উকুনের সমস্যা একেবারে দূর করার কার্যকর ভেষজ ঘরে বসেই বানিয়ে ফেলুন !

চুলের গোড়া ভেজা থাকলে, চুল ময়লা থাকলে উকুন দ্রুত ছড়িয়ে পড়তে পারে। ছোটরা তো বটেই, বড়রাও উকুনের সমস্যায় আক্রান্ত হয়ে থাকেন। আর উকুন এমন একটি জিনিস, যা বাড়িতে একবার প্রবেশ করলে সবার মাথায় ছড়িয়ে যায়।উকুনের সমস্যা একবার শুরু হলে একেবারেই পিছু ছাড়তে চায় না। এদিকে উকুন নাশক শ্যাম্পু ব্যবহারে উকুনের সমস্যা কমে ঠিকই, কিন্তু এতে থাকা ক্ষতিকর রাসায়নিকের প্রভাবে অনেকেরই চুল পড়ে অর্ধেক হয়ে যায়।

তাই বাড়িতেই তৈরি করে রাখতে পারেন উকুননাশক সিরাম। এটা বেশ কিছু দিন ঘরে রেখে ব্যবহার করা যাবে। উপাদানগুলি সবই সহজলভ্য। এ বার জেনে নেওয়া যাক ঘরোয়া উপায়ে উকুননাশক সিরাম তৈরি ও ব্যবহারের পদ্ধতি।
সিরাম তৈরি করার উপকরণ-
আমলকির তেল ৫০ গ্রাম, তিলের তেল ১০০ গ্রাম, কালোজিরা তেল ১০০ গ্রাম এবং নিম পাতা গুঁড়ো ২-৩ টেবিল চামচ।
সিরাম তৈরি করার পদ্ধতি- সব উপাদান একসঙ্গে মিশিয়ে নিন। খুব হালকা করে গরম করুন। খেয়াল রাখবেন যেন ফুটে না ওঠে। ঠান্ডা করে বোতলে ভরে রাখুন।

ব্যবহারবিধি:
১) তেল ব্যবহার শুরুর আগে বিছানার চাদর, বালিশের কাভার সব বদলে নিতে হবে এবং গরম পানি দিয়ে ঘরের তা ধুয়ে নিতে হবে।
২) সবকিছু বদলে ফেলার পর মাথায় তেলটি দিয়ে ভাল করে মালিশ করতে হবে। এর সঙ্গে অন্য কিছু মেশানো যাবে না। যাদের মাথায় উকুনের কামড়ে ঘা হয়ে গিয়েছে, তাদের একটু জ্বলতে পারে প্রথম প্রথম। মাথার তালুতে ও পুরো চুলে ভাল করে মালিশ করতে হবে।
৩) সিরাম মালিশ করার ২-৩ ঘণ্টা পর মিহি দাঁতের চিরুনি দিয়ে চুল ভাল করে আঁচড়াতে হবে।
৪) সব মিলিয়ে মোটামুটি ৩-৪ ঘণ্টা রাখার পর শ্যাম্পু করে চুল ধুয়ে ফেলুন।

৫) এই ভেষজ সিরাম ২-৩ বার ব্যবহারেই বুঝতে পারবেন যে, উকুনের পরিমাণ অনেকটাই কমে গিয়েছে। সপ্তাহখানেক নিয়মিত ব্যবহারে উকুনের সমস্যা একেবারেই থাকবে না। তবে সপ্তাহে অন্তত তিন দিন এই সিরাম অবশ্যই ব্যবহার করতে হবে।

তথ্যসূত্র : জি নিউজ

গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা থেকে চিরতরে মুক্তির উপায় !

গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা থাকবে না – আমাদের দেশে গ্যাস্টিকের সমস্যা নেই এমন মানুষ হয়তো খুঁজে পাওয়াই যাবে না। এই সমস্যাটি মূলত ভাজাপোড়া খাবার খেলেই বেশি হয়ে থাকে। যে কাজটি করলে আর কখনোই আপনার গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা থাকবে না !!
অনেকেরই এ সব খাবার খাওয়ার পরে পেট ব্যথা বা বুকে ব্যথা কিংবা বদ হজম
হয়।অথচ এই সমস্যা দূর করার জন্য ওষুধ না খেয়ে রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগে নিচের
যেকোন একটি নিয়ম মানলেই চলবে।

১। আধা ইঞ্চি পরিমাণ কাঁচা আদা নিন। তারপর অল্প একটু লবন মাখিয়ে খেয়ে
ফেলুন। আদা খাওয়ার কিছুক্ষণ পর এক কাপ কুসুম গরম জল খান। গভীর রাতে আর গ্যস্ট্রিকের সমস্যা হবে না।
২। এক গ্লাস জল একটি হাড়িতে নিয়ে চুলায় বসান। এর আগে এক ইঞ্চি পরিমাণ কাঁচা হলুদ জলে দিয়ে দিন। জল অন্তত পাঁচ মিনিট ফুটতে দিন। তারপর নামিয়ে আনুন। জল ঠাণ্ডা হলে হলুদসহ খেয়ে ফেলুন। গ্যাস্ট্রিক দৌঁড়ে পালাবে।
৩। উপরের সমস্ত পদ্ধতি ঝামেলার মনে হলে শুধুমাত্র এক গ্লাস জলে এক চা চামচ মধু মিশিয়ে রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগে পান করুন। কখনোই রাতে পেট বা বুক ব্যথা করবে না।

গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা দূর করার ঘরোয়া উপায়ঃ
গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা কম-বেশি সবারই হয়।
লক্ষণগুলো হল পেটে জ্বালা-পোড়া করা, বদহজম, বমি বমি ভাব, বমি করা, পেটে ক্ষুধা, ক্ষুধা হ্রাস পাওয়া, খাওয়ার পর উপরের পেট বেশি ভরে গিয়েছে অনুভূতি হওয়া ইত্যাদি। খাবার সময়মতো খাওয়া হয়না, বাইরের ভাজা-পোড়া বেশি খাওয়া, জাঙ্কফুড খাওয়া, পরিমাণ মতো পানি না খাওয়া ইত্যাদি কারণে গ্যাস্ট্রিক এর সমস্যা দেখা দেয়।
আলুর রস

১. গ্যাস্ট্রিক সমস্যা রোধ করার অন্যতম ভাল উপায় হল আলুর রস। আলুর
অ্যালকালাইন উপাদান গ্যাস্ট্রিক সমস্যার লক্ষণগুলো রোধ করে থাকে।
২. একটি বা দুটো আলু নিয়ে গ্রেট করে নিন। এর গ্রেট করা আলু থেকে রস বের
করে নিন। এরপর আলুর রসের সাথে গরম জল মিশিয়ে নিন। এই পানীয় দিনে ৩ বার পান করুন। প্রতি বেলায় খাবার ৩০ মিনিট আগে খেয়ে নিন আলুর রস। তবে অন্তত ২ সপ্তাহ পান করুন এই পানীয়।
আদা

১. আদাতে আছে এমন কিছু উপাদান যা গ্যাস্ট্রিক সমস্যায় জ্বালাপোড়া হলে তা রোধ করতে সাহায্য করে। আদা খেলে বমি সমস্যা, বদ হজম, গ্যাস হওয়া কমে যা
২. আদার রসের সাথে মধু মিশিয়েও খেতে পারেন। দুপুরে ও রাতে খাওয়ার আগে এটি খেয়ে নিন।
৩. আদা কুচি করে জল দিয়ে ফুটিয়ে নিন। ১০ মিনিট ডেকে রাখুন, এরপর সামান্য
মধু মিশিয়ে চায়ের মতো বানিয়ে নিন। এই পানীয়টি দিনে ২/৩ বার পান করুন উপকারিতা পেতে।
৪. আপনি চাইলে আস্ত আদা ধুয়ে কেটে চিবিয়েও খেতে পারেন।
দই

১. প্রতিদিন ২/৩ চামচ দই খেয়ে নিন।
২. দই আমাদের পাকস্থলীকে `এইচ পাইলোরি ব্যাকটেরিয়া` থেকে রক্ষা করে যা গ্যাস্ট্রিক  হওয়ার অনতম কারণ। তাছাড়া দই আমাদের দেহের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে।
৩. আপনি চাইলে কলা, দই ও মধু একসাথে পেস্ট করে খেতে পারেন দ্রুত গ্যাস্ট্রিক সমস্যা রোধ করার জন্য।

আপনি কি অতিরিক্ত টেনশন করেন, রসুন খেতে ভুলবেন না ! জানুন কেন ?

হাইপারটেনশন বা উচ্চ রক্তচাপ ঠিক সময়ে চিকিৎসা না হলে এর থেকে হার্টের রোগ হতে পারে। আবার কখনো কখনো এই রোগ মৃত্যুর কারণ হয়ে দাঁড়ায়।উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণের উৎকৃষ্ট পদ্ধতি হলো স্বাস্থ্যকর খাদ্যাভ্যাস। বলা হয়, রসুন উচ্চ রক্তচাপকে নিয়ন্ত্রণে রাখে। রসুনে রয়েছে প্রচুর সালফারে পূর্ণ অ্যালিসিন, ডায়াল্লিল ডি সালফাইডসহ আরো নানা উপাদান।

ভারতের ডি কে পাবলিশিং হাউসের একটি বই ‘হিলিং ফুডস’-এ বলা হয়েছে, রসুনে থাকা সালফার রক্তনালিতে নাইট্রিক অক্সাইড উৎপন্ন করে। এতে তাদের স্থিতিস্থাপকতা বেড়ে রক্তচাপ কমে।অ্যানালস অব ফার্মাকো থেরাপির সমীক্ষায় দেখা গেছে, যাদের সিস্টোলিক রক্তচাপ বাড়ার প্রবণতা রয়েছে, তাদের ক্ষেত্রে রসুন রক্তচাপ কমাতে সাহায্য করে।

ইউরোপিয়ান জার্নাল অব ক্লিনিক্যাল নিউট্রিশন-এ প্রকাশিত, বিএমসি কার্ডিওভাস্কুলার ডিজঅর্ডারের ক্ষেত্রে রসুন উপকারী। রসুনে থাকা অ্যালিসিন রিঅ্যাকটিভ যৌগ। বিশেষত, যারা উচ্চ রক্তচাপ বা হাইপারটেনশনের রোগী, তাদের ক্ষেত্রে এটি দুর্দান্ত কাজ করে।উচ্চ রক্তচাপ ও হাইপার টেনশন কমাতে কীভাবে রসুন ব্যবহার করতে হবে, জানিয়েছে বার্তা সংস্থা ইউএনবি।ইউরোপিয়ান জার্নাল অব ক্লিনিক্যাল নিউট্রিশনে প্রকাশিত এক সমীক্ষা অনুযায়ী, যারা প্রতিদিন ৪৮০ থেকে ৯৬০ মিলিগ্রাম রসুন খান, তাদের রক্তচাপ অনেকটা নিয়ন্ত্রণে থাকে।

সবচেয়ে ভালো উপায় হলো প্রতিদিনের খাবারের সঙ্গে এক কোয়া করে রসুন খাওয়া। এ ছাড়া অনেকে মনে করেন, সকালে ঘুম থেকে উঠে খালি পেটে দুই থেকে তিন কোয়া রসুন খেলেও উপকার হয়। তবে শুধু রক্তচাপেই নয়, সম্পূর্ণ স্বাস্থ্যের জন্যও রসুন উপকারী। এ ছাড়া রসুন রক্তকে প্রাকৃতিকভাবে তরল রাখে। তাই এ ধরনের কোনো ওষুধ খেলে কিন্তু রসুন খাওয়া উচিত নয়। প্রয়োজনে চিকিৎসকের সঙ্গে যোগাযোগ করুন।

প্রসূতি মায়ের অপ্রয়োজনীয় সিজার ঠেকাতে হাইকোর্টে ব্যারিস্টার সুমন !!

সন্তান প্রসবের সময় প্রয়োজন ছাড়া প্রসূতির সিজার কার্যক্রম বন্ধের নির্দেশনা চেয়ে হাইকোর্টে রিট করেছেন ব্যারিস্টার সৈয়দ সায়েদুল হক সুমন।
মঙ্গলবার (২৫ জুন) হাইকোর্টের সংশ্লিষ্ট শাখায় রিটটি দায়ের করেন ব্যারিস্টার সৈয়দ সায়েদুল হক সুমন।

পরে তিনি জানান, আবেদনটি বিচারপতি শেখ হাসান আরিফ ও বিচারপতি রাজিক আল জলিলের হাইকোর্ট বেঞ্চে শুনানির জন্য উপস্থাপন করা হবে।রিট দায়েরের বিষয়ে সায়েদুল হক সুমন বলেন, ‘সম্প্রতি আন্তর্জাতিক উন্নয়ন সংস্থা সেভ দ্য চিলড্রেন বাংলাদেশে অপ্রয়োজনীয় সিজারের ওপর একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। এতে বলা হয়েছে,বাংলাদেশে গত দু’বছরে শিশু জন্মের ক্ষেত্রে সিজারিয়ানের হার বেড়েছে ৫১ শতাংশ। প্রতিবেদনে এ সংক্রান্ত তথ্য প্রকাশ করে বিষয়টিকে অপ্রয়োজনীয় অস্ত্রোপচার উল্লেখ করা হয়েছে। তাই প্রতিবেদনটি সংযুক্ত করে হাইকোর্টে রিট দায়ের করেছি।’

সম্প্রতি আন্তর্জাতিক উন্নয়ন সংস্থা সেভ দ্য চিলড্রেন বলছে, সিজারিয়ানে সন্তান জন্মদানে রয়েছে নানা রকম ঝুঁকি। মা ও শিশু উভয়কেই এমন অস্ত্রোপচার ঝুঁকিতে ফেলে।সংস্থাটির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, শিশু জন্মে অপ্রয়োজনীয় অস্ত্রোপচারের ফলে ইনফেকশন ও মাত্রাতিরিক্ত রক্তক্ষরণ, অঙ্গহানি, জমাট রক্ত ইত্যাদির কারণে মায়েদের সুস্থতা ফিরে পেতে প্রাকৃতিক প্রসবের তুলনায় অনেক দীর্ঘ সময় লাগে।এ ছাড়া সিজারিয়ানের কারণে প্রাকৃতিক জন্মের লাভজনক দিকগুলোও নষ্ট হতে পারে। যেমন, শিশু মায়ের প্রসবের পথ দিয়ে যদি স্বাভাবিকভাবে বের হয় তাহলে তার শরীর কিছু ভালো ব্যাকটেরিয়া গ্রহণ করতে পারে।

এসব ব্যাকটেরিয়া শিশুর রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা তৈরি করে। অস্ত্রোপচারের ফলে এই প্রক্রিয়ার মধ্য দিয়ে সে যেতে পারে না। যার ফলে এই ভালো ব্যাকটেরিয়া সে পায় না।এ ছাড়া মায়ের বুকের দুধ পান করার জন্য মায়ের সঙ্গে শিশুর যে শারীরিক নৈকট্যে আসা দরকার সিজারিয়ান হলে সেটি প্রয়োজনের তুলনায় দেরিতে ঘটে। কারণ মায়ের সুস্থ হয়ে ওঠার জন্য শিশুকে তখন কিছু সময় দূরে রাখা হয়।
একদম শুরুর দিকে মায়ের বুক দুধের বাড়তি উপকারিতা রয়েছে। তা থেকে সে বঞ্চিত হয়। ২০১৮ সালে যত সিজারিয়ান হয়েছে তার ৭৭ শতাংশই চিকিৎসাগতভাবে অপ্রয়োজনীয় ছিল।

প্রতিবেদনে উঠে এসেছে ২০১৮ সালে বাংলাদেশি বাবা-মায়েরা অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে সন্তান জন্মদানে খরচ করেছেন প্রায় চার কোটি টাকার বেশি। জনপ্রতি হিসেবে গড়ে তা ছিল ৫১ হাজার টাকার বেশি। সিজারিয়ানে সন্তান জন্মদানের হার বাংলাদেশের বেসরকারি হাসপাতালগুলোতে মারাত্মক হারে বেশি।বেসরকারি হাসপাতালগুলোতে যত শিশু জন্ম নেয় তার ৮০ শতাংশই হয় অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে।

সংস্থাটি আরও বলছে, ২০১৮ সালে যত সিজারিয়ান হয়েছে তার ৭৭ শতাংশই চিকিৎসাগতভাবে অপ্রয়োজনীয় ছিল। কিন্তু তারপরও এমন সিজারিয়ান হচ্ছে। ২০০৪ থেকে ২০১৬ পর্যন্ত বাংলাদেশে প্রসবকালীন অস্ত্রোপচার ৪ থেকে ৩১ শতাংশ পর্যন্ত বৃদ্ধি পেয়েছে।
সেভ দ্য চিলড্রেন এমন অপ্রয়োজনীয় প্রসবকালীন অস্ত্রোপচার ঠেকাতে ডাক্তারদের ওপর নজরদারির পরামর্শ দিচ্ছে। এমন প্রবণতার জন্য সংস্থাটি আংশিকভাবে বাংলাদেশের চিকিৎসা সেবা খাতের অব্যবস্থাপনাকে দায়ী করেছে।

সংস্থাটি বলছে, কিছু অসাধু চিকিৎসক এর জন্য দায়ী, যাদের কাছে সিজারিয়ান একটি লাভজনক ব্যবসা।
বাংলাদেশে সেভ দ্য চিলড্রেনের ডেপুটি কান্ট্রি ডিরেক্টর এবং নবজাতক ও মাতৃ-স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ ড. ইশতিয়াক মান্নান বলছেন, ‘চিকিৎসক এবং চিকিৎসা সুবিধা আসলে প্রাকৃতিক পদ্ধতিতে না গিয়ে অস্ত্রোপচার করতে অনুপ্রাণিত করে।’

আপনার কি গ্যাস্টিক সমস্যা আছে ? আজই জেনে নিন কি করবেন !

আমাদের দেশে গ্যাস্ট্রিক সমস্যা ছাড়া কোনো লোক খুঁজে পাওয়া যাবেনা। এই সমস্যা মূলত বেশি বেশি ভাজা পোড়া খাওয়ার কারণে প্রধানত হয়।

অনেকের পেট ব্যাথা , বুকের ব্যথা বা বদ হজম এসব খাওয়ার পরে হয়। এই সমস্যা এড়ানোর জন্য, রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগে, আপনাকে নিম্নলিখিত নিয়মগুলির মধ্যে কোন একটি অনুসরণ করলে হবে।কাঁচা আদা অর্ধেক ইঞ্চি পরিমাণ নিন।

তারপর একটু লবণ মাখিয়ে নিন । আদা খাওয়ার কয়েক মিনিটের পর গরম কাপের এক কাপ কুসুম গরম পানি খান । রাতে আর কোন গ্যাস্ট্রিক সমস্যা হবে না । অথবা, একটি চুলায় একটি হাড়িতে এক গ্লাস পানি নিন । এর আগে, এক ইঞ্চি পরিমাণ কাঁচা হলুদ পানিতে নিন । পানি কমপক্ষে পাঁচ মিনিট গরম করুন তারপর এটা নিচে নামিয়ে নিন ঠান্ডা হলে, এটি খেয়ে নিন দেখুন গ্যাস্টিক পালাবে ।

অথবা, যদি উপরের সমস্ত পদ্ধতি একটি সমস্যা হয় তবে এক গ্লাস পানির সাথে সামান্য মধু মিশিয়ে রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগে এটি পান করুন। রাত্রে কখনো পেটে বা বুকে ব্যাথা থাকবে না।গ্যাস্ট্রিক লক্ষণগুলি পেটে জ্বালা, অশান্তি, বমি বমি ভাব, বমিভাব, পেট ক্ষুধা, ক্ষুধা হ্রাস, পেটের ভারী অনুভূতি খাওয়ার পরে বেড়ে যায়। গ্যাস্ট্রিক সমস্যাগুলি খাদ্যের কারণে উত্থিত হয়, সময় মত না খাওয়া, বাসি অথবা ভাজা পোড়া খাওয়া, জাঙ্ক ফুট খাওয়া এবং পর্যাপ্ত পরিমাণে পানির পরিমাণ পান না করা ইত্যাদি । গ্যাস্ট্রিক এর হাত থেকে পরিত্রাণ পেতে কিছু ঘরোয়া উপায় জানি-

আলু রস- ১ গ্যাস্ট্রিক সমস্যা প্রতিরোধ করার সেরা উপায় হল আলু রস ব্যবহার করা।আলুর অ্যালকালাইন উপাদান গ্যাস্ট্রিক সমস্যা লক্ষণ প্রতিরোধ করে। 2. এক বা দুটি আলু গ্রেট করে নিন।এর পর গ্রেট আলু থেকে রস বের করে নিন। তারপর আলু রস সঙ্গে গরম জল মেশান। এই পানীয় ৩ বার একটি দিন পান করুন। প্রতি বার খাবারের অন্তত ৩০ মিনিট আগে আলু জুস খান। কিন্তু অন্তত 2 সপ্তাহের জন্য এই পানীয় পান করুন তবে ভালো ফল পাবেন ।

আদা -1 জেনেটিকালি সংশোধিত উপাদান গ্যাস্ট্রিক সমস্যা প্রতিরোধ করতে সাহায্য করে। আদা বমি সমস্যা হ্রাস করে, বদ হজম , গ্যাস কমে যায়, আপনি আদার রস দিয়ে মধু মিশ্রিত করে পান করতে পারেন । লাঞ্চের আগে এবং ডিনারের খাওয়া ভালো । 3. আদা কুচি করে জলে ভিজিয়ে রাখুন 10 মিনিটের জন্য ঢেকে রাখুন , তারপর চা মত করে একটু মধু যোগ করে পান করুন । বেনিফিট পেতে দুবার বা তিনবার এই পানীয় পান করুন। 4. যদি আপনি চান আস্ত অদা পরিষ্কার করে চিবিয়ে খেতে পারেন ।দই -1 আপনি প্রতিদিন ২/3 চা চামচ দই খেয়ে নিন। দই হ’ল পাইলরি ব্যাকটেরিয়া থেকে আমাদের পেট রক্ষা করে যা গ্যাস্ট্রিক ক্রিয়াকলাপের মূল কারণ। তাছাড়া, দই আমাদের শরীরের অনাক্রম্যতা বৃদ্ধি।

মাত্র তিনটি ঢ্যাড়স নিয়ন্ত্রণে রাখবে আপনার ডায়াবেটিস!

বর্তমান বিশ্বে ক্যান্সারের মতোই ডায়াবেটিস একটি ভয়ঙ্কর মারণ রোগে পরিনত হয়েছে। সম্প্রোতি প্রকাশিত একটি সমীক্ষার রিপোর্টে দাবি করা হয়েছে, ১৯৮০ সালে বিশ্বে ডায়াবেটিসে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা ছিল ১০ কোটি ৮০ লক্ষ। বর্তমানে যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৪২ কোটি ২০ লক্ষ।

ডায়াবেটিস একটি বিপাকীয় প্রক্রিয়া সংক্রান্ত ব্যাধী। ডায়াবেটিসের ফলে দেহ পর্যাপ্ত পরিমাণে ইনসুলিন উৎপাদনে অক্ষম হয়ে পড়ে। ফলে রক্তে সুগারের মাত্রা বেড়ে যায় অস্বাভাবিক হারে। এই রোগের ক্ষেত্রে সবচেয়ে দুর্ভাগ্যজনক বিষয়টি হল, অষুধ, শরীরচর্চা এবং খাওয়া-দাওয়া নিয়ম মেনে করলে ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে থাকে, কিন্তু তা কোনও ভাবেই পুরোপুরি নিরাময় করা সম্ভব নয়।

তবে রোজ রোজ ইনসুলিন ইনজেক্সন না নিয়েও ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে রাখতে পারেন এই ঘরোয়া উপায়ে, একেবারে সামান্য খরচে। প্রতিদিন মাত্র তিনটি ঢ্যাড়সই রক্তে সুগারের মাত্রা নিয়ন্ত্রণে রাখতে পারে। আসুন জেনে নেওয়া যাক কী ভাবে।তিনটি ঢ্যাড়স নিয়ে ভাল করে জলে ধুয়ে নিন।

এর পর সেগুলির সামনের দিকের সামান্য অংশ (ডগার অংশ) এবং বৃন্তের অংশ বাদ দিয়ে দিন।এ বার ঢ্যাড়সগুলি লম্বা করে চিরে দিয়ে সারা রাত এক গ্লাস জলে ভিজিয়ে রাখুন।সকালে উঠে এই ঢ্যাড়স ভেজানো জল খেয়ে নিন।

রক্তে সুগারের মাত্রা কতটা কমল তা হাতেনাতে প্রমাণ পেতে এই জল খাওয়ার আগে ও জল খাওয়ার দু’ ঘণ্টা পরে ব্লাড সুগার পরীক্ষা করুন। তফাতটা নিজেই দেখতে পাবেন। তবে এর সঙ্গে শরীর সুস্থ রাখতে প্রতিদিন অন্তত ৪০ মিনিট স্বাভাবিক গতিতে হাঁটাহাঁটি করুন। প্রয়োজনে চিকিত্সকের পরামর্শ নিন। ডায়াবেটিসের আতঙ্ক কাটিয়ে সুস্থ ভাবে বাঁচুন।

যে কারণে প্রতিদিন এক গ্লাস দুধের মধ্যে খেজুর ভিজিয়ে এক সঙ্গে খাবেন !

রোজ তিনটা করে খেজুর খান। চালিয়ে যান এক সপ্তাহ। তারপর আরও কয়েকটা দিন। অভ্যাস হয়ে গেল তো? এটা আর ছাড়বেন না। ফলটা কী?

আপনি যদি দিনে তিনটা করে খেজুর এক সপ্তাহ খান, তাহলে সাত দিনে আপনার গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা হারিয়ে যাবে। রোগ প্রতিরোধের ক্ষমতা বাড়বে। খাবারের রুচি বাড়বে। আর বাড়াবে আপনার হজমক্ষমতাও। শরীর অবশকারী যেকোনো ধরনের রোগে খেজুর হলো মোক্ষম দাওয়াই।

এ ছাড়া অন্ত্রের ক্ষতিকর ব্যাকটেরিয়ার বিরুদ্ধে যুদ্ধের বিশ্বস্ত ও সেরা সৈনিকের নাম খেজুর। খেজুর কোলন ক্যানসারের ঝুঁকি কমায়। খাদ্য ও পুষ্টি বিভাগের এক গবেষণায় জানা যায়, নিয়মিত খেজুর খেলে কোলন স্বাস্থ্য ভালো থাকে। খেজুর উপকারী ব্যাকটেরিয়ার সংখ্যা বৃদ্ধিতে সহায়ক। এই ব্যাকটেরিয়াগুলো কোলন ক্যানসারের জন্য দায়ী কোষগুলোকে মেরে ফেলে।

যেসব পুরুষ বা মহিলা শারীরিক দুর্বল তারা প্রতিদিন এক গ্লাস দুধের মধ্যে কয়েকটা খেজুর ভিজিয়ে খেতে পারেন এটি পুরুষের যৌন ক্ষমতা বৃদ্ধি করে !

চিকেন পক্স প্রতিরোধ করবে যেসব খাবার

ঋতুরাজ বসন্তে একটি ভয়াবহ রোগ হচ্ছে চিকেন পক্স। চিকেন পক্স অত্যন্ত ছোঁয়াচে রোগ। ঘনিষ্ঠ সংস্পর্শ, হাঁচি-কাশি এবং ব্যবহৃত জিনিসপত্রের মাধ্যমেই এটি বেশি ছড়ায়। তাই চিকেন পক্স থেকে বাঁচতে হলে সচেতন হতে হবে।

অনেকের ধারণা, এই রোগ একবার হলে দ্বিতীয় বার আর হয় না। এটি মোটেও ঠিক নয়। এ রোগ একাধিকবার হতে পারে।

বায়ুবাহিত এই রোগ সহজেই সংক্রমণ ছড়ায়। তাই সর্তকতাই হতে পারে এই রোগ প্রতিরোধের অন্যকম উপায়। কারণ রোগ হওয়ার চেয়ে রোগ প্রতিরোধ ভালো। কিছু খাবার আছে যা খেলে চিকেন পক্স প্রতিরোধ করা যায়।আসুন জেনে নেই এমনি কিছু খাবার-
নিমপাতা
বিভিন্ন ধরনের রোগ নিরাময়ে নিমপাতার জুড়ি নেই। গোসলের সময় হালকা গরম পানি নিমপাতা দিয়ে গোসল করে অসুক ভালো হয়ে যায়। ভ্যারিসেল্লা ভাইরাসেরর আক্রমণে সাধারণ বসন্ত রোগ হয়। নিমপাতা জীবাণুনাশক এ ভ্যারিসেল্লা ভাইরাসের সঙ্গে লড়তে সাহায্য করে।

সজনে ফুল
সজনে দেখতে সবুজ রঙের লম্বা আকৃতির থাকে। আর ফুলগুলো হয় হলুদ রঙের । সজনের কচিপাতা, ফুল, ও সজনে স্বাস্থ্যের জন্য উপকারি। সজনের তরকারি খেতে খুবই সুস্বাদু। খাবার সঙ্গে ভর্তা করে খেতে পারেন সজনে ফুল। শরীরে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে সজনে ফুল অত্যন্ত উপকারী। তাই প্রতিদিন ভাতের সঙ্গে খেতে পারেন।
বাঁধাকপি

শীত শেষ হলেও বাজারে পাওয়া যায় বাঁধাকপি। থাইরয়েডের সমস্যা না থাকলে খেতে পারেন বাঁধাকপি। বাঁধাকপি রয়েছে ভিটামিন, মিনারেল যা বায়ুবাহিত প্রতিরোধ করে।
গাজর
বাজারে সারা বছরই গাজর পাওয়া যায়। গাজর বিটা ক্যারোটিন অক্সিড্যান্ট হিসাবে কাজ করে ও সংক্রমণের সঙ্গে লড়তে সাহায্য করে।
টকদই
টকদই শরীরের টক্সিন দূর যা শরীর পরিষ্কার করে রোগ প্রতিরোধে সক্ষম করে। দইয়ের প্রোবায়োটিক উপাদান শরীরে সংক্রমণ প্রতিরোধ করে।

বিয়ের পরেও শারীরিক ভাবে সবল থাকতে ৭টি খাবার

পুরুষ মানুষ নাকি দুই প্রকার জীবিত আর বিবাহিত। বিয়ের পর প্রত্যেকের জীবনেই শারিরিক পরিবর্তন দেখা দেয়। এটি মূলত হরমোনজনিত কারণে হয়ে থাকে। এ কারণে শরীর ফিট রাখতে খাদ্যাভাসে পরিবর্তন আনার পরামর্শ দিয়েছেন পুষ্টিবিদেরা।

বিষয়টি নিয়ে চিকিৎসকরা বলছেন, বিবাহিত জীবনে ফিট থাকতে হলে আপনাকে দৈনন্দিন খাবারের প্রতি পূর্ণ মনোযোগী হতে হবে। কারণ সুখী দাম্পত্য জীবনের জন্য স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে ভালো বোঝাপড়া থাকার পাশাপাশি দরকার স্বাস্থ্যকর দৈহিক সম্পর্ক। প্রাকৃতিকভাবে দৈহিক শক্তি বর্ধক খাদ্যই অনেক বেশি কার্যকরী হিসেবে বিবেচিত হচ্ছে আজকাল। তাই বিয়ের পরও সুস্থ থাকতে কিছু নিয়ম বা খাদ্যাভ্যাস মেনে চলা জরুরী।

কেননা, বিয়ের পর শারীরিক-মানসিক নানা পরিবর্তন আসে। খাদ্যাভাস ও পরিবেশের পরিবর্তন, পরিবর্তিত জীবনযাত্রাসহ অনেক কিছই এর জন্য দায়ী। এ ছাড়া দীর্ঘদিন পর ঠিকানা বদলের কারণে মানসিক পরিবর্তনও আসে। তবে হতাশ হবেন না। বিয়ের পরও শরীর ফিট রাখতে কিছু বিশেষ খাদ্যাভ্যাসের ওপর গুরুত্ব দেওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন পুষ্টিবিদরা।
দেখে নিন কী কী খাবার খাবেন:

কলা :

কলায় রয়েছে ভিটামিন এ, বি, সি ও পটাশিয়াম। ভিটামিন বি ও পটাশিয়াম যৌনরস উৎপাদন বাড়ায়। এ ছাড়া কলায় রয়েছে ব্রোমেলিয়ান যা শরীরে টেস্টোস্টেরনের মাত্রা বাড়াতে সহায়ক। শুধু তাই নয়, কলায় রয়েছে প্রচুর পরিমাণ শর্করা যা দেহের শক্তি বৃদ্ধি করে। তাই, দীর্ঘসময় ধরে দৈহিক মিলনে লিপ্ত হলেও ক্লান্তি আসবে না।

ডিম:

শরীরের দুর্বলতা এবং ক্লান্তি দূর করে দারুণ সহায়ক ডিম। তাই প্রতিদিনের খাদ্যতালিকায় ডিম অবশ্যই রাখতে হবে। প্রতিদিন সকালে, না পারেন সপ্তাহে অন্তত ৫ দিন ১টি করে ডিম সিদ্ধ করে খান। এতে দৈহিক দুর্বলতার সমাধান হবে।

দুধ:

ফ্যাট জাতীয় খাবার এড়িয়ে চলতে চান অনেকে। কেউ-কেউ মনে করেন দুধ মোটেই শরীরের পক্ষে ভালো নয়। প্রতিদিন মাখন তোলা দুধ খান। এতে প্রয়োজনীয় খনিজ ও ভিটামিন বিদ্যমান। কিন্তু যদি শরীরে দৈহিক শক্তির হরমোন তৈরি হওয়ার পরিমাণ বাড়াতে চান তাহলে প্রচুর পরিমাণে ফ্যাট জাতীয় খাবারের দরকার। তবে সবগুলোকে হতে হবে প্রাকৃতিক এবং স্যাচুরেটেড ফ্যাট।

মধু:
সকালে গরম জলের সঙ্গে পাতিলেবুর রস ও মধু খান। এতে ত্বকও ভালো থাকবে। তাই দৈহিক শক্তি বাড়াতে প্রতি সপ্তাহে অন্তত ৩/৪ দিন ১ গ্লাস গরম পানিতে ১ চামচ খাঁটি মধু মিশিয়ে পান করুন।রসুন:
ক্লান্তি দূর করে রসুন। যৌন উদ্দীপনা ধরে রাখে এবং শরীরে রক্ত প্রবাহ ঠিক রাখে এই রসুন। রসুনে রয়েছে এলিসিন নামের উপাদান যা দৈহিক ইন্দ্রিয়গুলোতে রক্তের প্রবাহ বাড়িয়ে দেয়।

কফি:
কফির মধ্যে থাকা ক্যাফেইন শারীরিক মিলনের ইচ্ছা জাগায়। তাই কফি অবশ্যই পান করুন। ব্ল্যাক কফি পানে অধিক সুফল পাবেন। কফিতে যে ক্যাফেইন থাকে তা মিলনের মুড কার্যকর রাখে।
চকোলেট :
প্রেমর সঙ্গে চকোলেটের অন্য রকম সম্পর্ক রয়েছে। তাই চকোলেট খান এবং ভালোবেসে খান। এগুলো মিলনের উত্তেজনা ও দেহে শক্তির মাত্রা বাড়াতে সহায়ক। পিইএ’র সঙ্গে অ্যানান্ডামাইড মিলে অরগাজমে পৌঁছাতে সহায়তা করে।

স্বাস্থ্য দিবসে ডা. দেবী শেঠীর ২৩ পরামর্শ, সবাই জেনে রাখুন

আজ বিশ্ব স্বাস্থ্য দিবস। সারাদেশে পালিত হচ্ছে দিবসটি। স্বাস্থ্য ঠিক রাখতে প্রথমেই আমাদের হার্টকে সুস্থ রাখতে হয়। সম্প্রতি বাংলাদেশে বিশেষভাবে আলোচিত হয়েছেন হৃদরোগ বিশেষজ্ঞ ও সার্জন ডা. দেবী শেঠী। ভারতের নারায়ণা ইনস্টিটিউট অব কার্ডিয়াক সায়েন্সেসের প্রতিষ্ঠাতা তিনি।

হার্ট সুস্থ রাখতে কিছু পরামর্শ দিয়েছেন ভারতের এই চিকিৎসক। স্বাস্থ্য দিবস উপলক্ষে বিডিভিউ২৪ডটকমের পাঠকদের জন্য পরামর্শগুলো তুলে ধরা হলো-১. খাবারে আমিষের পরিমাণ বাড়াতে হবে।
২. শর্করা এবং চর্বিজাত খাবার কম খেতে হবে।
৩. একটানা বেশি সময় বসে থাকা যাবে না।
৪. সপ্তাহে অন্তত ৫ দিন আধাঘণ্টা করে হাঁটতে হবে।
৫. ধূমপান পরিহার করতে হবে।
৬. ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখতে হবে।
৭. রক্তচাপ এবং সুগারের পরিমাণ নিয়ন্ত্রণে রাখতে হবে।

৮. শাক জাতীয় নয়, এমন খাবার খাওয়া কমাতে হবে।
৯. ত্রিশোর্ধ্ব সবার নিয়মিত স্বাস্থ্য পরীক্ষা করা উচিত।
১০. জীবনে সবকিছু নিখুঁত হবে, এমন ভাবার কারণ নেই।
১১. জীবনের প্রতি দৃষ্টিভঙ্গির পরিবর্তন করতে হবে।
১২. জগিং করার চেয়ে হাঁটা ভালো।
১৩. জগিং করলে মানুষ দ্রুত ক্লান্ত হয়ে যায় এবং জয়েন্টে ব্যথা হয়।
১৪. অনিয়মিত খাদ্যাভ্যাস পরিহার করতে হবে।
১৫. হৃদযন্ত্রের জন্য সবচেয়ে ভালো খাবার ফল এবং সবজি।
১৬. হৃদযন্ত্রের জন্য যে কোন তেলই খারাপ।
১৭. নিয়মিত রক্ত পরীক্ষা করতে হবে।
১৮. সুগার এবং কোলেস্টেরলের স্বাভাবিক মাত্রা সম্পর্কে নিশ্চিত হতে হবে।
১৯. রক্তচাপ পরিমাপও জরুরি।

২০. হার্ট অ্যাটাক হলে রোগিকে প্রথমে শুইয়ে দিতে হবে।
২১. জিহ্বার নিচে একটি অ্যাসপিরিন ট্যাবলেট রাখতে হবে।
২২. অ্যাসপিরিনের পাশাপাশি একটি সরবিট্রেট ট্যাবলেটও রাখতে হবে।
৩. দ্রুত হাসপাতালে নেওয়ার ব্যবস্থা করতে হবে।