আরব আমিরাতে পবিত্র রমজান উপলক্ষে ৮৭৪ কারা বন্দিদের মুক্তি দেওয়ার আদেশ দিয়েছে।

আজ বুধবার সংযুক্ত আরব আমিরাতের ভাইস প্রেসিডেন্ট এবং সংযুক্ত আরব আমিরাতের প্রধানমন্ত্রী এবং দুবাইয়ের শাসক শেখ মাহমুদ বিন রশিদ আল মাকতুম পবিত্র রমজান উপলক্ষে ৮৭৪ জন কারা বন্দিদের মুক্তি দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন।

দুবাইয়ের অ্যাটর্নি জেনারেল, চ্যান্সেলর এসসাম ইসা আল হুমায়দান বলেছেন, বন্দীদের ক্ষমা করার আদেশের ফলে তাদের পরিবার সুখ বয়ে আনবে এবং ক্ষমা করা ব্যক্তিদের জীবন নতুন করে শুরু করতে এবং সমাজে পুনরায় একত্রিত হতে সহায়তা করবে।

অ্যাটর্নি জেনারেল আরও বলেছিলেন যে শেখ মোহাম্মদের আদেশ বাস্তবায়নে পাবলিক প্রসিকিউশন দুবাই পুলিশের সাথে সমন্বয় করে আইনী প্রক্রিয়া শুরু করেছে।

রাষ্ট্রপতি, হাইসনেস শেখ খলিফা বিন জায়েদ আল নাহায়ান সংযুক্ত আরব আমিরাতে বিভিন্ন সাজা প্রদানকারী ১,৫১১ জন বন্দীকে মুক্তি দেওয়ার আদেশ দেওয়ার পরে এই ঘোষণাটি প্রকাশিত হয়।

সুপ্রিম কাউন্সিলের সদস্য ও আজমানের শাসক হুজুর শেখ হুমাইদ বিন রশিদ আল নওমী ১২৪ জন বন্দীকে মুক্তি দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন, এবং শেখ সৌদ বিন রশিদ আল মুআলা, সুপ্রিম কাউন্সিলের সদস্য এবং উম্মে আল কাওয়াইনের শাসক এছাড়াও বেশ কয়েকজন বন্দীকে মুক্তি দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন।

সংযুক্ত আরব আমিরাতে কোভিড -১৯ এর কারণে ভিসার মেয়াদ শেষ হওয়ার পরও ৩ মাস বাড়াল !

সংযুক্ত আরব আমিরাত মন্ত্রিপরিষদ কোভিড -১৯ মহামারীর প্রভাবকে রক্ষার জন্য সতর্কতামূলক পদক্ষেপ গ্রহণ করে নতুন সিদ্ধান্ত অনুমোদন করেছে । নতুন সিদ্ধান্তগুলি জনগণের স্বাস্থ্য ও সুরক্ষা রক্ষা এবং সকল খাতে ব্যবসায়ের ধারাবাহিকতা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা পালন করবে।

এই প্রসঙ্গে, মন্ত্রিপরিষদ সকল প্রবাসীদের ১লা মার্চ হইতে শেষ হওয়া আবাসিক ভিসা মেয়াদ অতিরিক্ত ফি ছাড়াই তিন মাসের নবায়নযোগ্য মেয়াদ বাড়ানোর অনুমোদন দিয়েছে। এই সিদ্ধান্তটি বর্তমান দুঃসময় বিবেচনা করে বাসিন্দাদের সম্পর্কিত দায়বদ্ধতাগুলি রক্ষা করার উদ্দেশ্যে।

ফেডারাল কর্তৃপক্ষের পরিচয় ও নাগরিকত্ব প্রদান এবং মন্ত্রিসভা কর্তৃক অনুমোদিত পরিষেবাগুলি সম্পর্কিত লঙ্ঘনের সাথে জড়িত প্রশাসনিক জরিমানাও মন্ত্রিসভা মওকুফ করেছে। সিদ্ধান্তটি প্রথম এপ্রিল থেকে কার্যকর তিন মাসের নবায়নযোগ্য সময়ের জন্য বৈধ হবে।

বর্তমান পরিস্থিতিতে বিচারিক লেনদেনের সুবিধার্থে এবং মামলা-মোকদ্দমা এবং বিচার বিভাগীয় বিভাগের সমস্ত লোকদের সুরক্ষা নিশ্চিত করার জন্য নোটারি পাবলিকের সেবার জন্য ডিজিটাল লেনদেন পরিচালনার সমাধান সংক্রান্ত একটি প্রকল্পের জন্য অস্থায়ী লাইসেন্স দেওয়ার বিষয়েও সম্মত হয়েছে।

মন্ত্রিসভা অতিরিক্ত ১ লা এপ্রিল থেকে শুরু হয়ে তিন মাসের পুনর্নবীকরণযোগ্য মেয়াদে ১লা মার্চ থেকে মেয়াদ শেষ হওয়া সরকারী পরিষেবাগুলির মেয়াদ বাড়ানোর অনুমোদন দিয়েছে। এই সিদ্ধান্তটি , অনুমতি, লাইসেন্স এবং বাণিজ্যিক রেজিস্টার সহ সমস্ত ফেডারেল সরকারী পরিষেবার ক্ষেত্রে প্রযোজ্য। সূত্র : খালিজ টাইমস

আরব আমিরাত সফর শেষে দেশের পথে প্রধানমন্ত্রী !

আবুধাবি সফর শেষে দেশের পথে রওনা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। মঙ্গলবার (১৪ জানুয়ারি) আবুধাবি বিমানবন্দর থেকে স্থানীয় সময় সন্ধ্যা ৬টা ৫ মিনিটের দিকে (বাংলাদেশ সময় রাত ৮টা ৫ মিনিট) বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের ভিভিআইপি ফ্লাইট বিজি ১১০২ যোগে ঢাকার উদ্দেশে যাত্রা করেন শেখ হাসিনা।

বিমানবন্দরে তাকে বিদায় জানান আবুধাবিতে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মোহাম্মদ ইমরান।

বিমানটি বাংলাদেশের স্থানীয় সময় আজ রাত ১১টা ৫৯ মিনিটে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণের কথা রয়েছে।

সংযুক্ত আরব আমিরাতে (ইউএই) ‘আবুধাবি সাসটেইনেবল উইক’, ‘জায়েদ সাসটেইনেবল অ্যাওয়ার্ড সেরিমনি’ ও অন্যান্য কর্মসূচিতে অংশ নিতে তিন দিনের সরকারি সফরে গত ১২ জানুয়ারি (রোববার) রাত ৮টা ৩০ মিনিটে আবুধাবি পৌঁছান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এদিন বিকেল ৫টা ১০ মিনিটে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের একটি ভিভিআইপি ফ্লাইট প্রধানমন্ত্রী ও তার সফরসঙ্গীদের নিয়ে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে আবুধাবির উদ্দেশে রওনা দেয়।

সোমবার (১৩ জানুয়ারি) সকালে আবুধাবি ন্যাশনাল এক্সিবিশন সেন্টারের (এডিএনইসি) আইসিসি হলে ‘আবুধাবি সাসটেইনেবল উইক’ এবং ‘জায়েদ সাসটেইনেবল অ্যাওয়ার্ডস সেরিমনি’তে যোগ দেন শেখ হাসিনা। পরে সন্ধ্যায় তার হোটেলে আয়োজিত এনভয়ে’স কনফারেন্সে যোগ দেন প্রধানমন্ত্রী।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মঙ্গলবার (১৪ জানুয়ারি) ইউএই প্রধানমন্ত্রী শেখ মোহম্মদ বিন রশিদ আল মাকতুম, আবুধাবির যুবরাজ শেখ মোহম্মদ বিন জায়েদ বিন সুলতান আল-নাহিয়ান ও ইউএই’র প্রতিষ্ঠাতা ও প্রথম প্রেসিডেন্টের পত্নী শেখ ফাতিমা বিনতে মুবারক আল কেতবি’র সঙ্গে দেখা করেন।

বিকেলে প্রধানমন্ত্রী এডিএনইসি’র হল-১১-তে আয়োজিত ‘দ্য ক্রিটিক্যাল রোল অব উইমেন ইন ডেলিভারিং ক্লাইমেট অ্যাকশন’ সংক্রান্ত সাক্ষাৎকার অধিবেশনে যোগ দেন।

অবশেষে সংযুক্ত আরব আমিরাতে ৫ বছরের ট্যুরিস্ট ভিসা দেওয়ার কারণ প্রকাশ করল !

গত সোমবার সংযুক্ত আরব আমিরাতের মন্ত্রিসভা কর্তৃক ঘোষিত সংযুক্ত আরব আমিরাতের সকল জাতীয়তার জন্য পাঁচ বছরের বহু-ব্যবহারিক ব্যবসায়ী সম্প্রদায় ট্যুরিস্ট ভিসার প্রশংসা করেছে । সোমবার, হাইনেস শেখ মোহাম্মদ বিন রশিদ আল মাকতুম, সহ-রাষ্ট্রপতি

এবং সংযুক্ত আরব আমিরাতের প্রধানমন্ত্রী এবং দুবাইয়ের রুলার ঘোষণা করেছেন যে সংযুক্ত আরব আমিরাতের এখন পর্যটন ভিসা পাঁচ বছরের জন্য দেওয়া হবে। সংযুক্ত আরব আমিরাতের পর্যটন অর্থনীতিকে সমর্থন করার জন্য এবং এই বৈশ্বিক পর্যটন কেন্দ্র হিসাবে দেশটির অবস্থান নিশ্চিত করার জন্য এই পদক্ষেপ এসেছে। শিল্প আধিকারিক এবং বিশ্লেষকরা বিশ্বাস করেন যে দীর্ঘকাল স্থায়ী থাকার কারণে পর্যটকদের ব্যয় যথেষ্ট পরিমাণে বৃদ্ধি পাবে এবং রিয়েল এস্টেট খাতটি তাদের আবাসিক হিসাবে আকৃষ্ট করে উপকৃত হতে পারে।

জয়লুক্কাস গ্রুপের চেয়ারম্যান ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক জয়লুক্কাস এই সিদ্ধান্তের প্রশংসা করেছেন কারণ এটি “পর্যটন ও খুচরা খাত, বিশেষত স্বর্ণ ও গহনা ব্যবসায়কে উত্সাহিত করবে”। “দুবাই স্বর্ণ ও গহনা ব্যবসায়ের কেন্দ্রবিন্দু। বিশেষত এই পদক্ষেপটি ব্যবসায়কে বাড়িয়ে তুলবে ভারতীয় পরিবারগুলি পাঁচ বছরের ভিসা হাতে নিয়ে তারা খুব বেশি বেশি দুবাই সফর করতে সক্ষম হবে সুতরাং, খুচরা শিল্প, বিশেষত স্বর্ণ ও গহনা শিল্পের দৃষ্টিভঙ্গি সম্পর্কে খুব আশাবাদী, কারণ বড় ক্রেতারা উপমহাদেশ থেকে আসে তিনি বলেন, ভারত, পাকিস্তান, বাংলাদেশ এবং শ্রীলঙ্কা সহ সব দেশের মানুষ “।

সাত গুরু হোল্ডিংস লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক দীপক বাবানী বলেন, আরও বেশি পর্যটক আনতে এবং অর্থনীতিকে জোরদার করতে পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে। “স্থানীয় অর্থনীতির উপর নির্ভরতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে একের পর এক পদক্ষেপ আসছে। এই উদ্যোগ বেসরকারী খাতের ব্যবসায় যেমন খুচরা, খাদ্য ও পানীয়, ছুটির অ্যাপার্টমেন্ট ইত্যাদিকে উত্সাহিত করবে,” তিনি উল্লেখ করেছিলেন।

“এই দীর্ঘমেয়াদী ভিসা দুবাইয়ের জন্য প্রচুর নতুন নতুন পর্যটন কেন্দ্রের উদ্বোধন করবে অনেক লোক শেষ মুহুর্তে সিদ্ধান্ত নেয়, তাই তাদের যদি ভিসা থাকে,

তবে তাদের জন্য সংযুক্ত আরব আমিরাত ভ্রমণ করা আরও সহজ করবে নিরাপদ এবং ভারত এবং চীনের কাছাকাছি – আরও পরিবার এখানেও আসবে। ”

সংযুক্ত আরব আমিরাত বার্ষিক 21 মিলিয়নেরও বেশি পর্যটক গ্রহণ করে এবং এটি নিজেকে একটি শীর্ষস্থানীয় বিশ্ব পর্যটন গন্তব্য হিসাবে প্রতিষ্ঠা করার লক্ষ্য নিয়েছে। প্রায় 25 মিলিয়ন দর্শনার্থী একা ছয় মাসের দীর্ঘ এক্সপোতে আসবেন বলে আশা করা হচ্ছে। সওকালাল ডটকমের সিইও আম্বারীন মুসা বলেছিলেন, এটি অর্থনীতিকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য সরকার সত্যই আগ্রহী।

“এই উদ্যোগের ফলস্বরূপ, সংযুক্ত আরব আমিরাতে পর্যটকদের ব্যয় সময় বাড়বে,” তিনি বলেছিলেন। “পাঁচ বছরের ভিসা অর্থনীতিতে একাধিক গুণ প্রভাব ফেলবে কারণ আরও বেশি পরিদর্শন খরচ এবং ক্রিয়াকলাপ বৃদ্ধি করবে, তাই সামগ্রিকভাবে অর্থনীতিকে সহায়তা করবে I এটি এমন একটি উদ্যোগ যা কেবল পর্যটনকে বাড়িয়ে তুলবে না বরং অনেক বাসিন্দার জীবনমানকে বাড়িয়ে তুলবে যেহেতু তাদের পরিবার এবং বন্ধুবান্ধব তাদের প্রায়শই ঘন ঘন দেখতে পাবে এটি দেশে প্রবাসে দীর্ঘকাল থাকার জন্যও উত্সাহিত করতে পারে, “মুসা আরও যোগ করেন।

লন্ডন ভিত্তিক স্ট্র্যাটেজিক এয়ারো রিসার্চের সিনিয়র বিশ্লেষক সাজ সাজ আহমদ বলেছেন, এত দীর্ঘ সময়ের জন্য এ জাতীয়ভাবে ভিসা দেওয়ার ফলে সংযুক্ত আরব আমিরাতের আবেদন সংখ্যা আরও বাড়বে এবং দেশে ট্র্যাফিক বাড়বে ।

“অনেক দেশগুলির যাদের জটিল আবেদন ফর্মগুলির প্রয়োজন ছিল এখন একাধিকবার পরিদর্শন করা এবং এটি করা আরও সহজ হবে তদুপরি, সমস্ত জাতীয়তার জন্য দেশটি খোলার ফলে সংযুক্ত আরব আমিরাত সরকার নতুন দ্বিপাক্ষিক আলোচনা শুরু করার সম্ভাবনা উন্মুক্ত করে যা নতুন বিমান চলাচলের পথ উন্মুক্ত করতে পারে আমিরাত ও ইতিহাদের জন্য, “তিনি বলেছিলেন।

এবার দুবাইয়ে হা*ম*লা করবে ইরান!

ইরাকে মার্কিন সামিরক স্থাপনায় হাম*লার জেরে যদি পা*ল্টা কোনো হাম*লা হয় তাহলে এবার সংযুক্ত আরব আমিরাতের দুবাই ও ইসরাইলে হা*মলা করবে ইরানের ইসলামিক বিপ্লবী গার্ড বাহিনী (আইআরজিসি)।

আইআরজিসি তাদের টেলিগ্রাম চ্যানেলে এমন হুম*কি দিয়েছে বলে খবর প্রকাশ করেছে ইসরাইলভিত্তিক সংবাদমাধ্যম জেরুজালেম পোস্ট।ইরানের বার্তা সংস্থা তাসনিমকে উদ্ধৃ*ত করে জেরুজালেম পোস্ট জানিয়েছে, মার্কিন সেনাবাহিনী ইরানের ওপর আর কোনো হা*মলা চালালে আইআরজিসি ছাড়াও ইসরাইলের হা*মলা করবে হিজবুল্লাহ।

আইআরজিসি এক বিবৃ*তিতে হুঁশি*য়ারি দিয়েছে। তাতে বলা হয়েছে, অ*পরাধ*মুলক কর্ম*কা8ন্ডে যুক্তরাষ্ট্র থেকে আলাদা করে দেখা হবে না জায়নবাদী ইসরাইলকে।
এতে আরো বলা হয়, আমরা প্র*চ*ণ্ড শয়তান, রক্তপিপাসু ও অহংকারী মার্কিন শাসকদের সত*র্ক করে দিচ্ছি। যদি ইরানের বি*রুদ্ধে আর কোনো আ*গ্রাসন চালানো হয়, তাহলে আরো বে*দনা*ময় ও ক*ঠোর জবাব দেয়া হবে।

এদিকে আইআরজিসে তাদের টেলিগ্রাম চ্যানেলে *সত8র্কতা দিয়ে বলেছে, যদি ইরানের মাটিকে টার্গে*ট করা হয় তাহলে সংযুক্ত আরব আমিরাতের দুবাই এবং ইসলাইলের হাইফাতে হা*ম*লা চালাবে তারা।

আরব আমিরাতের সকল প্রবাসীদের নতুন ভিসা সংশোধন সংক্রাত বিশেষ ঘোষণা !

সংযুক্ত আরব আমিরাতে প্রবেশরত সকল প্রবাসীদের ‘চাকরি খোঁজার’ সাথে সাথে তাদের ভিসার বৈধতার দিকে নজর দেওয়ার জন্য আরব আমিরের পরিচয় পত্র ও নাগরিকত্বের ফেডারেল অথরিটি স*তর্ক বার্তা দিয়েছে ।আরব আমিরাতে ইমেগ্রশন কর্তৃপক্ষ প্রবেশাধিকার এবং বাসস্থানের বিধান আইন অনুযায়ী

তাদের ভিসার মেয়াদ সংশো*ধন করে আইন লঙ্ঘন থেকে বিরত থাকার আহ্বান জানিয়েছে।কর্তৃপক্ষ নিশ্চিত করেছে যে অস্থায়ী ছয় মাস থাকার ভিসার জন্য স্পনসর প্রয়োজন নেই এবং এটি ব্যতিক্রম বা এক্সটেনশন সাপেক্ষে ও নয়।যারা অস্থায়ী ভিসা পেয়েছেন তাদের সকলকে স্পনসর অধীনে তাদের বাসস্থান হস্তান্তর এবং ভিসা রিনিউ করা উচিত অথবা ভিসার মেয়াদ শেষ হওয়ার আগেই দেশ ছেড়ে দেওয়া উচিত তা না হলে জরিমানা অন্তর্ভুক্ত করা হবে এবং এর

ফলে কারা নির্বাসন ও হতে পারে।কর্তৃপক্ষের পররাষ্ট্র বিষয়ক ও বন্দর মহাপরিচালক সৈয়দ রাকান আল রশিদী বলেন, এই ভিসার প্রবর্তন দেশের আইনসম্মত নেতৃত্বের নির্দেশনার কাঠামোর মধ্যেই এসেছে যাতে জনগণ আইনত ভাবে দেশে থাকতে পারে। হিউম্যান রিসোর্সেস অ্যান্ড এমআইরিটিজেশন মন্ত্রণালয়ের সহযোগিতায় ‘চাকরি খোঁজার উদ্যোগ’ তৈরি করা হয়েছিল।আল রশিদী আরও বলেছেন যে চাকরি খোঁজার ভিসার অধীন লঙ্ঘনকারীরাও

রেসিডেন্সি ভিসার লঙ্ঘনকারীদের মতো একই আচরণ করবে। ছয় মাসের ভিসা মেয়াদ শেষ হলে প্রথম দিনের জন্য ১০০ দিরহাম জরিমানা করা হবে, এবং পরবর্তী প্রতি দিনের জন্য ২৫ দিরহাম করে জরিমানা করা হবে। ভিসার আইন মেনে চলার জন্য তিনি সকলের প্রতি আহ্বান জানান যে তারা ভিসার মেয়াদ না বাড়িয়ে চাকরি নিশ্চিত করতে পারবে না।আল রাশিদী উল্লেখ করেছেন যে এই ভিসা থাকা অবস্থায় দেশটিতে থাকতে সক্ষম হয়ে আইনী চাকরি পেতে

পারেন। তিনি নাগরিকদের, বাসিন্দাদের, এবং বিনিয়োগকারীদেরকে এই ভিসাধারী নিয়োগের আগে তাদের স্পনসরশিপের অধীনে স্থানান্তরিত করার বিষয়ে নিশ্চিত করার জন্য আহ্বান জানান, অন্যথায় তারা 50,000 এর জরিমানা ভোগ করবে।তিনি জরিমানা, জেল এবং নির্বাসনের সহিত জড়িত থাকা ব্যক্তিদের নিবিড় অনুসন্ধান এবং প্রসিকিউশন প্রচারণা সংগঠিত করে লঙ্ঘনকারীদের বিরুদ্ধে দৃঢ় পদক্ষেপ নেবেন।

আরব আমিরাতের প্রবাসী বাংলাদেশি হিসেবে স্থায়ী আবাসনের গোল্ডেন ভিসা পেলেন মাহতাবুর রহমান !

প্রবাসী বাংলাদেশি হিসেবে সংযুক্ত আরব আমিরাতের স্থায়ী আবাসনের জন্য প্রথম বারের মত ’গোল্ডেন ভিসা’ পেলেন মোহাম্মদ মাহতাবুর রহমান।
তিনি এনআরবি ব্যাংক লিমিটেডের চেয়ারম্যান, দুবাইয়ে বাংলাদেশ বিজনেস কাউন্সিলের প্রেসিডেন্ট এবং হারামাইন গ্রুপ অব কোম্পানির চেয়ারম্যান ও ব্যবস্থাপণা পরিচালক।

এক বিবৃতিতে হারামাইন গ্রুপ এ তথ্য নিশ্চিত করে বলেন, এটি তাদের জন্য একটি বড় ধরনের সুখবর। এটি ছিল সংযুক্ত আরব আমিরাতে হারামাইন গ্রুপের ৩৮ বছর উদযাপনকালীন সময়। বিশ্বব্যাপী ব্যবসা এবং বাণিজ্যের ব্যাপক প্রসারের সঙ্গে বহুদিন ধরেই সম্পৃক্ত মোহাম্মদ মাহতাবুর রহমান। সুগন্ধি, ব্যাংকিং, স্বাস্থ্যসেবা, শিক্ষা, চা এবং আতিথেয়তার মতো বিভিন্ন ধরনের ব্যবসা-বাণিজ্যে কাজ করছেন এই প্রবাসী বাংলাদেশি।

মধ্যপ্রাচ্যের বৃহত্তম সুগন্ধীর নির্মাতা প্রতিষ্ঠান তার আল হারামাইন পারফিউম গ্রুপ। এছাড়া আল হারামাইন টি কো. লি. এবং আল হারামাইন হসপিটাল প্রাইভেট লিমিটেডও উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রেখেছে। গোল্ডেন ভিসার মতো এই বিশেষ স্বীকৃতি পাওয়ায় আমিরাতের প্রেসিডেন্ট শেখ খলিফা বিন জায়েদ আল নাহিয়ান, ভাইস প্রেসিডেন্ট ও প্রধানমন্ত্রী এবং দুবাইয়ের শাসক শেখ মোহাম্মদ বিন রাশিদ আল মাকতুম, আবুধাবির ক্রাউন প্রিন্স শেখ মোহাম্মদ বিন জায়েদ আল নাহিয়ানকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন মাহতাবুর রহমান।

তিনি বলেন, এই উল্লেখযোগ্য সম্মানিত ব্যক্তিদের নেতৃত্বে আরব আমিরাত শুধু আমিরাতের নাগরিকদের জন্যই নয় বরং দুইশর বেশি দেশের নাগরিকদের কাছে সৌভাগ্যের একটি দেশে পরিণত হয়েছে। এই দেশকে অনেক প্রবাসীই নিজেদের দেশ মনে করেন। তিনি উল্লেখ করে বলেন, আমি এই গোল্ড কার্ডটি পাওয়া প্রথম বাংলাদেশি হিসেবে গর্বিত এবং আমার দেশের জন্য সম্মানের। এ ধরনের সম্মান আমাদের আমিরাতে অর্থনীতি প্রবৃদ্ধিতে সহায়তা করবে এবং বিনিয়োগের ক্ষেত্রে গুরুত্ব পূর্ণ ভূমিকা রাখবে। তিনি আরব আমিরত সরকারকে এই অর্থনৈতিক সুযোগ ও সম্মান প্রদানের জন্য কৃতজ্ঞতা পোষণ করেন।

মাহতাবুর রহমান নাসির ব্যাক্তিগত ভাবে দেশে ও দেশের বাইরে বহু খ্যাতি প্রতিষ্ঠানের সাথে জড়িত রয়েছেন। তিনি বাংলাদেশের সিলেট জেলার বিয়ানীবাজার উপজেলার চারখাই গ্রামের অধিবাসী। সম্প্রতি তিনি সিআইপি (এনআরবি) এসোসিয়েশন এর সভাপতি নির্বাচিত হয়েছেন।

আরব আমিরাতে ৫ বছরের ভিজিট ভিসা চালুর ঘোষণা

বর্তমান বিশ্বে পর্যটন রাজধানী খ্যাত সংযুক্ত আরব আমিরাতে সব দেশের নাগরিকদের জন্য চালু হচ্ছে ৫ বছর মেয়াদি ভ্রমণ বা পর্যটন ভিসা।ভ্রমণ কারীদের জন্য পাঁচ বছরের পর্যটন ভিসা দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন সংযুক্ত আরব আমিরাতের প্রধানমন্ত্রী ও উপরাষ্ট্রপতি শেখ মোহাম্মদ বিন রাশেদ আল মাকতুম। সোমবার অফিসিয়াল টুইট বার্তার মাধ্যমে তিনি এ ঘোষণা দেন।শেখ মোহাম্মদ টুইটে লিখেন, আজ থেকে আমিরাতে পর্যটন ভিসার ক্ষেত্রে পরিবর্তন আনা

হচ্ছে। এখন থেকে আমিরাতে পর্যটন ভিসার মেয়াদ পাঁচ বছর করা হলো। আর তা বিশ্বের সব দেশের পর্যটকদের বেলায় প্রযোজ্য হবে।তিনি আরও উল্লেখ
করেন, আমাদের বার্ষিক পর্যটক সংখ্যা ২১ মিলিয়ন ছাড়িয়েছে। পর্যটন ভিসায় নতুন ঘোষণার মাধ্যমে আন্তর্জাতিক পর্যটন কেন্দ্রের অন্যতম একটি স্থানে পরিণত হবে আরব আমিরাত।উল্লেখ্য, দুবাইতে ভিজিট/ টুরিস্ট/ ভ্রমণ ভিসা মানে কেবল মাত্র ভ্রমণ ভিসা! এ ধরনের ভিসা নিয়ে কাজ করা অবৈধ!

যুক্তরাষ্ট্রের পক্ষ নিয়ে বিবৃতি সৌদি ও আরব আমিরাতের

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের নির্দেশে বি’মা’ন হা’মলা চালিয়ে ইরানের শী’র্ষস্থানীয় জেনারেল কাসেম সোলাইমানিকে হ’ত্যা’’র ঘটনায় বিশ্বব্যাপী নি*ন্দার ঝ*ড় বইছে।এমন পরিস্থিতিতে যুক্তরাষ্ট্রের নি’ন্দা করা তো দূরের কথা, উ’ল্টো ইরাকের রাজধানী বাগদাদে অবস্থিত মার্কিন দূতাবাসে হা’মলার

নি’ন্দা জানিয়েছে সংযুক্ত আরব আমিরাত।আমিরাত মনে করে- মার্কিন দূতাবাসে হা’মলার ঘটনাটি কূটনৈতিক নীতি এবং নিয়মাবলির সু’স্পষ্ট ল’ঙ্ঘন।সংযুক্ত আরব আমিরাতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে এক বি’বৃতিতে এমনটাই জানানো হয়। এতে আরও বলা হয়, মার্কিন দূতাবাসে হা’মলার ঘটনাটি আন্তর্জাতিক আইনের চরম লঙ্ঘন।এর জেরে কূ’টনৈতিক সম্পর্ক এবং মধ্যপ্রাচ্যে স্থি’তিশীলতা নষ্ট হওয়ার শ’ঙ্কা তৈরি হচ্ছে।এর আগে একই কাণ্ড

ঘটি’য়েছে আরব আমিরাতের মিত্র সৌদি আরব। গত শুক্রবার সৌদি যুবরাজ মুহাম্মদ বিন সালমান টেলিফোনে মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেওর সঙ্গে কথা বলেছেন। বলেন, ইরাকের সা’ম্প্রতিক উন্নয়ন নিয়ে।অথচ, শুক্রবার মার্কিন বিমান হা’মলায় সোলাইমানি মা’’’রা যাওয়ার ব্যাপারে তাদের কোনো কথা হয়নি। খালিজ টাইমস

সংযুক্ত আরব আমিরাতের জন্য সুখবর ভিজিট ভিসার মেয়াদ বাড়াল ৫ বছর পর্যন্ত !

হাইনেস শেখ মোহাম্মদ বিন রশিদ আল মাকতুম, সংযুক্ত আরব আমিরাতের সহ-রাষ্ট্রপতি এবং প্রধানমন্ত্রী এবং দুবাইয়ের রুলার সোমবার ঘোষণা করেছেন যে সংযুক্ত আরব আমিরাতের পর্যটন ভিসা এখন পাঁচ বছরের জন্য প্রদান করা হবে।

আজ, আমরা পরিবর্তনটি পরিবর্তন করব দেশে পর্যটন ভিসা দেওয়ার ব্যবস্থা, পর্যটন ভিসার মেয়াদ পাঁচ বছরের জন্য, একাধিক ব্যবহারের জন্য, সকল দেশের নাগরিকদের জন্য, শেখ মোহাম্মদ টুইট করেছেন। আমরা বার্ষিক ২১ মিলিয়নেরও বেশি পর্যটক পেয়েছি এবং আমরা সংযুক্ত আরব আমিরাত হিসাবে প্রতিষ্ঠা করতে চাই একটি আন্তর্জাতিক পর্যটন কেন্দ্র , ।

এছাড়া গ্রীষ্মের সময় সংযুক্ত আরব আমিরাতে ভ্রমণকারী পর্যটকদের ১৮ বছর বা তার চেয়ে কম বয়সীদের জন্য ভিসা ফি প্রদানের প্রয়োজন হবে না , ফেডারাল কর্তৃপক্ষের পরিচয় ও নাগরিকত্ব ঘোষণা করেছে। ফি ছাড়টি প্রতিবছর 15 জুলাই থেকে 15 সেপ্টেম্বরের মধ্যে প্রযোজ্য হবে এবং আশা করা হচ্ছে । এর আগে প্রবাসীদের জন্য পাঁচ থেকে দশ বছর মেয়াদি ভিসা চালু  করছে  সংযুক্ত আরব আমিরাত সরকার ।  খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, সংযুক্ত আরব আমিরাতের দ্য ফেডারেল অথরিটি ফর আইডেন্টিটি অ্যান্ড সিটিজেনশিপ (এফএআইসি)-এর উদ্যোগে এই ভিসা দেওয়ার কাজও শুরু করা হয়েছে। বাংলাদেশি কমিউনিটিতে বেশ উত্তেজনা বিরাজ করছে এটি নিয়ে।

এদিকে স্থানীয় গণমাধ্যমের বরাতে জানা গেছে, দেশটিতে শতভাগ মালিকানাধীন বিদেশি কোম্পানি, বিনিয়োগকারী, বিজ্ঞানী, চিকিৎসক, প্রকৌশলী ও উদ্যোক্তাদের জন্য ১০ বছরের ভিসা প্রদান করার ব্যাপারে কথা চলছে। এছাড়াও উচ্চশিক্ষার জন্য আগ্রহীদের জন্যেও এই ভিসা দেওয়া হতে পারে।প্রবাসী বাংলাদেশিদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, ২০১২ সাল থেকে বন্ধ রয়েছে সংযুক্ত আরব আমিরাতের শ্রমবাজার। একারণে ভিসা সংক্রান্ত যে কোনও খবর

পেলেই নড়েচড়ে বসেন প্রবাসীরা। এখন নতুন করে সেই পালে হাওয়া লেগেছে, কারা পেতে পারেন পাঁচ থেকে দশ বছরের ভিসা- এই আলোচনাই এখন সবার মুখে মুখে।জানা গেছে, পাঁচ থেকে দশ বছরের ভিসা দেওয়ার মাধ্যমে দেশটিতে বসবাসের সহজ সুযোগ যারা পাবেন তাদের দ্বারা আরব আমিরাতই বেশি লাভবান হবেন। এই ভিসা সংক্রান্ত আইনে প্রথমে ব্যবসায়ীদের কথা উল্লেখ করা হয়েছে। এসব ব্যক্তি দেশটির অর্থনৈতিক সমৃদ্ধির জন্যে ভূমিকা রাখবেন।

এদের মধ্যে ব্যবসায় শতভাগ বিনিয়োগ করা ব্যক্তিদের ক্ষেত্রে পাঁচ থেকে দশ বছরের ভিসা প্রদানের নিয়ম করা হয়। যেমন- প্রচলিত ধারায় আরব আমিরাতে ক্ষুদ্র বা মাঝারি ধরনের ব্যবসাতে কোনও প্রবাসী শতভাগ বিনিয়োগ রাখতে পারেন না। এদের কোনও না কোনোভাবে স্থানীয় ব্যক্তি বা স্পন্সরদের মাধ্যমে ব্যবসার লাইসেন্স করতে হয়। কেবল দুবাই ফ্রি জোনে এককভাবে ব্যবসায় বিনিয়োগ করা যায়। এদের মূলধনও ছাড়িয়ে যায় মিলিয়ন দিরহামের ওপর। এক্ষেত্রে ওই ভিসার জন্যে আবেদনকারী সহজে চিহ্নিত করা সম্ভব।

অন্যদিকে, আমিরাতে অধ্যয়নে আসা ছাত্র-ছাত্রীদের পাঁচ থেকে দশ বছরের ভিসার আওতায় রাখার খবরও প্রবাসীদের আলোচনায় স্থান পাচ্ছে। তবে জানা গেছে, এই ভিসার আওতায় সাধারণ শিক্ষার্থী নয় বরং আমিরাতে উচ্চশিক্ষার জন্যে আসা শিক্ষার্থীরাই এই সুযোগ পাবে। এক্ষেত্রে যেসব শিক্ষার্থীদের দীর্ঘমেয়াদি কোর্স রয়েছে তারাই প্রাধান্য পাচ্ছেন।  সূত্র : খালিজ টাইমস