষয়ে গোদাগাড়ীর প্রেমতলি পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ আবদুল বারী জানান, এ নিয়ে ওই কলেজছাত্রী এখনো থানায় কোনো অভিযোগ দেয়নি। অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেবে পুলিশ।