৭ বছরের শিশুকে প্রলোভনে তার রুমে নিয়ে ধ* র্ষণ গ্রেফতার কবির হোসেন (৪০)

নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার ফতুল্লায় ৭ বছরের এক শিশুকে টানা ৫ মাস ধ* র্ষণ করার অভিযোগে ধ* র্ষক কবির হোসেনকে (৪০) গ্রে* ফতার করেছে পুলিশ। শুক্রবার (১১ অক্টোবর) গভীর রাতে ধ* র্ষক এলাকা ছেড়ে পালিয়ে যাওয়ার সময় শিশুর পরিবার ও এলাকাবাসীর সহযোগিতায় পুলিশ শহরের উত্তর চাষাঢ়া থেকে তাকে গ্রে* ফতার করে।

এ সময় মোবাইলে ধারণকৃত ধর্ষণের ভিডিও চিত্র কবির হোসেনের কাছ থেকে জব্দ করে পুলিশ। গ্রে* ফতার কবির হোসেন চাঁদপুর জেলার উত্তর মতলব থানার উত্তর রামপুরা এলাকার আব্দুল হান্নান ওরফে হান্নু মিয়ার ছেলে। এ ঘটনায় শনিবার (১২ অক্টোবর) সকালে ধ* র্ষণের শি* কার শিশুর বাবা বাদী হয়ে কবির হোসেনের বিরুদ্ধে ফতুল্লা মডেল থানায় মামলা করেন।

মামলার সূত্রে জানা গেছে, চাঁদপুরের উত্তর মতলব থানার উত্তর রামপুরা এলাকার জনৈক এক ব্যবসায়ী স্বপরিবার নিয়ে ফতুল্লার ভূইগড় খোকনের ভাড়াটিয়া বাসায় বসবাস করে একই এলাকায় একটি দোকান দিয়ে হালুয়া-রুটি বিক্রি করে। তার গ্রামের বাড়ির প্রতিবেশী আব্দুল হান্নান ওরফে হান্নু মিয়ার ছেলে কবির হোসেনকে গ্রামের বাড়ি থেকে এনে হালুয়া-রুটির দোকানে কর্মচারী হিসেবে রাখে।

আর কবিরকে থাকার জন্য একই বাড়িতে একটি রুম ভাড়া নিয়ে দেয়। জনৈক ব্যবসায়ীর ৭ বছরের একটি শিশু কন্যা রয়েছে। আর কাজ করার সুবাধে কবিরের মালিকের পরিবারের সঙ্গে সু-সম্পর্ক গড়ে উঠে। এক পর্যায়ে মালিকের ৭ বছরের শিশুর দিকে কু-নজর পড়ে কবিরের। চলতি বছরের মে মাস থেকে কবির শিশুটিকে বিভিন্ন প্রলোভনে তার রুমে নিয়ে ধ* র্ষণ করে এবং ধ*র্ষণের চিত্র মোবাইলে ভিডিও ধারণ করে।

নার্সকে নির্জনে ডেকে এনে তিন বন্ধু মিলে পালাক্রমে সর্বনাশ, গ্রেফতার দুই !

সিরাজগঞ্জের কামারখন্দে এক নার্সকে গণধrsoণের ঘটনায় দু’জনকে গ্রে’ফতার করেছে পুলিশ। গ্রেফতাররা হলেন- কামারখন্দ উপজেলার কুটিরচর গ্রামের আশরাফুল ইসলাম এবং একই এলাকার নাইমুল হক।

কামারখন্দ থানার অফিসার ইনচার্জ হাবিবুল ইসলাম জানায়, পূর্বপরিচয়ের সূত্র ধরে বেসরকারি হাসপাতালের ওই নার্সকে গত ১৫ সেপ্টেম্বর রাতে উল্লাপাড়া থেকে কামারখন্দে ডেকে আনে আশরাফুল।পরে ওই নার্সকে একটি নির্জন স্থানে নিয়ে তিন বন্ধু মিলে পালা*ক্রমে ধrsর্ষণ করে পালিয়ে যায়। সকালে খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে নি*র্যাতিতাকে উ*দ্ধার করে ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করে।

এ ঘটনায় নির্যাতিতার ভাই বাদী হয়ে গতকাল দুপুরে অভি*যুক্ত চারজনের নাম উল্লেখ ও ২ জনকে অজ্ঞাতনামা আসামি করে কামারখন্দ থানায় মামলা করেন। এরপরই অভি*যান চালিয়ে দু’জনকে গ্রে’ফতার করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন সিরাজগঞ্জ কামারখন্দ থানার অফিসার ইনচার্জ হাবিবুল ইসলাম।

গৃহবধূ ধ’র্ষণ মামলায় যশোরে তিন আসামি রিমান্ডে !

যশোরে আসামির স্ত্রীকে গণধর্ষ’ণের মামলায় গ্রে’প্তা’র তিন আসামিকে তিন দিন করে রি’মান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত। রোববার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে যশোরের জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক সাইফুদ্দিন হুসাইন শুনানি শেষে এ রি’মান্ড মঞ্জুর করেন। এ ছাড়া এ ঘটনায় গঠিত পুলিশের ত’দন্ত কমিটির আজ প্রতিবেদন দাখিলের কথা থাকলেও তাঁরা তা জমা দিতে পারেনি।

এ জন্য তাঁরা নতুন করে সময় বৃদ্ধির আবেদন করেছেন। মামলার ত’দন্তকারী কর্মকর্তা পিবিআই ইন্সপেক্টর শেখ মোনায়েম হোসেন জানান, জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আদালতে আসামিদের প্রত্যেককে পাঁচ দিন করে রি’মান্ড চাওয়া হয়েছিল। আদালত আজ শুনানি শেষে তিন দিন করে রি’মান্ড মঞ্জুর করেছেন। আজই তাদের জিজ্ঞাসাবাদের জন্য নেওয়া হবে বলে জানান পিবিআই কর্মকর্তা। এদিকে, পুলিশ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে ধ’র্ষ’ণের অ’ভি’যোগ ওঠায় গত ৩ সেপ্টেম্বর ত’দন্তের জন্য পুলিশের পক্ষ থেকে একটি কমিটি করা হয়েছিল। কিন্তু নির্ধারিত তিন দিন শেষে আজ তাঁদের প্রতিবেদন দেওয়ার কথা থাকলেও তাঁরা তা দেননি।

তদন্ত কমিটির প্রধান অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সালাহউদ্দিন শিকদার জানান, ঘটনার গুরুত্ব অনুধাবন এবং সুষ্ঠু তদন্তের স্বার্থে পুলিশ সুপারের কাছে আরো সাত দিন সময় বৃদ্ধির আবেদন করা হয়েছে। গত ৩ সেপ্টেম্বর শার্শা উপজেলার লক্ষণপুর গ্রামের এক গৃহ’বধূ স্থানীয় গোড়পাড়া পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ ও তাঁর সোর্সের বিরু’দ্ধে ধ’র্ষ’ণের অভিযোগ করেন। পরে এ ঘটনায় অভি’যুক্ত এসআই খায়রুল আলমের নাম বাদ দিয়ে শার্শা থানায় মা’মলা হয়। পুলিশ এ মামলায় তিনজনকে আ’টক করে।

স্কুলের স্টোর রুম থেকে তৃতীয় শ্রেণির ছাত্রীসহ বিবস্ত্র শিক্ষক আটক

লালমনিরহাটের আদিতমারীতে তৃতীয় শ্রেণির এক ছাত্রীকে ধ’র্ষণ চেষ্টার অভিযোগে নীলকান্ত বর্মণ (৫০) নামে এক শিক্ষককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। বৃহস্পতিবার দুপুর ১টার দিকে উপজেলার বুড়িরদিঘী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে এ ঘটনা ঘটে। আটক নীলকান্ত বর্মণ উপজেলার বুড়িরদিঘী এলাকার বসন্ত কুমারের ছেলে এবং ওই স্কুলের সহকারী শিক্ষক।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, বৃহস্পতিবার দুপুরে স্কুল চলাকালে স্কুলের স্টোর রুম থেকে মেয়েটির চিৎকারে শুনে অন্য শিক্ষার্থী ও শিক্ষকরা ছুটে যান। সেখান থেকে ছাত্রীকে উদ্ধার ও লম্পট শিক্ষককে বিবস্ত্র অবস্থায় আটক করা হয়। পরে শিক্ষার্থীরা ওই শিক্ষককে প্রায় দুই ঘণ্টা অবরুদ্ধ করে রেখে পুলিশে খবর দেয়। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে ওই শিক্ষককে আটক করে থানায় নিয়ে যায়। ওই ছাত্রীকেও থানায় নেয়া হয়েছে।

স্কুলের প্রধান শিক্ষক আবু সাঈদ বলেন, নীলকান্তের বিরুদ্ধে দীর্ঘদিন থেকে ছাত্রীদের যৌ’ন হয়রানির অভিযোগ ছিল। বারবার সতর্ক করার পরও তিনি শোধরাননি।আমরা তার উপযুক্ত শাস্তি দাবি করছি। আদিতমারী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সাইফুল ইসলাম ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, এ বিষয়ে মামলার প্রস্তুতি চলছে। লম্পট শিক্ষক ও মেয়েটি পুলিশ হেফাজতে ।

পাবনায় ৩য় শ্রেণীর স্কুলছাত্রীকে ধ’র্ষণ অতঃপর ধ’র্ষককে ছেড়ে দিলেন চেয়ারম্যান !

পাবনার সুজানগর উপজেলার ভায়না ইউনিয়নে তৃতীয় শ্রেণির এক ছাত্রী ধর্ষ’ণের শিকার হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এই ঘটনায় শিশুটির বাবা সুজানগর থানায় মামলা করেছেন।ভিকটিমের পরিবার ও স্থানীয়দের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, গত শুক্রবার দুপুরে বাড়ির পাশে বড়ই বাগানে প্রতিবেশী জয়দেব কুমার দাস (৪০) ওই শিশুটিকে একা পেয়ে ধ’র্ষণ করে। এরপর ধর্ষণের কথা কাউকে না বলার জন্য ভয়ভীতি দেখিয়ে বাড়িতে পাঠিয়ে দেয়।

পরে মেয়েটির যৌ’নাঙ্গ থেকে প্রচুর র’ক্তক্ষরণ দেখে তার মা জিজ্ঞাসা করলে ধর্ষ’ণের বিষয়টি জানতে পারেন। মেয়েটির বাবা ঘটনাটি ভায়না ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যানকে জানালে তিনি মীমাংসার কথা বলে সময়ক্ষেপণ করেন।একপর্যায়ে ঘটনাটি জানাজানি হলে শনিবার সুজানগর থানার উপপরিদর্শক (এসআই) অর্জুন সাহা ঘটনাস্থলে তদন্তে এসে জয়দেব কুমার দাসকে আটক করে। এ সময় ইউপি চেয়ারম্যান মো. আমিন উদ্দিন ও সাবেক ই্উপি সদস্য ইমরুল হোসেন সামাজিকভাবে সমঝোতার কথা বলে জয়দেব দাসকে পুলিশের কাছ থেকে ছাড়িয়ে নেন। কিন্তু মেয়েটির দরিদ্র ভ্যানচালক বাবা পুলিশের কাছে যেতে চাইলে চেয়ারম্যান ও ইউপি সদস্য তাঁকে বাধা দেন।

ঘটনার বিষয়ে শিশুটির মা বলেন, ‘আমার নাবালিকা শিশু বাচ্চা মেয়ের সাথে এই রকম ঘটনায় আমি মর্মাহত। কাউকে কিছু বলতে পারছি না। মেয়ের বাবাসহ পরিবারের সবাই এলাকার চেয়ারম্যানের কাছে গিয়েছিল। আমরা মেয়েকে ডাক্তারের কাছে নিতে চেয়েছিলাম। কিন্তু চেয়ারম্যান-মেম্বাররা যেতে দেয়নি। আমরা গরিব মানুষ, আমার মেয়ের ভবিষ্যৎ কী হবে? আমার শিশু মেয়ের সাথে যে এই জ’ঘন্য কাজ করেছে আমি তার কঠিন বিচার চাই।’ঘটনার বিষয়ে ভায়না ইউপি চেয়ারম্যান আমিন উদ্দিন বলেন, ‘বিষয়টি আমি সামাজিকভাবে বসে ঠিক করার কথা বলেছিলাম। পরে সমাধান করতে পারব না বলে জানিয়েছি ওই পরিবারকে।

মেয়েটির বাবা আমার কাছে এসেছিলেন। আমি তাঁকে আইনগত ব্যবস্থার গ্রহণের কথা বলেছি। ঘটনার পরে পুলিশ ত’দন্তে এসেছিল, তখন অভি’যুক্ত জয়দেব দাস ঘটনাস্থলে পুলিশের সঙ্গে উপস্থিত ছিল। ভিকটিমের পরিবার তখন পুলিশের কাছে কোনো অভি’যোগ করেনি। সেই কারণে পুলিশ তাকে ছেড়ে দেয়। আমি জয়দেব দাসকে ছেড়ে দেওয়ার জন্য কোনো ধরনের তদবির করিনি।’সুজানগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শরিফুল আলম ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, ‘প্রাথমিক পর্যায়ে ভিকটিমের পরিবার বিষয়টি থানাকে জানাতে চায়নি। আমরা ভিকটিমের পরিবার ও ভিকটিমের সঙ্গে কথা বলেছি। ভিকটিমের বাবা বাদী হয়ে থানায় ধর্ষ’ণের মামলা করেছেন। আমরা ধর্ষ’ককে গ্রে’প্তা’রের জন্য চেষ্টা করছি।’

এ ব্যাপারে পাবনার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার গৌতম কুমার বিশ্বাস বলেন, এই বিষয়ে একটি অভি’যোগের কথা শুনেছি। সংশ্লিষ্ট থানাকে বিষয়টি গুরুত্ব সহকারে দেখার জন্য বলেছি। ধ’র্ষ’ক যেই হোক তার বিরু’দ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

নারী সহকর্মীর সঙ্গে ডিসির আ’পত্তিকর ভিডিও, যে সিদ্ধান্ত নিলো মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ !

এক নারী অফিস সহকারীর সঙ্গে জামালপুরের জেলা প্রশাসক (ডিসি) আহমেদ কবীরের আ**পত্তিকর ভিডিও প্রকাশের বিষয়ে অবগত আছে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ। বিভাগের কর্মকর্তারা প্রাথমিকভাবে বিষয়টি খতিয়ে দেখছেন।অফিস খুললে বিষয়টি তদন্তের জন্য কমিটি গঠন করবে মাঠ প্রশাসনের দেখভালের দায়িত্ব থাকা মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ।

শনিবার (২৪ আগস্ট) সকালে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব (জেলা ও মাঠপ্রশাসন অনুবিভাগ) আ. গাফ্ফার খান গণমাধ্যমকে এসব তথ্য জানান।জামালপুরের ডিসির একটি আপত্তিকর ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে। ভিডিওটিতে ডিসি আহমেদ কবীরের সঙ্গে তার অফিসের এক নারীকর্মীকে অন্তরঙ্গ অবস্থায় দেখা যায়। গত বৃহস্পতিবার মধ্যরাতে খন্দকার সোহেল আহমেদ নামের একটি ফেসবুক আইডি থেকে জেলা প্রশাসকের আপত্তিকর ভিডিওটি পোস্ট করা হয়।

তবে অভিযোগ অস্বীকার করে বিষয়টিকে সাজানো দাবি করেছেন জেলা প্রশাসক। ওই ঘটনায় জামালপুরের মানুষের মাঝে ক্ষোভ ছড়িয়ে পড়েছে।
এ বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করলে অতিরিক্ত সচিব গাফ্ফার খান বলেন, ‘বিষয়টি কর্তৃপক্ষের নলেজে আছে।’তিনি বলেন, ‘তদন্ত কমিটি হবে, এখন দু’দিন বন্ধ যাচ্ছে। অফিস খুললেই এটা হবে। তবে এটা নিয়ে বিভিন্নভাবে তদন্ত হচ্ছে, বিভিন্ন সংস্থা-কর্তৃপক্ষ সেটা করছে। আরও অনেক অথরিটি আছে, তারাও দেখছে।’‘এটা আমাদের নলেজেও আছে। বিষয়টি দেখা হচ্ছে’ বলেন অতিরিক্ত সচিব।

ট্রেনের টয়লেটে ধ’র্ষ’ণের পর গলায় ওড়না পেঁচিয়ে ঝুলিয়ে রাখে মাদরাসাছাত্রী আসমাকে !

ঢাকা রেলওয়ে স্টেশনে (কমলাপুর) একটি ট্রেনের পরিত্যক্ত বগির টয়লেটের ভেতর থেকে উ’*দ্ধার হওয়া মাদরাসাছাত্রী আসমা আক্তারের (১৭) লা*শের ময়নাত’*দন্ত গতকাল সম্পন্ন হয়েছে।ময়না ত*’দন্তকারী চিকিৎসক জানিয়েছেন, তরুণীকে শ্বা’সরোধে হ**’ত্যা করা হয়েছে। তার আগে তাকে ধ*’র্ষণ করা হয়েছে। তবে এটা গণধ’র্ষণ কি না তা নিশ্চিত হতে আরো পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর জানানো যাবে।

এ দিকে ঘটনার প্রায় দুই দিন পরও এ ঘটনার সাথে জ’ড়িত কোনো দুর্বৃত্তকে পু*’লিশ গ্রে*’ফতার করতে পারেনি। শুধু পু’লিশ নয়, এ ঘটনার দায়দায়িত্ব বাংলাদেশ রেলওয়ে কর্তৃপক্ষও এড়াতে পারে না বলে মনে করছেন রেল সংশ্লিষ্টরা।এ প্রসঙ্গে জানতে গতকাল সন্ধ্যার আগে বাংলাদেশ রেলওয়ের মহাপরিচালক মোহাম্ম’দ শামছুজ্জামানের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি নয়া দিগন্তকে বলেন, কমলাপুর স্টেশনে কোনো খু’*নের ঘটনা ঘটেছে কি না সেটি আমি এখনো খবর নিতে পারিনি।

আমি এ মুহূর্তে জরুরি কাজে যশোর এসেছি। তিনি বলেন, এ ধরনের কোনো ঘটনা ঘটলে সেটি পু’লিশ দেখবে।গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল ম’র্গে আসমা’র লা’শের ময়নাত’দন্ত সম্পন্নের পর ফরেনসিক বিভাগের প্রভাষক ডা: প্রদীপ বিশ্বা*’স সাংবাদিকদের বলেন, ময়নাত’দন্তের সময় মেয়েটির গলায় আম’রা দাগ দেখতে পেয়েছি। তাকে শ্বা’সরো’ধে হ*’ত্যা করা হয়েছে। হ’ত্যার আগে যে তাকে ধ’*র্ষণ করা হয়েছে সে আলামত পেয়েছি।

তবে একাধিক ব্যক্তির ধ’*র্ষণের শিকার হয়েছে কি না সেটি জানতে টিস্যু, (হাই ভ্যাজাইনাল সফ) র’ক্ত ও ভিসেরা সংগ্রহ করা হয়েছে। এসব পরীক্ষা-নিরীক্ষার প্রতিবেদন হাতে পাওয়ার পর বিস্তারিত জানা যাবে।গত সোমবার সকাল ৯টার দিকে স্থানীয়দের কাছ থেকে সংবাদ পেয়ে কমলাপুর রেলস্টেশনের ওয়াশফিড এলাকার পবিত্যক্ত বলাকা ট্রেনের একটি বগির টয়লেট থেকে গলায় ওড়না পেঁচানো অবস্থায় পু’লিশ আসমা আক্তারের লা’শ উ’দ্ধার করে।

সোমবার রাতে কমলাপুর জিআরপি থানার ওসি রুশো বনিক নয়া দিগন্তকে বলেছিলেন, সকাল ৯টার দিকে স্থানীয়দের দেয়া তথ্য মোতাবেক কমলাপুর রেল স্টেশনের ওয়াশফিড এলাকায় বলাকা ট্রেনের একটি ডেমেজ বগির টয়লেটের ভেতর থেকে ১৭-১৮ বছর বয়সী এক তরুণীর লা’শ উ’দ্ধার হয়েছে। লা’শটি উ’দ্ধারের সময় গলায় ওড়না পেঁচানো ছিল। ধারণা করছি, মেয়েটিকে দু’র্বৃত্তরা শ্বা’সরো’ধে হ’**ত্যা করতে পারে।

তবে এর আগে সে ধ’র্ষিত হয়েছে কি না সেটি ময়নাত’দন্তের আগে বলা যাচ্ছে না। মেয়েটির শরীরের কোথাও আ’ঘাতের চিহ্ন পাইনি। এক প্রশ্নের উত্তরে ওসি বলেন, আম’রা লা’শের পাশ থেকে তার ব্যবহৃত একটি ব্যাগ পেয়েছি। সেই ব্যাগে কিছু কাগজপত্র ছিল।বার্থ সার্টিফিকেট ছিল। সেই অনুযায়ী তার পরিচয় আম’রা নিশ্চিত হয়ে স্বজনদের সাথে যোগাযোগ করি। আসমা’র গ্রামের বাড়ি পঞ্চগড় সদর উপজে’লার শীলপাড়ায়। তার পিতার নাম আব্দুল রাজ্জাক মিয়া।

তবে আসমা’র চাচা মো: রাজু পু’লিশকে বলেছেন, রোববার সকাল থেকে তার ভাতিজি আসমা নিখোঁজ ছিল। সোমবার পু’লিশের মাধ্যমে খবর পেয়ে লা’শ শনাক্ত করেন। তিনি আরো জানান, আসমা গ্রামের একটি মাদরাসা থেকে গত বছর এসএসসি পরীক্ষা দিয়েছিল। ওই গ্রামের একটি ছেলের সাথে তার প্রেমের স’ম্পর্ক ছিল।আসমা নিখোঁজের পর থেকে ওই ছেলেকেও খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না। তিনি অ’ভিযোগ করেন, এই হ’ত্যাকা’ণ্ডের সাথে ওই ছেলে জ’ড়িত থাকতে পারে। নি’হত আসমা’র বাবা একজন কৃষক। দুই ভাই, দুই বোনের মধ্যে সে ছিল তৃতীয়।

গতকাল মঙ্গলবার বিকেলে কমলাপুর জিআরপি থানার ওসি রুশো বনিকের সাথে যোগাযোগ করা হলে তার মোবাইল বন্ধ পাওয়া যায়। ডিউটি অফিসারের টেলিফোনে যোগাযোগ করা হলে সেটি ফ্যাক্সের লাইনে চলে যায়।খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, কমলাপুর রেলস্টেশনের সার্বিক নিরাপত্তাব্যবস্থা অ’ত্যন্ত দুর্বল। এক কথায় অরক্ষিত। যার কারণে প্রতিদিন স্টেশনে ছোট-বড় অ’প’রাধ সংগঠিত হলেও সেদিকে কারো দৃষ্টি দেয়ার সময় নেই বলে ভু*ক্তভোগীদের কাছ থেকে অ’ভিযোগ পাওয়া গেছে।

আর এসব ছিচকে চো’র থেকে শুরু করে খু’নিরা পর্যন্ত অনেকটা প্রকাশ্যেই স্টেশনে ঘোরাফেরা করলেও পু’লিশ, আনসার ও আরএনবির সদস্যদের সেদিকে তেমন নজর নেই।তারা বেশির ভাগ ব্যস্ত থাকেন বিনা টিকিটের যাত্রীদের কিভাবে স্টেশনে ঢোকানো যায় এবং তাদের কাছ থেকে টাকা কামাই করা যায়। তবে কমলাপুর রেলস্টেশনের একজন দায়িত্বশীল কর্মক’র্তা গতকাল নয়া দিগন্তকে বলেন, স্টেশনের মূল ফট’ক ছাড়াও আশপাশ থেকেও যেকোনো লোক স্টেশনের ভেতরে অবাধে প্রবেশ করতে পারে।

যার কারণে তারা ইচ্ছা থাকা সত্ত্বেও পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করতে পারছেন না। লোকজনের অবাধে স্টেশনে প্রবেশের কথা বারবার রেলওয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মক’র্তাদের জানানোর পরও তারা এ নিয়ে খুব একটা মাথা ঘামাচ্ছেন না।

অষ্টম শ্রেণির ছাত্রীকে ধ’rর্ষণের পর বিধবা নারীকে বেঁধে সংঘব৮দ্ধ ধ*র্ষণ

ভোলার বোরহানউদ্দিন উপজেলায় অষ্টম শ্রেণির এক মাদরাসা ছাত্রী (১৩) ও এক বিধবা (৩৫) নারীকে ধ’*৮র্ষণের ঘটনা ঘটেছে। তারা ভোলা সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। শুক্রবার সকালে এ দুটি ঘটনা ঘটেছে।পরিবারের সদস্যরা জানান, বৃহস্পতিবার রাতে বোরহানউদ্দিন উপজেলার বড় মানিকা ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ডে ওই মাদরাসা ছাত্রীর মা তাকে রেখে তার বাবার বাড়িতে বেড়াতে যায়। অপরদিকে তার বাবাও নদীতে মাছ শিকারে যায়।

এ সুযোগে একই এলাকার আব্দুল রশিদের ছেলে মো. সোহাগ তাকে ঘরে একা পেয়ে ধ*’র্ষণ করে। এসময় মেয়েটির বাবা বাড়িতে এলে মেয়ের চি*ৎকার শুনতে পায়। তিনি এগিয়ে গেলে ধ’*র্ষক তাকে মা’*রধ*’র করে পালিয়ে যায়। এ ঘটনায় মেয়েটির বাবা শুক্রবার বিকেলে বোরহানউদ্দিন থানায় একটি মা*ম*লা দায়ের করেছেন। অপর দিকে একই উপজেলার কাচিয়া ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ডের ফুল কাচিয়া গ্রামের এক নারী (৩৫) স্বামীর মৃ’*ত্যু*র পর সন্তানদের নিয়ে কষ্ট করে সংসার চালিয়ে আসছেন।

শুক্রবার ভোরের দিকে তিনি তার মুরগির খামারের খাবার দিতে গেলে ওই এলাকার মা’*দক সেবী মাকসুদ, ছালাউদ্দিন ও আলমগীর তাকে পার্শ্ববর্তী গরুর খামারে নিয়ে হাত পা বেঁধে সংঘবদ্ধ ধ’*র্ষ*ণ করে। পরে সকালে স্থানীয়রা তাকে হাত পা বাঁধা অবস্থায় উদ্ধার করে ভোলা সদর হাসপাতালে ভর্তি করে। এ ঘটনায় ওই নারীর বড় বোন বোরহানউদ্দিন থানায় একটি মা*মলা দায়েরের প্রস্তুতি নিচ্ছেন।ভোলা সদর হাসপাতালের সিনিয়র নার্স সারজিনা জানান, ধ’র্ষিতাদের পরীক্ষা-নিরীক্ষা করা হয়েছে। ধ*’র্ষ*ণের আলামতও পাওয়া গেছে।

বোরহানউদ্দিন থানা পুলিশের ওসি মো. এনামুল হক ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, মাদরাসা ছাত্রীর ধ*’র্ষ*ণের ঘটনায় তার বাবা ৩ জনকে আসামি করে থানায় দায়ের করেছেন। অপর ধ’*র্ষণের ঘটনায় এখনও কোনো অ*ভিযোগ থানায় আসেনি।

ধ*র্ষণে বাধা পেয়ে কলেজছাত্রীকে ১৪তলা থেকে ফেলে দেন সৎভাই !

ধ*র্ষণে বাধা পেয়ে কলেজছাত্রী তানজিনা আক্তার রূপাকে (১৭) গলা টিপে হ*ত্যা করেন সৎভাই যুবায়ের আহম্মেদ সম্রাট। তারপর রাজধানীর মতিঝিলের সিটি সেন্টারের ১৪ তলা থেকে রূপাকে নিচে ফেলে দেন তিনি। গত ১০ আগস্ট এই ঘটনার পর দোষ স্বীকার করে আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দিয়েছেন সম্রাট।

আজ শুক্রবার মতিঝিল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ওমর ফারুক এনটিভি অনলাইনকে এই তথ্য জানিয়েছেন।ওমর ফারুক বলেন, ‘ঘটনার পর রূপার মা দণ্ডবিধি ৩০২ ধারার হ*ত্যা মামলা করেন। ওই মামলায় আসামি সম্রাটকে গ্রে*প্তার দেখিয়ে ১০ আগস্ট রাতভর জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। ওই রাতেই সম্রাট আমাদের কাছে হ*ত্যার কথা স্বীকার করেন।’ওসি আরো বলেন, ‘হ*ত্যার আগে রূপাকে ধ*র্ষ*ণের চেষ্টা করেন সম্রাট। রূপা বাধা দিলে তাকে গলা টি*পে হ*ত্যা করেন। এই ঘটনা থেকে রেহাই পেতে তাকে ১৪ তলা থেকে নিচে ফেলে আত্মহ*ত্যার নাটক সাজান সম্রাট। জিজ্ঞাসাবাদে সম্রাটই আমাদের এসব কথা জানিয়েছেন। ঘটনার পরের দিন ১১ আগস্ট সম্রাটকে আদালতে পাঠানো হলে তিনি ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দেন। এখন তিনি কারাগারে আছেন।’

গত ১০ আগস্ট বিকেল ৪টার সময় ধর্ষণচেষ্টার পর রাজধানীর মতিঝিলের সিটি সেন্টারের ১৪তলা থেকে রূপাকে নিচে ফে*লে দেন সম্রাট। তবে ঘটনার দিন সম্রাট প্রাথমিকভাবে পুলিশকে জানিয়েছিল, ছুটির দিনে সিটি সেন্টারে ঘুরতে এসেছিল রূপা। পরে সম্রাট ও রূপা ৩২ তলার ছাদেও উঠেছিলেন। সেখানে গিয়ে হেলিপ্যাড দেখেন তাঁরা। তারপর ১৪ তলায় নেমে আসেন দুজন। নেমে আসার পর সম্রাট পাশের সিকিউরিটি রুমে যান। সিকিউরিটি রুম থেকে এসে সম্রাট দেখেন সেখানে রূপা নেই। রূপা নিচে পড়ে গেছে। রূপা থাকতেন ঢাকার দক্ষিণ গোড়ানে। আলী আহম্মেদ স্কুল অ্যান্ড কলেজে এইচএসসির শিক্ষার্থী ছিলেন তিনি।

গতকাল বৃহস্পতিবার রাতে বাইকে তুলে নিয়ে তরুণীকে ধ’র্ষণ, যুবক গ্রে;প্তার !

ঝালকাঠির নলছিটি উপজেলায় গতকাল বৃহস্পতিবার রাতে এক তরুণীকে (২২) ধ*র্ষণ করা হয়েছে বলে অভি’যোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় গতকাল রাতেই সাগর সরদার (২৫) নামের এক যুবককে গ্রে’প্তার করেছে পুলিশ।

গ্রে’প্তার হওয়া সাগর সরদার উপজেলার ভোজপুর এলাকার বাসিন্দা।পুলিশ ও ধ’র্ষণের শি”কার ওই তরুণীর পরিবার জানিয়েছে, গতকাল রাতে বাসার সামনে থেকে সাগর ও তাঁর এক সহযোগী ওই তরুণীকে জো’র করে মোটরসাইকেলে তুলে নিয়ে যায়। পরে একটি বাগানে নিয়ে তাঁকে ধ’র্ষণ করে সাগর। একপর্যায়ে তরুণীর চিৎকার শুনে স্থানীয়রা সাগরকে আ’টক করেন। এ সময় সাগরের সহযোগী পালিয়ে যায়।

খবর পেয়ে পুলিশ ওই তরুণীকে উ’দ্ধারের পর সাগরকে গ্রে’প্তার করে। গতকাল রাতেই তরুণীকে বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।এ ঘটনায় ধ”র্ষণের শিকার ওই তরুণীর বাবা বাদী হয়ে নলছিটি থানায় একটি মামলা করেন।নলছিটি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. সাখাওয়াত হোসেন জানান, ধর্ষণের ঘটনার খবর পেয়ে পুলিশ গিয়ে অভি”যুক্ত সাগরকে গ্রে’প্তার করেছে।

ধ”র্ষণের শিকার তরুণীর চিকিৎসার জন্য রাতেই হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। সাগরকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে বলেও জানান ওসি সাখাওয়াত হোসেন।