পুলিশ হেফাজতে গৃহবধূর মৃত্যু: তদন্ত কমিটি গঠন

গাজীপুরে মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ হেফাজতে গৃহবধূ মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার আজাদ মিয়াকে প্রধান করে তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করেছে জিএমপি কমিশনারকমিটিকে সাত কার্যদিবসের মধ্যে প্রতিবেদন জমা দিতে বলা হয়েছে। এ ঘটনায় গোয়েন্দা পুলিশ বাদি হয়ে গাজীপুর মেট্রোপলিটন সদর থানায় একটি মাদক মামলা করেছে। এছাড়া একটি অপমৃত্যু মামলা হয়েছে।এদিকে গতকালই ময়নাতদন্ত শেষে ঢাকার মোহাম্মদ বৃদ্ধিজীবী কবরস্থানে ওই গৃহবধূর দাফন সম্পন্ন হয়েছে।

এর আগে মঙ্গলবার রাতে গাজীপুরের ভাওয়াল গাজীপুরা এলাকায় একাধিক মাদক মামলার আসামি আব্দুল হাইকে না পেয়ে স্ত্রী ইয়াসমিনকে ধরে নিয়ে যায় গোয়েন্দা পুলিশের সদস্যরা। পুরে রাতে পুলিশ হেফাজতে তার মৃত্যু হয়। পুলিশের দাবি, নিহত গৃহবধূ একজন মাদক ব্যবসায়ী, তার কাছে থেকে ১০০ পিস ইয়াবা উদ্ধার করা হয়েছিল।

মার্কিনিদের পা কে*টে ফেলার হু*ম*কি ইরানের

ইরানি জেনারেল কাশেম সোলাইমানিকে হ*ত্যা*র বদলা হিসেবে মার্কিনিদের পা কে*টে ফেলার *হু8মকি দিয়েছেন ইরানের প্রেসিডেন্ট হাসান রুহানি।

বুধবার (০৮ জানুয়ারি) রুহানি এ হু*মকি দিয়েছেন বলে খবর প্রকাশ করেছে ইরানভিত্তিক সংবাদমাধ্যম তেহরান টাইমস।

খবরে বলা হয়েছে, প্রেসিডেন্ট রুহানি যুক্তরাষ্ট্রকে উদ্দেশে করে বলেছেন, তোমরা সোলাইমানির হা*ত কেটেছো। কিন্তু আমরা তোমাদের পা কে*টে ফেলবো। এই এলাকায় তোমার চলার শক্তি থাকবে না।

তিনি বলেন, সোলাইমানিকে হ*ত্যা*র মাধ্যমে যুক্তরাষ্ট্র এই এলাকায় প*তন ডেকে এনেছে। তাদের আর উঠে দাঁ*ড়া*তে দেয়া হবে না।

মাহাথিরকেও হ*ত্যা** করতে পারে যুক্তরাষ্ট্র!

ইরাকের মাটিতে ইরানি জেনারেল কাসেম সোলাইমানিকে যেভাবে ড্রোন থেকে হ*ত্যা করা হয়েছে তাতে আর কেউ নিরা*পদ নয় বলে মন্তব্য করেছেন মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রী ড. মাহাথির মোহাম্মদ।

সোলাইমানির মতো মার্কিন ড্রোন এখন মাহাথির মোহাম্মদকেও টার্গেট বা হ*ত্যা করতে পারে বলেও মন্তব্য করেন বিশ্বের সবচেয়ে প্রবীণ এ প্রধানমন্ত্রী।

মঙ্গলবার (৭ জানুয়ারি) কুয়ালালামপুরে এক সামিট অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেয়ার সময় জেনারেল কাসেম সোলেইমানি হ*ত্যা*কা*ণ্ডের *তী*ব্র নি*ন্দা জানিয়ে তিনি এসব কথা বলেন।

মালয়েশিয়ার সংবাদমাধ্যম প্রেসটিভির খবরে বলা হয়েছে, মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘জেনারেল সোলাইমানির ওপর মার্কিন ড্রো*ন হা*ম*লা আন্তর্জাতিক আই8নের ল*ঙ্ঘ*ন। আমরা এখন আর নিরাপদ নই। মুসলিমদের ঐ*ক্য8বদ্ধ হওয়ার এটাই উপযুক্ত সময়।’

তিনি বলেন, ‘কাউকে অ*পমা8ন করেন বা কারো ব্যাপারে কোনো কিছু বলেন, যেটা তার পছন্দ নয়; তাহলে ওই ব্যক্তিকে হ8ত্যা*র জন্য অন্য দেশ থেকে একটি ড্রো8ন পাঠিয়ে দেন। আমাকেও এ ড্রো*ন নিশানা বানাতে পারে।’

৭২ ঘণ্টার মধ্যে কুয়েত ছাড়ছে মার্কিন সেনাবাহিনী

আগামী ৭২ ঘণ্টার মধ্যে কুয়েত থেকে সব সৈন্য প্রত্যা*হার করে নিচ্ছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। কুয়েতে মার্কিন শি*বির কমান্ডার এ সংক্রান্ত একটি চিঠি দিয়েছে কুয়েতের প্রতি*রক্ষা*মন্ত্রীকে।

কুয়েতের প্রতিরক্ষামন্ত্রীর বরাত দিয়ে বুধবার (০৮ জানুয়ারি) দেশটির রাষ্ট্রীয় সংবাদ সংস্থা ‘কুনা’ এ খবর দিয়েছে বলে জানিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স। কুনাকে প্রতিরক্ষামন্ত্রী বলেন, আরিফজান ক্যাম্প থেকে এ জাতীয় একটি চিঠি পাওয়া অ*প্রত্যা*শিত। আমরা আরও বিস্তারিত তথ্যের জন্য মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিরক্ষা বিভাগের সঙ্গে যোগাযোগ করছি।

ইরান-যুক্তরাষ্ট্রের উ*ত্তে*জনার মধ্যেই অঞ্চলটি থেকে সব মার্কিন সেনা প্র*ত্যাহা*রের ঘোষণাটি গু*রুত্ব*পূর্ণ বলে মনে করছেন বি*শ্লে*ষকরা।

ক্ষে’প’ণাস্ত্র হা’ম’লা হতে পারে ইসরাইলেও

ইসরাইলি প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু মার্কিন জানিয়েছেন ই’রান হা’ম’লায় প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের পাশে রয়েছেন ইসরাইল।যুক্তরাষ্ট্রের পাশে দাঁড়ানোয় ইসরাইলেও ক্ষে’প’ণাস্ত্র হা’ম’লা হতে পারে বলে আশঙ্কা

করছেন ইসরাইলি প্রধানমন্ত্রী । তাই আগে থেকে সতর্ক হুঁশি’য়ারি দিয়ে যাচ্ছে।আজ বুধবার ভোর সকালে ই’রাকে মার্কিন ঘাঁটিতে ই’রানের হা’ম’লার পরেই জেরুজালেমে তিনি এ কথা বলেন।

এ সময় তিনি মার্কিন হা’মলায় নি”হত ই’রানি কমান্ডার জেনারেল কাসেম সো’লাইমানিকেহ’ত্যা’র ঘটনায় যুক্তরাষ্ট্রের পক্ষে অবস্থান করছেন বলেও পুর্নব্যক্ত করেন।নেতানিয়াহু

বলেন, যে কেউ আমাদের আ’ক্রমণ করার চেষ্টা করলে তাকে সবচেয়ে প্রবল আ’ঘাত করা হবে।

যে ভাবে ধ’রা প*ড়ে ঢাবি ছাত্রীর স’র্ব’নাশকারী মজনু

সম্প্রতি ধ’র্ষ’ণে’র শি*কার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সেই ছাত্রীর মোবাইল বিক্রির টাকা নিতে এসে ধ*রা প*ড়ে মজনু। আজ ৮ জানুয়ারি বুধবার ভোরে শেওড়া রেলক্র*সিং এলাকায় অ*ভিযান চা*লিয়ে তাকে গ্রে’ফ’তার করা হয়।এ ব্যা*পারে র‍্যাবের গণমাধ্যম শাখার পরিচালক লে. কর্নেল সারোয়ার বিন-কাশেম জানান,

গ্রে*ফতার ধ’র্ষ’কের মজনুর বাড়ি নোয়াখালীর হাতিয়ায়।সে গাজীপুরের টঙ্গী এলাকায় ব*সবাস করতো। কখনো কুর্মিটোলা এলাকার পরিত্যক্ত ট্রেনের কা*মরায়ও থাকতো। মাঝে মাঝে হ*কারি করে পোশাক বি*ক্রির কাজ করতো।এদিকে স্ত্রী মা’রা যাওয়ার পর আর বিয়ে করেনি মজনু। এরপর থেকেই ভি*ক্ষুক ও প্রতিব*ন্ধীদের ধ’র্ষ’ণ করতো সে। প্রতিব*ন্ধী না*রীরাই মজনুর টা*র্গেট ছিল।এ সময় তিনি আরো জানান, অরুনা বিশ্বাস নামে এক নারীর কাছে ঢাবি ছাত্রীর

মোবাইল বি*ক্রি করে মজনু। সেই টাকা নিতে এসেই গ্রে*ফতার হয় সে।এ ব্যা*পারে লে. কর্নেল সারোয়ার বিন-কাশেম বলেন, ‘মজনুর ছবি ওই ছাত্রীকে দেখানো হয়েছে।তিনি তাকে ধ’র্ষ’ক বলে শনা*ক্ত করেছেন। ধ’র্ষ’ক মজনুও জি*জ্ঞাসাবাদে অ*পরাধের দা*য় স্বী*কার করেছে।’

একের পর এক মার্কিন ঘাঁ’টিতে হা’মলা, চি’ন্তিত হোয়াইট হাউজ!

একের পর এক মার্কিন ঘাঁ’টিতে হা’মলা, চি’ন্তিত হোয়াইট হাউজ! ইরাকে অবস্থিত দুটি মার্কিন বিমান ঘাঁ’টিতে র’কেট হা’মলা চা’লিয়েছে ইরান।

যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিরক্ষা দফতরের বরাত দিয়ে এ খবর জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক সংবাদমাধ্যম

সিএনএন। মঙ্গলবার রাতে ইরাকের আইন-আল আসাদ সামরিক ঘাঁ’টিতে ১২টির বেশি

রকেট হা’মলা চা’লিয়েছে ইরান। এই রকেট হা’মলায় কেউ হ’তাহ’ত হয়েছে কিনা, তা এখনো নিশ্চিত হওয়া যায়নি। এদিকে হা’মলা করার কথা স্বী’কার করেছে তেহরান।

মার্কিন ড্রোন হা’মলায় কুদসপ্রধান ও দেশটির শীর্ষ প্রভাবশালী ব্যক্তিত্ব জেনারেল কাসেম

সোলেইমানিকে হ’ত্যার জবাবে এই হা’মলা চা’লানো হয়েছে।ইরাকের আল-আসাদ নামের ওই বিমান ঘাঁ’টিটি মধ্যপ্রাচ্যে যুক্তরাষ্ট্রের শক্ত একটি ঘাঁ’টি হিসেবে পরিচিত।

ওয়াশিংটন এ ঘটনার ওপর ন’জর রাখছে জানিয়ে হোয়াইট হাউজের মুখপাত্র স্টেফানি গ্রিশাম বলেছেন, ‌ইরাকে অবস্থিত একটি মার্কিন ঘা’টিতে রকেট হা’মলা চা’লানো হয়েছে। এ

ব্যাপারে আমরা সচেতন রয়েছি এবং গভীর পর্যবেক্ষণ করছি। প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পকে এ

ঘটনা অবহি’ত করা হয়েছে। তিনি যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় নিরাপত্তা দল ও প্রতিরক্ষা দফতরের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সঙ্গে আলোচনা করছেন।

এদিকে হা’মলার পর পর ইরনা নিউজ এজেন্সিতে ইরানের রেভ্যুলশনারি গার্ড এক বিবৃতি

দিয়েছে। বিবৃতিতে বলা হয়েছে, এ হা’মলা কুদসপ্রধান সোলেইমানির হ’ত্যাকা’ণ্ডের বদলা।

আমরা সতর্ক করে দিতে চাই যে, স’ন্ত্রা’সী যুক্তরাষ্ট্রকে যারা তাদের ঘাঁ’টিগুলোকে ব্যবহার করতে দিয়েছে তাদেরকেই লক্ষ্যবস্তু করা হবে।

বিশ্বের যেখান থেকেই ইরানের বি’’রুদ্ধে আ’গ্রাসী কর্মকাণ্ড চা’লানো হবে সেখানেই হা’মলা করা হবে।

এই মু’হূর্তে যুক্তরাষ্ট্রের যু’দ্ধে’র ভার বহন করার ক্ষমতা নেই: মার্কিন স্পিকার

এবার ই’রাকের দুই মার্কিন ঘাঁটিতে ই’রানের ইসলামি বিপ্লবী গার্ড বাহিনী বা আইআরজিসি ব্যালিস্টিক ক্ষে’পণাস্ত্র দিয়ে হা’ম’লা চালিয়েছে।

এই হা’ম’লার পর মার্কিন প্রতিনিধি পরিষদের স্পিকার ন্যান্সি পেলোসি টুইটারের একটি

পোস্টের মাধ্যমে জানিয়েছেন যে, এই মুহূর্তে যুক্তরাষ্ট্রের যু’দ্ধে’র ভার বহন করার ক্ষমতা নেই।

এ ব্যাপারে টুইটে তিনি বলেন, ‘আমরা বিষয়টি অত্যন্ত নিবিড়ভাবে পর্যবেক্ষণ করছি। ইরাকে

আমাদের সেনা মোতায়েন রয়েছে। আমরা অবশ্যই তাদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করব। অপ্রয়োজনীয় উসকানির অবসান ঘটাব।

তবে এ মুহূর্তে নতুন করে কোনো যু’দ্ধে’র ভার বহন করার মতো ক্ষমতা যুক্তরাষ্ট্র এবং বিশ্বের নেই।’

এ সময় ন্যান্সি পেলোসি ই’রানকেও সংঘাত বন্ধ করার দাবি জানিয়েছেন।এদিকে হা’ম’লার পর আইআরজিসি’র পক্ষ থেকে বিবৃতি প্রকাশ করেছে। এতে বলা হয়েছে- ‘বড় শয়তান’,

‘রক্তপিপাসু’ ও ‘দাম্ভিক’ যুক্তরাষ্ট্রকে কড়া ভাষায় হুঁ’শিয়ার করে দিয়ে বলা হয়েছে, যদি

আবার কোনো ‘শয়তানি’ করা হয় কিংবা কোনো আগ্রাসন বা উসকানি চালানোর চেষ্টা করা হয় তাহলে ওয়াশিংটনকে এর চেয়ে ‘বেদনাদায়ক’ ও ‘বিপর্যয়কর’ জবাব দেয়া হবে।

মুসলিম দেশগুলোকে ঐক্যবদ্ধ হতে বললেন মাহাথির মোহাম্মদ

মার্কিন ড্রোন হা’মলায় নি’হত ইরানি জেনারেল কাসেম সোলাইমানিকে হ’ত্যা বে’আইনি আখ্যা দিয়েছেন মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রী মাহাথির মোহাম্মদ। মঙ্গলবার (৭ জানুয়ারি) এই

হ’ত্যাকা’ণ্ডকে তিনি সৌদি আরবের নির্বাসিত সাংবাদিক জামাল খাশোগির হ’ত্যাকা’ণ্ডের শামিল বলে মন্তব্য করেছেন।

এই হ’ত্যাকা’ণ্ডের পর কোনটিকে স’ন্ত্রা’সবাদ বলা হবে তা নিয়ে উত্তে’জনা বাড়বে বলে

আশ’ঙ্কা প্রকাশ করেন মালয়েশীয় প্রধানমন্ত্রী। এই মুহূর্তে মুসলিম দেশগুলোর ঐ’ক্যবদ্ধ হওয়া উচিত বলে মন্তব্য করেন তিনি।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের নির্দেশে গত ৩ জানুয়ারি ভোরে বাগদাদ বিমানবন্দরে

ড্রোন হা’মলা চালিয়ে ইরানের প্রভাবশালী জেনারেল কাসেম সোলাইমানিকে হ’ত্যা করা হয়। ওই ঘটনার চরম প্রতি’শোধ নেওয়ার ঘোষণা দিয়েছে ই’রান।

এনিয়ে ওয়াশিংটন-তেহরান উ’ত্তেজনার মধ্যে মঙ্গলবার এই ইস্যুতে কথা বলেন মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রী।

সাংবাদিকদের উদ্দেশে মাহাথির মোহাম্মদ বলেন, এখনই মুসলিম দেশগুলোর ঐক্যব’দ্ধ হওয়ার সঠিক সময়। তিনি বলেন, ‘আমরা এখন আর নিরাপদ নই।

কেউ যদি কাউকে অব’জ্ঞা করে বা কারও পছন্দ মতো কথা না বলে তাহলে অন্য দেশ

থেকে ওই ব্যক্তির পক্ষে ড্রো’ন পাঠানো এবং স’ম্ভবত আমার উপর গু’লি চালানোও ঠিক আছে’।

জেনারেল সোলাইমানির হ’ত্যাকা’ণ্ড প্রসঙ্গে মাহাথির মোহাম্মদ বলেন, ‘এই হ’ত্যাকা’ণ্ড সাংবাদিক জামাল খাশোগির হ’ত্যাকা’ণ্ডের সমান।

তাকে বিদেশের মাটিতে হ’ত্যা করা হয়। নিজ দেশের স্বার্থে অন্য দেশের কোনও নেতাকে হ’ত্যার মতো কাজ এটা।

উভয়েই (যুক্তরাষ্ট্র ও সৌদি আরব) অ’নৈতিক ও আইন বিরু’দ্ধ কাজ করেছে’। উল্লেখ্য,

ওয়াশিংটনে নির্বাসিত সাংবাদিক জামাল খাশোগিকে ২০১৮ সালের অক্টোবরে তুরস্কের ইস্তানবুল দূতাবাসে হ’ত্যা করে সৌদি এজেন্টরা।

নিজের মতামত বিশ্ব দরবারে তুলে ধরা অব্যাহত রাখবেন কিনা জানতে চাইলে মাহাথির

বলেন, সত্য প্রকাশ অব্যাহত রাখবো। তিনি বলেন, কে ক্ষমতাধর আর কে দুর্বল তা নিয়ে আমি ভীত নই। কোনও কিছু সঠিক না হলে আমি বলে করি আমার সত্য প্রকাশের অধিকার আছে’। প্রসঙ্গত, মালয়েশিয়ায় প্রায় দশ হাজার ইরানি বসবাস করে বলে ধারনা করা হয়। যুক্তরাষ্ট্র

ইরানের ওপর নি’ষেধাজ্ঞা আরোপ করে রাখলেও মধ্যপ্রাচ্যের দেশটির সঙ্গে সুসম্পর্ক বজায় রাখার চেষ্টা করেন মাহাথির।

গত মাসে মালয়েশিয়ায় আয়োজিত মুসলিম দেশগুলোর নেতাদের এক সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন ইরানের প্রেসিডেন্ট হাসান রুহানি।

ইরান-যুক্তরাষ্ট্র উ’ত্তেজনা কমাতে মধ্যস্থতায় নেমেছে কাতার-ওমান

ইরান ও যুক্তরাষ্ট্র এই মুহূর্তে একটা পূর্ণ যুদ্ধের দ্বারপ্রান্তে। ইরাকে মার্কিন ড্রো’’ন হা’ম’লায় ইরানি জেনারেল কাসেম সোলাইমানি নি’হ’ত হওয়ার পর তেহরানের পক্ষ থেকে প্রতিশোধের

হুঙ্কার দেয়া হচ্ছে। বিশ্লেষকরাও বলছেন ইরান অবশ্য যে কোনো ধরনের পা’ল্টা জবাব দেবে।

অন্যদিকে যুক্তরাষ্ট্রও হু’মকি দিয়ে রেখেছে। নতুন কোনো হাম’লা ইরা’নের পক্ষ থেকে হলে জবাবে ইরানের ভেতরে হা’ম’লা করবে ওয়াশিংটন।

৫২টি বিশেষ ইরানি স্থাপনা ইতোমধ্যে চিহ্নিত করে রাখা হয়েছে বলেও জানিয়েছেন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প।

এমন পরিস্থিতিতে দেশ দুটির মধ্যে উ’ত্তেজনা কমাতে তেমন কোনো উদ্যোগ চোখে পড়ছে

না। ইউরোপিয়ান দেশগুলো ট্রাম্পের বিভিন্ন আচরণে কিছুটা অখুশি হলেও সোলা’মানির হ’’ত্যা’কে সবাই সমর্থন জানিয়েছে।

এতে ইউরো’পিয়ান দেশগুলো এই ইস্যুতে তেহরান ও ওয়াশিংটনের মধ্যে মধ্যস্থতাকারী হিসেবে গ্রহণযোগ্য হবে না। রাশিয়া, চীন সোলাইমানির হ’’ত্যায় ইরানের সমর্থনে বিবৃতি দিয়েছে।

অন্যদিকে মধ্যপ্রাচ্যে দেশ সৌদি আরব নীরব থাকলেও তারা ওয়াশিংটনের ঘনিষ্ট মিত্র।

অনেকের ধারণা সোলা’ইমানি হ’’ত্যায় রিয়াদ অখুশি নয় মোটেও। বিশ্বের বড় বড় দেশগুলো

যখন দুই পক্ষের মধ্যে উত্তেজনা প্রশমনে অগ্রহণযোগ্য বা অনাগ্রহী, তখন মধ্যপ্রাচ্যের ক্ষু’দ্ধ দুটি দেশ চালিয়ে যাচ্ছে তাদের প্রচেষ্টা।

দেশ দুটি হলো কাতার এবং ওমান। কাতার এবং ওমান একইসাথে যুক্তরাষ্ট্রের ঘনিষ্ট মিত্র এবং

ইরানের সাথেও রয়েছে যথেষ্ট ঘনিষ্টতা। তেহরান এবং ওয়াশিংটনের উপরমহলে দুটি দেশেরই ঘনিষ্ট যোগাযোগ রয়েছে।

এই সুযোগকে কাজে লাগিয়ে তারা মধ্যস্থতার চেষ্টা করে যাচ্ছে।শুক্রবার সো’লাইমানি হ’ত্যার দুই দিন পরই রোববার ইরান সফর করেন কাতারের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোহাম্মদ আবদুলরহমান

আল থানি। সেখানে প্রেসিডেন্ট রোহানি, পররাষ্ট্রমন্ত্রী জাভেদ জারিফের সাথে তার বৈঠক হয়।

তেহরান থেকে ফিরে সোমবার মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেওর সাথে ফোনালাপ করেন আল থানি।

অন্যদিকে যুক্তরাষ্ট্রের আরেক মিত্র তুরস্কের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সাথেও একই দিন ফোনালাপ

করেছেন তিনি। এই মধ্যস্থতার মূল লক্ষ্য হলো ইরান ও যুক্তরাষ্ট্রকে সম্ভাব্য যুদ্ধ থেকে সরিয়ে আনা।

একইভাবে ওমানও তেহরান এবং ওয়াশিংটনে যোগাযোগ চালিয়ে যাচ্ছে। ইরান ও যুক্তরাষ্ট্রের