গু*লি করে হ’ত্যার পর বাংলাদেশির লা’শ ফেরত দিলো বিএসএফ

চুয়াডাঙ্গা সদররের নিমতলা সীমান্তে বিএসএফের গু**লিতে নি**হত গরু ব্যবসায়ী নাজিম উদ্দীনের (৩৪) মর**দেহ ভারতীয় হাসপাতালে ময়না*তদন্ত শেষে ফেরত দেয়া হয়েছে। শুক্রবার রাত ৯টার দিকে দামুড়হুদা উপজেলার দর্শনা চেকপোস্ট সীমান্তের ৭৬ নম্বর মেইন পিলারের কাছে পতাকা বৈঠকের মাধ্যমে তার মরদেহ বিজিবির কাছে ফেরত দেয় বিএসএফ।

পতাকা বৈঠকে বাংলাদেশের পক্ষে উপস্থিত ছিলেন ধোপাখালী বিজিবি ক্যাম্পের কোম্পানি কমান্ডার রেজাউল করিম,জীবননগর থানা পুলিশের ওসি (তদন্ত) ফেরদৌস ওয়াহিদসহ ১০ জন এবং ভারতের পক্ষে উপস্থিত ছিলেন গেদে বিএসএফ ক্যাম্পের ইনচার্জ এসি সৌরভ সামন্তসহ ১০ জন।জানা যায়, গত বুধবার গভীর রাতে নাজিম উদ্দীনসহ ৭/৮ জন গরু ব্যবসায়ী নিমতলা সীমান্তের ৭৪ নম্বর মেইন পিলারের কাছ দিয়ে গরু আনার উদ্দেশ্যে ভারতের অভ্যন্তরে প্রবেশ করে। এ সময় ভারতের গেদে বাগানপাড়া ক্যাম্পের বিএসএফ সদস্যরা তাদের লক্ষ্য করে গু**লি ছোড়ে।

এতে নাজিম উদ্দীন ঘটনাস্থলেই নি***হত হন। অন্যরা পালিয়ে যায়। রাতেই বিএসএফ তার মর**দেহ নিয়ে কৃষ্ণনগর থানা পুলিশের হাতে তুলে দেয়। ওইদিনই কৃষ্ণনগর হাসপাতালে তার মর*দেহের ময়নতদন্ত সম্পন্ন হয়।বৃহস্পতিবার বিকেলে নাজিম উদ্দীনের মরদেহ ফেরত চেয়ে ঘটনার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে বিজিবি বিএসএফের কাছে চিঠি দেয়। এ ঘটনার পর শুক্রবার সন্ধ্যায় সীমান্তে পতাকা বৈঠকের মাধ্যমে তার ম*র*দেহ বিজিবির কাছে ফেরত দেয় বিএসএফ।

ধোপাখালী বিজিবি ক্যাম্পের কোম্পানি কমান্ডার রেজাউল করিম ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

‘ঘুমিয়ে পড়েন’ চাঁদের বদলে ওই খেলনাটা নিয়ে খেলেনঃ পাকিস্তানি মন্ত্রী

গত কয়েক বছরের পরিশ্রম, স্বপ্ন, আশা, পরিকল্পনা ও গবেষণায় ইতি টেনে দিল আশঙ্কার ১৫ মিনিট। চন্দ্রযান-১ এর পর দ্বিতীয়বারের মতো চন্দ্রযান-২ চাঁদে পৌঁছানোর মিশনে ব্যর্থ হলো ভারত। মাথা নিচু করে বসে রয়েছেন চন্দ্রযান ২-এর সঙ্গে যুক্ত বিজ্ঞানীরা।চন্দ্রযান-২ প্রত্যাশিত সাফল্য না পাওয়ায় খুশি হয়েছে প্রতিবেশি দেশ পাকিস্তান। পাকিস্তানি মন্ত্রী ফাওয়াদ খান টুইটে লিখেছেন,

‘অঅঅ… যে কাজটা পারো না, সেটা করারই দরকার নেই। প্রিয় ‘এন্ডিয়া’। ইন্ডিয়ার বানান বদলে ‘এন্ডিয়া’ লিখে মন্ত্রী বুঝিয়ে দিতে চেয়েছেন, ভারতের মিশন শেষ হয়ে গিয়েছে।টুইটটি পোস্ট হতেই এই পাকিস্তানি বিজ্ঞান মন্ত্রীর বিরু*দ্ধে সরব হন ভারতের নেটিজেনরা। একজন কটাক্ষের সুরেই লেখেন, মজার বিষয় হল, চন্দ্রযান ২ ফাওয়াদ চৌধুরিকে সারারাত জাগিয়ে রেখেছিল।

ফাওয়াদ চোধুরির টুইটে ভারতীয়রা অনেক সমালোচনা করেন, এক ভারতীয় নেটিজেনের টুইটে প্রতি*ক্রিয়া দিয়েছেন, ঘুমিয়ে পড়, চাঁদের বদলে ওই খেলনাটা মুম্বাইয়ে নেমেছে।আবার অন্য এক টুইটে লিখেছেন, ভারতীয়রা অ8দ্ভুত প্রতি*ক্রিয়া দিচ্ছে। যেন আমার জন্য মিশন ব্য*র্থ হয়েছে। আমি বলেছিলাম অকারণে ৯০০ কোটি টাকা নষ্ট করতে? এবার মাথা ঠাণ্ডা করে ঘুমিয়ে পড়ুন।

এখানেই থামেননি তিনি। ইসরো তথা দেশবাসীর উদ্দেশে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির ভাষণ নিয়েও বক্তব্য রেখেছেন। বলেছেন, মোদির কথা শুনে মনে হচ্ছে, তিনি রাজনীতিবিদ নন, মহাকাশচারী। লোকসভায় মোদিকে প্রশ্ন করা উচিত, কেন গরিব দেশে ৯০০ কোটি টাকা এভাবে নষ্ট করা হল।

পাকিস্তান কাশ্মীরকে কখনও ছাড়বে না, যু*দ্ধের হুঁশি*য়ারি পাক সেনাপ্রধানের

৩৭০ ধারা বাতিলের পর থেকে ভারতকে উ*ত্যক্ত করার কোন রকম সুযোগ ন*ষ্ট করতে চাইছে না পাকিস্তান। জম্মু কাশ্মীরের বিশেষ তকমা তুলে নেওয়ার পর প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর এই সিদ্ধা*ন্তের বি*রুদ্ধে সুর বারবারই চড়িয়েছে পাকিস্তান৷ আর এবার পাকিস্তানের সেনাপ্রধান জেনারেল কামার জাভেদ বাজওয়া ভারতকে হু*মকি দিলেন যু*দ্ধের।

এই মুহূর্তে কাশ্মীরে এক নৃ*শংসতার রাজনীতি চলছে৷ তার সঙ্গে হিন্দুত্ববাদের শিকার হচ্ছে কাশ্মীর। কাশ্মীর পাকিস্তানের একটি বিষয়। ভারত সরকার কাশ্মীর নিয়ে যে সি*দ্ধান্ত নিয়েছে, তা আমরা একটা চ্যা*লেঞ্জ হিসেবে নিয়েছি। পাকিস্তান কখনও কাশ্মীরকে একা ছাড়বে না। আমাদের সেনাবাহিনী নিজেদের শেষ নিঃশ্বাস এবং শেষ র*ক্তবিন্দু পর্যন্ত কাশ্মীরের প্রতি কর্তব্য করে যাবে৷ এমনই ঘোষণা পাক সেনাপ্রধানের৷ এ খবর দিয়েছে ভারতীয় গণমাধ্যম কলকাতা২৪।

পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানও কাশ্মীর থেকে ৩৭০ ধারা তুলে নেওয়ার পর থেকে পরমাণু হাতিয়ার নিয়ে ভারতকে হু*মকি দিয়েছিলেন৷ আসন্ন যু*দ্ধে তারা যে তা ব্যবহার করতেও পারে তাও জানিয়েছিলেন। কিন্তু পরে পরমাণু হাতিয়ার নিয়ে সুর নরম করলেও কোনভাবেই ভারতকে উ*ত্যক্ত করার এবং জ*ম্মু কাশ্মীরে শান্তি বি*ঘ্নিত করার সুযোগ ছাড়তে চাইছে না পাকিস্তান৷ পাক অধিকৃত কাশ্মীর যে তারা নিজেদের দখলে রাখতেও ম*রিয়া তা বারেবারে হাবেভাবে বুঝিয়েও দিয়েছে।

সীমান্তে ২ হাজার সেনা জড়ো করেছে পাকিস্তান, তী’ব্র উ’ত্তেজনা

জম্মু-কাশ্মীর সঙ্কট ঘিরে প্রতিবেশি ভারতের সঙ্গে তীব্র উত্তে**জনার মাঝে পাক অধিকৃত কাশ্মীরের নিয়ন্ত্রণ রেখার একেবারে কাছে অন্তত এক ব্রিগেড সেনা সদস্য জমায়েত করেছে পাকিস্তান সেনাবাহিনী।পাক অধিকৃত কাশ্মীর সীমান্তের বাঘ এবং কোটলি সেক্টর ঘেঁষে প্রায় ২ হাজার পাক সেনাসদস্যের উপস্থিতিকে গভীরভাবে পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছে বলে জানিয়েছে ভারতীয় সেনাবাহিনী।

ভারতীয় সেনাবাহিনী বলছে, একটি শান্তিপূর্ণ অবস্থান থেকে ওই সেনাদের সীমান্তে নিয়ে এসেছে পাকিস্তান সেনাবাহিনী। এই মুহূর্তে তারা নিয়ন্ত্রণ রেখার ৩০ কিলোমিটার এলাকায় অবস্থান করছে।দেশটির বার্তাসংস্থা এএনআইকে ভারতীয় সেনাবাহিনীর সূত্রগুলো বলছে, বর্তমানে এই সেনাদের আ**ক্রমণাত্মক ভঙ্গিতে মোতায়েন করেনি পাক সেনাবাহিনী। তবে ভারতীয় সেনাবাহিনী পাক সেনাদের গতিবিধি নিবিড়ভাবে পর্যবেক্ষণ করছে।

ভারতীয় সেনাবাহিনীর ওই সূত্র বলছে, সীমান্তের পাকিস্তান সেনাবাহিনী সেনাসদস্যদের এমন এক সময় জড়া করেছে; যখন পাকিস্তানে লস্কর-ই-তৈয়বা এবং জয়েশ-ই-মোহাম্মদের মতো জঙ্গিগোষ্ঠীগুলোতে স্থানীয় এবং আফগান তরুণদের দলে টানার কাজ চলছে।সীমান্তে পাকিস্তান সেনাবাহিনী যে সেনাসদস্যদের নিয়ে এসেছে তাদের পরিমাণ প্রায় এক ব্রিগেডের মতো। এই সদস্যদের সংখ্যা ২ হাজারের বেশি হতে পারে।

ভারতের প্রভাবশালী দৈনিক টাইমস অব ইন্ডিয়া বলছে, গত ৫ আগস্ট ভারত নিয়ন্ত্রিত জম্মু-কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা বাতিল হয়ে যাওয়ার পর কাশ্মীর সীমান্তে শতাধিক এসএসজি কমান্ডোমোতায়েন করেছে। ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনীর গোলা বর্ষণে অন্তত ১০ পাকিস্তানি এসএসজি কমান্ডো নিহত হয়েছেন। ভারতীয় সেনাবাহিনীরও বেশ কয়েকজন সদস্য পাকিস্তানের গুলিতে প্রাণ হারিয়েছেন।

ফের উ’ত্তেজনা, ভারতের ঢুকে গেছে চীনের সেনাবাহিনী!

সম্প্রতি ভারতীয় সংবিধানের ৩৭০ ধারা বাতিল করে জম্মু ও কাশ্মীরের বিশেষ সুবিধা তুলে নিয়েছে ভারত সরকার। এ নিয়ে ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে উ’ত্তেজনা বাড়ছে ক্রমশ।

এদিকে ভারত-পাকিস্তান উ*ত্তেজনার মধ্যে নতুন মাত্রা যোগ করল চীন। ভারতের অরুণাচল প্রদেশের সীমান্ত পেরিয়ে ভারতে ঢুকে এসেছে চিনের সেনা। এমনই চাঞ্চল্যকর খবর মিলেছে। ইণ্ডিয়া টিভিতে প্রকাশিত প্রতিবেদন অনুযায়ী চিনা সেনা ফের একবার অরুণাচল প্রদেশের আনজয় জেলার সীমান্ত দিয়ে অনুপ্রবেশ করেছে।

ভারতীয় গণমাধ্যম কলকাতা ২৪ এর একটি প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ভারতে প্রবেশের জন্য দইমরু নাল্লাহ এলাকায় একটি কাঠের ব্রিজও বানিয়ে ফেলেছে চিনা সেনাবাহিনী। এই ঘটনা প্রকাশ করে এই ভিডিও পোস্ট করেছেন স্থানীয় এক বিজেপি কর্মী।

ভিডিওটি প্রকাশ করেছেন বিজেপি সাংসদ তাপির গাও। অগাষ্ট মাসের শুরুর দিকে এই ভিডিওটি তোলা হয় বলে খবর।

বিজেপি সাংসদ জানিয়েছেন, এক মাস আগে ব্রিজটি বানানো হয়েছে। চিনা সেনারাই এই ব্রিজ নির্মাণ করে। তাপির গাওয়ের মতে অরুণাচল প্রদেশ খুবই স্পর্শকাতর এলাকা। এখানকার পার্বত্য অঞ্চলে একাধিক অনুপ্রবেশের রাস্তা রয়েছে। যা নিয়ে সতর্ক হওয়া প্রয়োজন কেন্দ্রের।

বিজেপি সাংসদের দাবি ওই ব্রিজের চারপাশে বুটের দাগ দেখতে পাওয়া গিয়েছে। স্থানীয় বাসিন্দারাই এই খবর দিয়েছেন বলে জানিয়েছেন তিনি। যদি এই খবর সত্যি হয়, তবে ভারতের নিরাপত্তার ক্ষেত্রে তা রীতিমত উদ্বেগের বলে জানিয়েছেন এই বিজেপি সাংসদ।

ইন্ডিয়া টিভিকে দেওয়া এক সাক্ষাতকারে তাপির গাও বলেন খুব ভালো করে দেখলেই বোঝা যাবে ব্রিজটি সদ্য নির্মাণ করা হয়েছে। কাঠের হলেও, ব্রিজটি যথেষ্ট মজবুত। স্থানীয় প্রশাসন তো বটেই, কেন্দ্রের উচিত এই বিষয়ে কড়া ব্যবস্থা নেওয়া।

উল্লেখ্য, অরুণাচল প্রদেশের আনজয় জেলার সানগালাম গ্রামটি চিন সীমান্তের খুব কাছে অবস্থিত৷ রীতিমত স্পর্শকাতর এলাকা হিসেবে এটিকে চিহ্নিত করেছে ভারতীয় সেনা৷ চিন সীমান্ত থেকে এটি মাত্র ২০০ কিমি দূরে অবস্থিত৷

কাশ্মীর ইস্যুতে পাকিস্তানের পাশে শক্তিশালী দেশগুলো

বর্তমান গোটা বিশ্বের বেশ কিছু আ’লোচিত ইস্যুর মধ্যে ভারতের কেন্দ্র শাসিত অঞ্চল জম্মু-কাশ্মীরের উদ্বেগজনক পরিস্থিতি অন্যতম।গত ৫ আগস্ট জম্মু ও কাশ্মীরকে স্বায়ত্তশাসনের বিশেষ ম’র্যাদা দেওয়া ভারতীয় সংবিধানের ৩৭০ ধারাটি বাতিল করেছে দেশটির সরকার।

মু’সলিম অধ্যুষিত রাজ্যটির বিশেষ সুবিধা দেওয়া সাংবিধানিক আইনটি বাতিল করার পর নড়েচড়ে বসেছে বিশ্ব মোড়লরা।

১৯৪৭ সাল থেকেই কাশ্মীর নিজেদের অংশ হওয়া উচিত মনে করা পাকিস্তান। মোদি সরকারের এমন পদক্ষেপের পর ভারতের সঙ্গে সকল ধরনের কূটনৈতিক ও বানিজ্যিক স’ম্পর্ক ছিন্ন করেছে দেশটি।অন্যদিকে ইম’রান খানের পাকিস্তানকে আন্তর্জাতিক মহলে একঘরে করে ফেলতে আঁটসাঁট বেধে নেমেছে মোদি সরকারও।

ভারতের অভ্যন্তরীণ কাশ্মীর ইস্যুতে নাক গলাচ্ছে পাকিস্তান ও সন্ত্রাসবাদে ম’দদ দিচ্ছে ইম’রান সরকার। এই দুই অ’ভিযোগে আন্তর্জাতিক মহলে পাকিস্তানকে কোনঠাসা করতে চাচ্ছে তারা।

অন্যদিকে পাকিস্তানের অ’ভিযোগ, কাশ্মীরের মানুষদের উপর গণহ’ত্যা চালাবে বিজেপি সরকার। শুধু তাই নয়, কাম্মীর ইস্যুকে কেন্দ্র করে যু’দ্ধাবস্থাও তৈরি করতে পারে ভারত। আর যু’দ্ধের ফল যে ভয়াবহ হবে সেই হুঁশিয়ারি দিয়ে শক্তিধর রাষ্ট্রগুলোকে সতর্ক করে পাক প্রধানমন্ত্রী ইম’রান খান বলেছেন,

পারমাণবিক যু’দ্ধের ফলাফল হবে ভয়ানক। তা সমগ্র বিশ্বে ছড়িয়ে পড়বে। শক্তিধর রাষ্ট্রগুলোও রেহাই পাবে না। শক্তিধর রাষ্ট্রগুলোর যথেষ্ট দায়িত্ব রয়েছে…তারা আমাদের সম’র্থন করুক বা না করুক, পাকিস্তান শেষ পর্যন্ত লড়ে যাবে।’

দুই দেশের মধ্যে এমন উত্তে’জনাপূর্ণ এক অবস্থায় বিশ্ব মোড়লরাও সরাসরি কিংবা আকার ইঙ্গিতে নিজেদের অবস্থান পরিষ্কার করছেন।

কাশ্মীর নিয়ে চীন, আমেরিকা ও রাশিয়ার অবস্থান: চলতি মাসের শুরুর দিকে ভারত নিয়ন্ত্রিত কাশ্মীর সংকট নিয়ে যখন ভারত-পাকিস্তানের মধ্যে উত্তে’জনা চরম আকার ধারণ করে তখন থেকেই চীন পাকিস্তানের প্রতি সম’র্থন দিয়ে আসছে। এ ছাড়া, জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদে যে রুদ্ধদ্বার বৈঠক হয়েছে সেখানেও সম’র্থন অব্যাহত রেখেছে বেইজিং।

কাশ্মীর ইস্যুতে পাকিস্তানকে নিয়ে চীনা সাম’রিক ভাইস-প্রেসিডেন্ট বলেন, পাকিস্তান হচ্ছে সময়ের পরিক্রমায় উত্তীর্ণ ও পরীক্ষিত বন্ধু।

সেই স’ম্পর্ক থেকেই ভারত-পাকিস্তানের মধ্যে বিরাজমান এই উদ্বেগজনক অবস্থার মধ্যেই চীনের সঙ্গে একটি সমঝোতা স্মা’রক স্বাক্ষরিত হয়েছে পাকিস্তানের। এর আওতায় চীন পাকিস্তানকে সাম’রিক দিক দিয়ে আরও বেশি সক্ষম করে তোলার জন্য সহযোগিতা করবে।

কাশ্মীর ইস্যু নিয়ে চীন নিজেদের অবস্থান পরিষ্কার করলেও এই ইস্যুতে নিরপেক্ষ অবস্থানেই থাকতে চায় আমেরিকা।

চলতি মাসের শুরুতে কাশ্মীর সংকট সমাধানে মধ্যস্থতার প্রস্তাব দিলেও ফ্রান্সে জি-৭ সম্মেলনে ভারতের প্রধানমন্ত্রী মোদির সঙ্গে বৈঠকের পর সেই সিদ্ধান্ত থেকে সড়ে এসেছেন মা’র্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। কাশ্মীর সংকট ভারত-পাকিস্তান দুই দেশের ইতিবাচক পদক্ষেপেই নিরসন হবে বলে মনে করে, মধ্যস্থতার সিদ্ধান্ত থেকে সড়ে এসেছেন তিনি।

অন্যদিকে কাশ্মীর সংকট সমাধানে জাতিসংঘের চার্টার ও রেজুলেশন অনুসরণের আহ্বান জানিয়েছে পরমাণু শক্তিধর দেশ রাশিয়া।

কাশ্মীর সংকট নিয়ে রাশিয়ার এমন আহ্বান ও বক্তব্যে অ’বাক হয়েছে মোদি সরকার। এর কারণ ভারতের পুরনো বন্ধু রাশিয়া। কাশ্মীর ইস্যুতে ভারতের অবস্থান বেশ ভালোই জানা রাশিয়ার।

তারপরও কাশ্মীর সংকট সমাধানে জাতিসংঘ চার্টার ও রেজুলেশন অনুসারে পাকিস্তানের সঙ্গে সমঝোতা করতে রাশিয়া আশা ব্যক্ত করায় তা ভারতকে বিস্মিত করেছে।

ভারতের ধারণা ছিল, কাশ্মীর ইস্যুতে বরাবরের মতোই অবস্থানে অনড় থাকবে রাশিয়া। ভারতের পক্ষে দৃঢ় সম’র্থন জানাবে তারা। তবে ভারতকে চ’মকে দিয়েই জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদ এক অনানুষ্ঠানিক বৈঠকে পাকিস্তানের পক্ষ নিয়েছে দেশটি।

কাশ্মীর ইস্যুতে ভারতকে সম’র্থন না দেয়ার ইঙ্গিত আগেই দিয়ে রেখেছিল রাশিয়া। সম্প্রতি পাকিস্তানে পররাষ্ট্রমন্ত্রী শাহ মেহমুদ কোরেশির সঙ্গে আলোচনায় রুশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই ল্যাভরভ বলেছিলেন, ভারত-পাকিস্তানের বিরোধ সমাধানে দ্বিপক্ষীয় রাজনৈতিক ও কূটনৈতিক উপায়ের চেয়ে কোনও বিকল্প নেই।

কাশ্মীর নিয়ে আরব দেশগুলোর অবস্থান: ভারত-পাকিস্তান উভয় দেশের সঙ্গে স’ম্পর্ক রক্ষা করায় কাশ্মীর নিয়ে সৌদি আরবের অবস্থান এখনও স্পষ্ট নয়। কাশ্মীর ইস্যুতে সৌদি আরব এখন পর্যন্ত সরাসরি পাকিস্তানের পক্ষাবলম্বন না করলে ভারতকেও সম’র্থন জানায়নি।

তবে গত ৫ আগস্ট নরেন্দ্র মোদির সরকার কাশ্মীরের বিশেষ ম’র্যাদা বাতিলের পর সৌদি যুবরাজ মোহাম্মাদ বিন সালমানের সঙ্গে প্রায় তিনবার ফোনালাপে কথা বলেছেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইম’রান খান।

শুরু থেকেই কাশ্মীরি ইস্যু নিয়ে কোনো আনুষ্ঠানিক মতামত না জানালেও ভারত-

পাকিস্তান উভয় পক্ষকে সহনশীলতার উপদেশ দিয়েছে সৌদি আরব।

তবে এইদিক থেকে ব্যতিক্রম মধ্যপ্রাচ্যের দেশ সংযুক্ত আরব আমিরাত। জম্মু-কাশ্মীরের সাংবিধানিক ম’র্যাদা বাতিল এবং রাজ্য দুটিকে কেন্দ্র শাসিত অঞ্চলে ভাগ করার যে সিদ্ধান্ত ভারত সরকার নিয়েছে, তাতে সম’র্থন জানিয়েছে আরব আমিরাত।

ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি সংযুক্ত আরব আমিরাতে গেলে সেখানে তাকে উষ্ণ সংবর্ধনা দেওয়া হয়েছে। শুধু তাই নয়, সে দেশের সর্বোচ্চ বেসাম’রিক সম্মাননা ‘জায়েদ মেডাল’ও দেওয়া হয়েছে তাকে। এছাড়াও আবুধাবিকে নরেন্দ্র মোদির ‘দ্বিতীয় বাসস্থান’ হিসেবেও ঘোষণা করা হয়েছে।

কাশ্মীর নিয়ে পাকিস্তানের পক্ষে তুরস্ক ও মালয়েশিয়া: এদিকে মধ্যপ্রাচ্যের দেশ সংযুক্ত আরব আমিরাত ভারতকে সম’র্থন জানালেও মু’সলিম বিশ্বের অন্যতম প্রভাবশালী দুই দেশ তুরস্ক ও মালয়েশিয়া এর বিরোধীতা করেছে।

সোমবার ভারত সরকার কাশ্মীরের বিশেষ ম’র্যাদা (স্বায়ত্বশাসন) বাতিল করার ঘটনায় উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন কাশ্মীর ইস্যুতে পাকিস্তানের পক্ষে অবস্থান নেওয়া মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রী মাহাথির মোহাম্ম’দ।

মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রী ড. মাহাথির ইম’রান খানকে বলেন, তিনি জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের অধিবেশনের জন্য অ’পেক্ষা করছেন। এ অধিবেশনের ফাঁকে তিনি ইম’রান খানের সঙ্গে একটি বৈঠকে মিলিত হয়ে এ ব্যাপারে বিস্তারিত আলোচনা করবেন বলে জানিয়েছেন।

কাশ্মীর পরিস্থিতির বিষয়ে তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়্যিপ এরদোগানকেও অবহিত করেছেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইম’রান খান। তুরস্কের প্রেসিডেন্ট এরদোগান কাশ্মীরের পরিস্থিতি নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন।

জম্মু-কাশ্মীর নিয়ে চলামান উত্তে’জনার মধ্যে পাকিস্তানকে সম’র্থন জানিয়েছেন তুরস্কের প্রেসিডেন্ট এরদোগান। এরপর পাকিস্তানের পক্ষ থেকে এরদোগানকে ধন্যবাদ জানানো হয়।

পাকিস্তানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী শাহ মাহমুদ কোরেশি তার তুরস্কের সমকক্ষ মেভলুত কাভুসগলুর সঙ্গে টেলিফোনে প্রেসিডেন্ট এরদোগানকে ধন্যবাদ জানান।

তিনি বলেন, আম’রা প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়্যিপ এরদোগানকে ধন্যবাদ জানাচ্ছি ভারত অধিকৃত নিরস্ত্র জম্মু-কাশ্মীরি মু’সলমানদের পক্ষে আওয়াজ তোলার জন্য। পাকিস্তানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক বিবৃতিতে এ তথ্য জানানো হয়।

কাশ্মীরের মু’সলমানদের প্রতি সম’র্থন ইরানের: তুরস্কের পাশাপাশি কাশ্মীরি মু’সলমানদের প্রতি সম’র্থন দেওয়ায় ইস’লামী প্রজাতন্ত্র ইরানকে ধন্যবাদ জানিয়েছে পাকিস্তান সরকার।

জম্মু ও কাশ্মীরের মু’সলিম জনগোষ্ঠীর আশা-আকাঙ্খার প্রতি যথাযথ সম্মান প্রদর্শন করে ভারতকে পক্ষপাতহীন নীতি অবলম্বনের আহ্বান জানিয়েছেন ইরানের সর্বোচ্চ ধ’র্মীয় নেতা আয়াতুল্লাহ আলী খামেনি। পাশাপাশি মোদি সরকারকে কাশ্মীরিদের সাথে অন্যায় আচরণ না করার আহ্বান জানান ইরানের সর্বোচ্চ ধ’র্মীয় এই নেতা।

প্রয়োজনে পাকিস্তানে পারমাণবিক বোমা হা*মলা করবে ভারত

জম্মু-কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা বালিতের পর থেকে উ**ত্তাপ ছড়িয়ে পড়েছে পাশ্ববর্তী দুই দেশ ভারত ও পাকিস্তানে। এরইমধ্যে দেশদুটো সীমান্তে গোলাগুলির ঘটনাও ঘটেছে। যাতে উভয়পক্ষের অন্তত ৮-১০ সে

না নিহত হয়েছে।এমতাবস্তায় দুই দেশের মধ্যে যে কোন সময় যুদ্ধ বেধে পারে বলে মত বিশেষজ্ঞদের।

এদিকে শত্রুদেশ পাকিস্তানকে থামাতে বিধ্বংসী পারমানবিক বোমা হা*মলার কথা স্মরণ করিয়ে দিয়েছেন মোদির নেতৃত্বাধীন বিজেপি সরকারের প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিং। তিনি পাকিস্তানকে সতর্ক করে বলেন, ‘এখনও পর্যন্ত পরমাণু অ**স্ত্র নিয়ে ব্যবহার নীতি মেনে চলছে ভারত। কিন্তু যদি প্রয়োজন পড়ে তাহলে এ নীতি থেকে ভারত সরে আসতে দ্বিধাবোধ করবে না।’

এছাড়া জম্মু-কাশ্মীরের অনুচ্ছেদ ৩৭০ বাতিলের পর পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানও উসকানিমূলক বক্তব্য দিয়েছেন বেশ কয়েকবার। তাছাড়া নয়াদিল্লির সাথে সব ধরনের বাণিজ্যিক সম্পর্কও ছিন্ন করেছে ইসলামাবাদ।

জম্মু-কাশ্মীরে আরেকটি পুলওয়ামা অ্যা’’টাক হবে: ইমরান খান

ভারত অধিকৃত জম্মু-কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা বাতিল করায় পুলওয়ামা হা*ম*লার মতো আরেকটি হা*মলা হতে পারে বলে ভারতকে ‍হুঁ’শিয়ারি করেছেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান।মঙ্গলবার (৬ আগস্ট) পাক সংসদে দাঁড়িয়ে হুঁ’শিয়ারি দেন তিনি।

ইমরান খান বলেন, ‘আমার অনুমান আরও একটা পুলওয়ামার মত ঘটনা ঘটবে। ভারত কাশ্মীরের বিষয়ে যে সিদ্ধান্ত নিয়েছে, তাতে যে আরও একটা পুলওয়ামার মত ঘটনা ঘটতে খুব বেশি দেরি নেই’।

এর আগে এ ইস্যুতে ইমরান খান বলেন, ‘কাশ্মীরের মানুষ এবং পাকিস্তান কোনওভাবে এই সিধান্ত মেনে নেবে না। ভারতের অ’বৈধ সিদ্ধান্তে আঞ্চলিক শান্তি, সম্প্রীতি ও নিরাপত্তা নষ্ট হবে।’

উল্লেখ্য, চলতি বছরের ১৪ ফেব্রুয়ারি ভারত নিয়ন্ত্রিত জম্মু-কাশ্মীরে গাড়ি বোমা হা’মলায় ভারতের সেন্ট্রাল রিজার্ভ পুলিশ ফোর্সের (সিআরপিএফ) ৪৯ জন সেনা নি’হত হয়। হাম’লার দায় স্বীকার করে পাকিস্তান ভিত্তিক জঙ্গি সংগঠন জইশ-ই-মোহাম্মদ। জম্মু-কাশ্মীরে স্বাধীনতার পর এত বড় সন্ত্রাসবাদী হাম’লা এর আগে হয়নি।

কাশ্মীরে ১৪৪ ধারা: ট্রাম্পকে মধ্যস্থতার আহ্বান পাকিস্তানের

ভারত শাসিত কাশ্মীরের রাজধানী শ্রীনগর আর জম্মু অঞ্চলে ১৪৪ ধারা জারি করা হয়েছে। এতে রোববার রাত থেকে পরিস্থিতি আরো জটিল হয়ে উঠেছে।

একই সঙ্গে সব স্কুল-কলেজ অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ রাখার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। গৃহবন্দি করা হয়েছে জম্মু ও কাশ্মিরের সাবেক মুখ্যমন্ত্রী মেহবুবা মুফতি ও ওমর আবদুল্লাহকে। রোববার আরো গৃহবন্দি করা হয়েছে সাজাদ লোন’কে। এ তিনজনই জম্মু ও কাশ্মিরে সবচেয়ে সুপরিচিত রাজনীতিক।

গোটা কাশ্মীরে মোবাইল টেলিফোন আর ইন্টারনেট সংযোগ বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। সেই সঙ্গে জম্মু-কাশ্মির এলাকা থেকে অবিলম্বে পর্যটক ও হিন্দু উপাসকদের চলে যাওয়ার নির্দেশ দিয়েছে। এর ফলে জম্মু-কাশ্মিরে এক অনিশ্চিত অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে।

উদ্ভূত পরিস্থিতিতে মধ্যস্থতা করতে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে পাকিস্তান। অঞ্চলটিকে কেন্দ্র করে পাকিস্তান ও ভারতের মধ্যে সাম্প্রতিক নতুন উত্তেজনার মধ্যেই এমন আহ্বান জানালো ইসলামাবাদ।

রোববার পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান বলেছেন, কাশ্মির নিয়ে ভারত-পাকিস্তানের মধ্যকার উত্তেজনা আঞ্চলিক সংকটে পরিণত হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। ফলে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের মধ্যস্থতার জন্য এখনই সঠিক সময়।

এদিকে সোমবার সকালে ভারতের কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভা বৈঠকে বসেছে। এতে কাশ্মীর নিয়েই মূলত আলোচনা হবে বলে মনে করা হচ্ছে।

রোববার দিবাগত রাত ১২টা থেকে অনির্দিষ্টকালের জন্য শ্রীনগরে ১৪৪ ধারা জারি হয়েছে। সাধারণ মানুষ চলাচল করতে পারবেন না। সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকবে। জম্মু জেলাতেও সোমবার সকাল ৬টা থেকে ১৪৪ ধারায় জারি হয়েছে।

স্থানীয় সাংবাদিকরা জানান, এক অভূতপূর্ব নিরাপত্তার চাদরে মুড়ে ফেলা হয়েছে গোটা শ্রীনগর শহরকে। শহর ছাড়া গ্রামীণ এলাকাতেও কেন্দ্রীয় বাহিনী মোতায়েন করা হয়েছে। জায়গায় জায়গায় পুলিশ চৌকি বসানো হয়েছে।

কাশ্মীরীদের বিশেষ মর্যাদা বাতিল, তীব্র প্রতিবাদ পাকিস্তানের

এবার ভারতের কাশ্মীর রাজ্যের বিশেষ মর্যাদা বাতিল করে সংবিধানের ৩৭০ অনুচ্ছেদ বিলুপ্ত করেছে দেশটির কেন্দ্রীয় সরকার। সেইসঙ্গে স্বায়ত্বশাসিত এই রাজ্যটি ভেঙ্গে ‘জম্মু-কাশ্মীর’ এবং ‘লাদাখ’ নামে আলাদা দুটি ‘ইউনিয়ন টেরিটোরি’ বা ‘কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল’ গঠনের প্রস্তাবও দেয়া হয়েছে।

এদিকে মোদি সরকারের এই সিদ্ধান্তে রীতিমত অসন্তুষ্ট পাকিস্তান। তীব্র প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন পাকিস্তানের প্রেসিডেন্ট আরিফ আলভি।

এ ব্যাপারে তিনি জানিয়েছেন, ভারত কাশ্মীর নিয়ে যা সিদ্ধান্ত নিয়েছে তা অত্যন্ত আ**পত্তিকর। কাশ্মীরের বাসিন্দাদের মতামত না নিয়েই একতরফা সিদ্ধান্ত হয়েছে। জাতিসংঘের বিধি লঙ্ঘন করা হয়েছে এই সি*দ্ধা

ন্তে। পাকিস্তান এর তীব্র প্রতিবাদ জানায়।

এদিকে কাশ্মীর ইস্যুর শান্তিপূর্ণ সমাধান চায় পাকিস্তান। এবং কাশ্মীরিদের মতামত নিয়েই সেই সমাধান করা উচিত বলে মন্তব্য করেছেন পাকিস্তানের প্রেসিডেন্ট আরিফ আলভি। ইসলামাবাদ সরকারিভাবে এই সিদ্ধান্তের তী*ব্র বি(*রোধিতা করে জানিয়েছে, পাকিস্তান কোনো ভাবেই কাশ্মীরের ৩৭০ ধারার বিলোপ মেনে নেবে না।

এ ব্যাপারে পাকিস্তানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র মোহাম্মদ ফয়সল রেডিও বার্তায় জানিয়েছেন, পাকিস্তান কখনও কাশ্মীর থেকে ৩৭০ ধারার বিলোপ মেনে নেবে না। কাশ্মীরের মানুষও এই সিদ্ধান্ত মেনে নেবেন না বলে তীব্র প্রতিবাদ জানিয়েছেন তিনি।

দিল্লির এই সিদ্ধান্তের প্রভাব পড়বে কার্তারপুর করিডরে। কারণ এই কার্তারপুর করিডর নিয়ে দিল্লির সঙ্গে ইসলামাবাদের যে বৈ*ঠকে বসার কথা ছিল সেটা আপাতত স্থগিত রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে পাকিস্তান। সূত্র: ওয়ান ইন্ডিয়া