খাবার পরিবেশন করছেন সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট!

সম্প্রতি সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার একটি ভিডিও ব্যাপক হারে ভাইরাল হয়েছে সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে।সেই ভিডিওতে ওবামাকে খাবার পরিবেশন করতে দেখা যায়। শুধু সাবেক প্রেসিডেন্টই নন,তার স্ত্রী মিশেল ওবামাকেও ওই ভিডিওতে দেখা যায়। যুক্তরাষ্ট্রের ৪৪ তম প্রেসিডেন্ট ছিলেন বারাক

ওবামা। ওয়াশিংটনে থাকেন তিনি।এদিকে বারাক ওবামার ওই ভিডিওর ক্যাপশনে লেখা রয়েছে, ‘বছরের-পর-বছর দেশকে সেবা করার জন্য ওবামা ও তার পরিবারকে ধন্যবাদ।’আসলে ভিডিওটি গত ২০১৬ সালের। তখন বারাক ওবামা মার্কিন প্রেসিডেন্ট ছিলেন। ওই সময় তিনি এবংতার পরিবার সেনার অবসর হোমে পৌঁছে যান। সাবেক সেনাদের ধন্যবাদ জানাতে সেখানে তাদের খাবার পরিবেশন করেন ওবামা-মিশেল।ওই ভিডিওটি যদি খুব মন দিয়ে দেখা যায়,

তাহলেই স্পষ্ট দেখতে পাওয়া যাবে, দেয়ালের উপর লেখা,সশস্ত্র বাহিনী অবসর হোম এবং রয়েছে লোগোও। ভিডিওটি দেখার পর অনেকের মনেই প্রশ্ন
উঠছে, মার্কিন প্রেসিডেন্ট ছিলেন যে ব্যক্তি তিনি আবার খাবার কেন পরিবেশন করছেন! তবে ভিডিওটি দেখলেই আর সেই প্রশ্ন থাকবে না।

বিশ্বশান্তি ও মানবকল্যাণের পথ প্রদর্শক মহানবী (সা.):- মমতা ব্যানার্জী

মানবজাতির শিরোমণি মহানবী হজরত মুহাম্মদ (সা.)-এর জন্ম ও ওফাত দিন উপলক্ষে মাত্র কিছুদিন আগেই পালিত হয়েছে পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী (সা.)।
৫৭০ খ্রিস্টাব্দের ১২ রবিউল আউয়াল ইসলামের শেষ নবী (সা.) আরবের মরু প্রান্তরে মা আমিনার কোল আলো করে জন্মগ্রহণ করেন।৬৩২ খ্রিস্টাব্দের এই

দিনে মাত্র ৬৩ বছর বয়সে তিনি ইন্তেকাল করেন। দিনটিকে পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী বা সিরাতুন্নবী (সা.) হিসেবে পালন করেন সারা বিশ্বের মুসলমানরা।
এ দিনটি উপলক্ষে সবাইকে শুভেচ্ছা জানিয়ে ভারতের পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় একটি পোস্টার করেছেন।পোস্টারে লেখা রয়েছে, ‘বিশ্বশান্তি, ন্যায় ও মানবকল্যাণের পথ প্রদর্শক মহানবী হযরত মুহাম্মদ (সা.) এর জন্মদিবস। ঈদ-এ-মিলাদুন-নবী উপলক্ষে সকলকে জানাই আন্তরিক

শুভেচ্ছা ও মুবারকবাদ।ঈদে মিলাদুন্নবী (সা.) নিয়ে মমতার এই পোস্টারটি ইতিমধ্যে সামাজিক যোগাযোগের বিভিন্ন মাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে। অনেকে তার উদ্যোগকে প্রশংসা করেছেন।ফেসবুকে আক্কেল মিয়া নামের একজন লিখেছেন, ‘ভালো উদ্যোগ…’। রেদওয়ান লস্কর তুহিন লিখেছেন, ‘হজের মৌসুমে কলকাতায় তৃণমূলের নেতারা অনেকগুলো তোরণ বানান হাজিদের শুভেচ্ছা জানিয়ে।’

হিন্দু হয়েও বাবরি মসজিদের পক্ষে লড়ছেন রাজীব ধাওয়ান!

নিজে হিন্দু ধর্মাবলম্বী হলেও নিজের ধর্মের মানুষদের বিরুদ্ধে গিয়ে মুসলিমদের পক্ষ নিয়ে বাবরি মামলায় ইনসাফ পাইয়ে দেয়ার জন্য লড়েছেন মুসলিম পক্ষের হয়ে প্রধান আইনজীবীরাজীব ধাওয়ান। পেয়েছেন খুনের হুমকি। আদালতে ও আদালতের বাইরেও ছিল প্রাণ যাওয়ার ভয়। কিন্তু দমে যাননি ৭৪ বছরের রাজীব ধাওয়ান।৯ নভেম্বর সুপ্রিম কোর্ট জানিয়ে দিয়েছে, বাবরি মসজিদের জায়গায় হবে রামমন্দির। মুসলিমদের জন্য অয্যোধ্যার অন্যত্র ৫ একর

জমি দেয়া হবে।চার দশকের বেশি সময় ধরে বাবরি মামলার সঙ্গে থাকা আইনজীবী জাফরইয়াব জিলানিও মুগ্ধ ধাওয়ানের প্রতি। শুনানির শেষ দিন মুসলিম পক্ষের আইনজীবী ধাওয়ান অযোধ্যারবিতর্কিত স্থানের একটি ম্যাপ ছিঁড়ে ফেলেন। এটা নিয়ে মিডিয়ায় বেশ হইচই হয়। সাবেক আইপিএস অফিসার কিশোর কুনালের লেখা বই ‘অযোধ্যা রিভিজিটেড’- এ ছিল এই ম্যাপটি।এ নিয়ে জিলানি বলেন, আইনজীবী ধাওয়ান প্রধান বিচারপতি রঞ্জন গগৈর অনুমতি নিয়ে
এটি ছিঁড়েছিলেন। চলমান মামলার শুনানির সঙ্গে এই ম্যাপের কোনো সম্পর্ক ছিল না। তাই হয়তো প্রধান বিচারপতি ছেঁড়ার নির্দেশ দেন। এক শ্রেণির

মিডিয়া এটি নিয়ে অহেতুক পানি ঘোলা করছে মন্দির নিয়ে মানুষের কাছ থেকে সহানুভূতি আদায় করার জন্য।রাজীব ধাওয়ান বরাবরই যুক্তি ও প্রমাণের সঙ্গে সওয়াল করে এসেছেন, বাবরি শরিয়া অনুযায়ী একটি মসজিদ। ভেঙে ফেলেছে বলে ওটার মসজিদ চরিত্র নষ্ট হয়ে যায় না। যেটা একবার
মসজিদ, সেটা সবসময়ই মসজিদ। সেটা যদি পরিত্যক্ত হয়, কিছু দিন নামায বন্ধ থাকে তবুও সেটা অন্য কিছু হয়ে যায় না, মসজিদই থাকে।
তিনি প্রশ্ন তুলেছেন রামের জন্মস্থান নিয়ে বিপক্ষের দলিল সম্পর্কে। রামের জন্মস্থান যে ওই বিতর্কিত স্থানেই, তার প্রত্যক্ষ প্রমাণের দাবি তুলেছিলেন

ধাওয়ান।রায় নিয়ে তিনি অপেক্ষায় ছিলেন। ভেবেছিলেন, তিনিই জিতবেন। কিন্তু, তাকে হতাশ হতে হয় রায়ে।নতুন সরকার আসে, আর ইতিহাস পাল্টানোর খেলা কেন শুরু হয়ে যায়, প্রশ্ন তুলেছিলেন এই লড়াকু আইনজীবী।রাজীব ধাওয়ান বেশ কিছু বইও লিখেছেন আইন নিয়ে। এর মধ্যে Juristic Techniques in the Supreme Court of India 1950-1971 in Some Selected Areas of Public andPersonal Law, The Supreme Court of India and parliamentary sovereignty: a critique of its approach to the recent constitutional crisis ইত্যাদিউল্লেখযোগ্য। সারা জীবন

ইনসাফের জন্য লড়াই করেছেন। কিন্তু শেষ পর্বে এসে হয়তো তাকে হতাশ হতে হয়েছে। তিনি হেরে গিয়েছেন। কিন্তু, ভারতের গৌরবময় সমন্বয়বাদী সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য হারেনি। বাবরি মসজিদের জন্য লড়েছিলেন রাজীব ধাওয়ান নামের এক হিন্দু- ইতিহাস সেটা অবশ্যই মনে রাখবে।

পাখির ধাক্কায় ভারতের যুদ্ধবিমান বি ধ্বস্ত

পাখির ধা ক্কায় ট্রেনিংয়ের সময় ভারতের যুদ্ধবিমান বি ধ্ব স্ত হয়েছে। সে সময় বিমান থেকে ঝাঁ প দিয়ে নিজেকে র ক্ষা করেন পাইলট ক্যাপ্টেন এম শেওখাণ্ড।) গোয়া শহরে পাখির ধা ক্কায় মিগ ২৯কে এয়ারক্র্যাফটের ইঞ্জিনে আ গুন ধরে যায় বলে জানিয়েছে ভারতীয় গণমাধ্যম এনডিটিভি।প্রতিবেদনে বলা হয়, ভারতীয় নৌবাহিনীর এক মুখপাত্র এএনআইকে জানিয়েছেন, যু দ্ধবিমানটি গোয়া থেকে আকাশে ওড়ে। সেইসময় পাখির স ঙ্গে সং ঘ র্ষহয়।

তারপর ডানদিকের ইঞ্জিনে আ গুন লেগে যায়।গত কয়েক বছরে বেশ কয়েকবার ভে ঙে পড়েছে দেশটির মিগ যু দ্ধবিমান। ৮৭২টি বিমানের মধ্যে অ র্ধেকেরও বেশি হয়েছে ন ষ্ট!কমপক্ষে ১১০টি মিগ-২১ যুদ্ধবিমান ২০০৬ সালে মিগ-২১ বাইসনে আপগ্রেড করে ভারত।নভেম্বর পর্যন্ত চলতি বছরে এই ধরনের দু র্ঘটনায়
ভারত মোট ১১টি এয়ারক্রাফট হারিয়েছে। এর মধ্যে শুধু মিগ নয়, রয়েছে মিরাজ-২০০০, মিগ-২৭, হক জেটও।
সূত্র: এনডিটিভি

নজিরবিহীন বন্যায় ডুবছে ইতালির ভেনিস, জরুরি অবস্থা জারি

৫০ বছরের মধ্যে সবচেয়ে ভয়াবহ বন্যার কবলে পড়েছে ইতালির ভেনিস-ইতালির রাজধানী ভেনিসে জরুরি অবস্থা জারি করা হয়েছে। গত কয়েকদিন ধরে জোয়ারের পানিতে পর্যটন শহরটি গত ৫০ বছরের মধ্যে সবচেয়ে ভয়াবহ বন্যার কবলে পড়েছে।দোকানপাট, চার্চ ও বাড়ি-ঘরে ঢুকেছে বন্যার পানি। পুরো শহর এক অনাকাঙ্খিত পরিস্থিতির মুখে পড়ায় জরুরি অবস্থা জারির সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার।দেশটির প্রধানমন্ত্রী গুসেপ্পে কন্তে বলেছেন, তার মন্ত্রিসভা

ভেনিসে জরুরি অবস্থা জারির সিদ্ধান্তে অনুমোদন দিয়েছে। এছাড়াও গত মঙ্গলবার থেকে বন্যা শুরুর পর পুরো শহরযেভাবে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে তা মোকাবিলায় জরুরি পদক্ষেপ হিসেবে সরকারের তরফ থেকে ২০ মিলিয়ন ইউরো তহবিল ছাড়েরও অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা।গোটা বিশ্বের পর্যটকদের জন্য সবচেয়ে আকর্ষনীয় শহর ভেনিসে জোয়ারের পানি প্রবেশ করতে শুরু করে গত মঙ্গলবার থেকে।তারপর এখন পর্যন্ত শহরের প্রায় আশি শতাংশ এলাকা
বন্যায় নিমজ্জিত। দেশটির জোয়ার পর্যবেক্ষণ কেন্দ্রের হিসাব মতে, এবার জোয়ারের পানি ১ দশমিক ৮৭ মিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।জোয়ারের পানির

উচ্চতা এত বেশি বেড়ে যাওয়ার জন্য জলবায়ু পরিবর্তনকে দায়ী করে ভেনিসের মেয়র লুইজি ব্রুগনারো বলেছেন, এ বন্যা ভেনিসের বুকে ‘স্থায়ী চিহ্ন’ রেখে যাবে।এদিকে প্রধানমন্ত্রী গুসেপ্পে কন্তে বলেছেন, এবারের এই বন্যা ‘আমাদের প্রাণকেন্দ্রের’ জন্য বিশাল বড় এক আঘাত।পানির উচ্চতা রেকর্ড মাত্রায় উপরে ওঠায় পানিতে নিমজ্জিত শহরের বেশিরভাগ ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান এখন বন্ধ। শহরের মানুষের নিত্যকার আড্ডাস্থল ক্যাফেগুলোও বন্ধ। তবে কিছুমানুষকে হাঁটু পানিতে দাঁড়িয়ে কফি খেতে দেখা গেছে। অনেক কাঁচামাল পানিতে ডুবে নষ্ট হয়েছে। পানিতে ভেসে গেছে রেস্তোরাঁগুলোর চেয়ার-টেবিল।সমুদ্রনগরী

হিসেবে পরিচিত ভেনিস সাগরের পানির ওপর গড়ে ওঠা পৃথিবীর একমাত্র ভাসমান শহর। ইতালির এই রাজধানী শহরে রয়েছে অসংখ্য ক্যানেল বা খাল।
তাই শহরটির মানুষের যাতায়াতের অন্যতম মাধ্যম নৌযান। প্রতি বছর সাড়ে তিনকোটিরও বেশি পর্যটক সমাগমের শহরের এই বন্যায় বিপুল আর্থিক ক্ষতির মুখে পড়বে দেশটি।

প্রতিদিন ৮ কোটি টাকা খরচ করলে বিল গেটসের নিঃস্ব হতে সময় লাগবে ২১৮ বছর

একজন ধনী ব্যক্তি যদি প্রতিদিন ১ মিলিয়ন ডলার বা ৮ কোটি টাকা খরচ করেন, তাহলে তার নিঃ স্ব হতে কত দিন লাগবে? এর জবাব হিসাব-নি কাশ করে তারাই বলতে পারবেন। কিন্তু মাইক্রোসফটের প্র তিষ্ঠাতা বিল গেটস যদি প্রতিদিন ৮ কোটি টাকা খরচ করেন, তবে তার যাবতীয় অর্ধ ফুরোতে ২১৮ বছর লেগে যাবে।অক্সফামের এক গবেষণায় এ হিসাব দেওয়া হয়েছে যা গা র্ডিয়ানে প্র কাশ করা হয়। তার ৭৯ বিলিয়ন ডলারের সম্প দ ফু রো নোর এমনই হিসাব

পাওয়া গেছে। ওদিকে বিশ্বের আরেক শী র্ষ ধনী মেক্সিকান ব্যবসায়ী কার্সোল স্লি মের সময় লাগবে ২২০ বছর। বিনিয়োগ গুরু এ হারে খ রচ ক রতে থাকলে ১৬৯ বছরে শূ ন্য হবে তার ব্যাংক অ্যাকাউন্ট।তবে এসব অ দ্ভু ত হিসাব বিলিয়নেয়ারদের ক্ষে ত্রেই করা যায়। আর বিশ্বে বিগত অর্থনৈতিক মন্দার পর বিলিয়নেয়ারের সংখ্যা দ্বি গুণ হয়েছে।অক্সফাম জানায়, ২০০৯ সালে মার্চে ৭৯৩ জন বিলিয়নেয়ারের সংখ্যাটি ২০১৪ সালের মধ্যে ১৬৪৫ জনে দাঁড়ায়। এই

বিলিয়নেয়াররা তাদের মোট অর্থের ৫.৩ শতাংশ পরিমাণ প্রতিদিন ইন্টারেস্ট হিসাবেই পান। এই হারে বিল গেটস প্রতিদিন ১১.৫ মিলিয়ন ডলার কেবল
ইন্টারেস্ট থেকেই আয় করেন।বিলিয়নেয়ারদের এই বিপুল পরিমাণ অর্থের কোনো শেষ নেই। বিশ্বের নাম করা ৮৫ জন ধনীর সম্পদের পরিমাণ যত, এই ধরণীর অর্ধেক দরিদ্র মানুষের মোট সম্পদের পরিমাণ তত।

নির্মিত হচ্ছে বিশ্বের তৃতীয় বৃহত্তম মসজিদ, নামাজ আদায় করতে পারবে ৮ লাখ লোক

মক্কার মসজিদে হারাম ও মদিনার মসজিদে নববির পর বিশ্বের তৃতীয় বৃহত্তম এক বিশাল মসজিদ নির্মাণ করছে পাকিস্তানের বাহরিয়া টাউন। বিশ্বের তৃতীয় বৃহত্তম এ বিশাল মসজিদটি বর্তমানে নির্মাণাধীন।পাকিস্তানের করাচি শহরের ‘বাহরিয়া টাউন’-এ নির্মিত হচ্ছে এ মসজিদ। মসজিদে হারাম ও মসজিদে

নববির পর এটিই হবে বিশ্বের সবচেয়ে বড় মসজিদ। এখানে সঙ্গে ৮ লাখ লোক নামাজ আদায় করতে পারবে।‘বাহরিয়া টাউন’ রিয়াল স্টেট কোম্পানি তাদের অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে এ তথ্য প্রকাশ করেছে। তারা বলেছে-‘মক্কার মসজিদে হারাম এবং মদিনার মসজিদে নববিই হলো বিশ্বের প্রথম ও দ্বিতীয় বৃহত্তম মসজিদ। আর সম্মান ও মর্যাদায় বিশ্বের অন্য কোনো মসজিদই এ দুই পবিত্র মসজিদে হারাম ও মসজিদে নববির সমকক্ষ নয়। আল্লাহর ইচ্ছায়

আমরা পবিত্র দুই মসজিদের পর পাকিস্তানের করাচির ‘বাহরিয়া টাউন’-এ বিশ্বের তৃতীয় বৃহত্তম মসজিদ নির্মাণ করছি।’করাচির ‘বাহরিয়া টাউন’-এ নির্মিত এ বিশাল মসজিদের সঙ্গে থাকবে আন্তর্জাতিক ইসলামি ইউনিভার্সিটি, ইসলামিক সেন্টার, মিউজিয়াম এবং গবেষণা কেন্দ্র।

পাকিস্তানে বজ্রপাতে ২৭ জনের প্রা ণহা নি , জরুরি অবস্থা

পাকিস্তানের সিন্ধুপ্রদেশের মরুঅঞ্চলে প্রবল ব জ্রপা তে ২৭ জনের প্রা ণহা নি হয়েছে। আ হত হয়েছেন আরও বেশ কিছু মানুষ। শুক্রবার (১৫ নভেম্বর) আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম থেকে এ ত থ্য জানা যায়।খবরে বলা হয়, বুধবার (১৩ নভেম্বর) রাত থেকে শুরু করে বৃহস্পতিবার (১৪ নভেম্বর) সারা দিনই
প্রদেশের থা রপা রকার জেলার মিঠি, চাচি, রাম সিং ষড় গ্রাম, ইসলামকোট, নাগারপারকার এলাকায় ভারী বৃষ্টিপাত হয়। এসময় বিভিন্ন এলাকায় ব জ্রপাতে

২৬ জনের মৃ ত্যু হয়।শুধু মানুষ নয়, ব জ্রপা তে মা রা গেছে বেশ কিছু গবা দি পশু ও অন্যান্য প্রা ণী।উ দ্ধারক র্মীরা জানায়, বর্তমানে মিঠির জেলা হাসপাতালসহ বিভিন্ন হাসপাতালে আ হতদের চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। বুধবার রাত থেকে অন্তত ১৬ জনেরও বেশি আ হত মানুষকে চিকিৎসাকেন্দ্রগুলোতে ভর্তি করা হয়েছে। এছাড়া অ ন্তত ১০টি ম রদে হ উ দ্ধা র করে বিভিন্ন হাসপাতালে নেওয়া হয়েছে।এদিকে ব জ্রপা তে বিপুল সংখ্যক হ তাহ তের ঘ টনায় বৃহস্পতিবার জ রুরি অ বস্থা

ঘো ষণা করেছে থা রপা রকার জেলা প্রশাসন। পরি স্থি তি সা মাল দিতে সরকারি সব কর্মকর্তা-কর্মচারীদের ছুটি বা তি ল করা হয়েছে।পাকিস্তান আবহাওয়া বিভাগের জানিয়েছে, সিন্ধুসহ দেশের নি ম্নাঞ্চলের ওপর দিয়ে বর্তমানে পশ্চিমা বা য়ুপ্র বাহ ব য়ে যাচ্ছে। এর ফলেই এরকম ভা রী বৃষ্টিপা তের ঘ টনা ঘ টছে।

ভিয়েতনামে আঘাত হানার পর;মিয়ানমারের দিকে প্রবল ঘূর্ণিঝড় ‘নাকরি’

দক্ষিণ চীন সাগরে সৃষ্ট প্রবল ঘূর্ণিঝড় নাকরি ভিয়েতনামে আ ঘা ত হেনেছে। এতে অন্তত দু’জনের প্রা ণহা নি ও চার শতাধিক বাড়িঘর ক্ষ তিগ্র স্ত হয়েছে। বৃহস্পতিবার (১৪ নভেম্বর) স্থানীয় গণমাধ্যমের খবরে এ তথ্য জানানো হয়।ভিয়েতনামে আ ঘা ত হানার পর প্রবল এ ঘূর্ণিঝড় দক্ষিণ চীন সাগর থেকে

মিয়ানমারের দক্ষিণাঞ্চলের দিকে অ গ্র সর হচ্ছে। ভিয়েতনামের আবহাওয়া দ ফতর বলছে, ঘূর্ণিঝড় নাকরির তা ণ্ডবে ক মপক্ষে ৪৫০টি বাড়ি ক্ষ তিগ্র স্ত হয়েছে। এতে দু’জনের প্রা ণহা নি ও আরও একজন নিখোঁ জ রয়েছেন।স্থা নীয় সরকারি কর্মকর্তারা বলেছেন, ঘূ র্ণিঝ ড় নাকরির তা ণ্ড বে প্রায় ১ হাজার হেক্টর জমির ফসল ন ষ্ট হয়েছে। দেশের বিভিন্ন অঞ্চলের সড়ক পানির নিচে তলিয়ে গেছে।নাকরি ভ য়াল রূ প জানতে ৮ নভেম্বর থেকে স্যটেলাইট ম্যাপিং সিস্টেম চালু

করে ইউরোপীয় কমিশন। আগামী ২৪ ঘণ্টায় ভিয়েতনামের পূর্ব ও উত্তর ভাগে ব জ্রবি দ্যুৎ-সহ ভা রী বৃষ্টিপাতের পূ র্বাভাস দিয়েছে সেখানকার আবহাওয়া দফতর।দক্ষিণ থাইল্যান্ড অতিক্র ম করে মিয়ানমারের দক্ষিণাঞ্চলে এসে পৌঁ ছবে এ ঝড়। মিয়ানমার পর্যন্ত এসে পৌঁছালেও এ ঝড়ের ল ণ্ডভ ণ্ড করার শ ক্তি আর অবশি ষ্ট থাকবে না। তবে ভা রী বৃষ্টিপাত হতে পারে। মিয়ানমারের পর বঙ্গোপসাগরের দিকে ধে য়ে আসবে এ ঘূর্ণিঝড়।আবহাওয়াবিদরা বলছেন,

বঙ্গোপসাগর থেকে ফের শ ক্তি স ঞ্চয় করতে পারে শ ক্তি হা রিয়ে দুর্ব ল হতে যাওয়া নাকরি। আবহাওয়াবিদদের আশ ঙ্কা সত্যি হলে তা আ ছ ড়ে পড়তে পারে ভারতের অ ন্ধ্রপ্রদেশ ও ওড়িশায়। কিন্তু এ ঝ ড় কবে ভারতে এসে পৌঁ ছাবে, সে সম্প র্কে কোনো তথ্য নয়াদিল্লির আবহাওয়া দফতর জানাতে পারেনি।

উখিয়ায় চলন্ত গাড়িতে চালকের মৃ,ত্যু!

মৃ**ত্যু কখন কিভাবে কার দরজায় এসে কড়া নাড়ে তা কেউ বলতে পারে না। সত্যিই তো কার কখন কি হয়ে যায়, কখন কোন দুর্ঘটনা ঘটে যায়,
সেটা কেউ বলতে পারবে না। শুধু দু*র্ঘ*টনাই নয়, যেকোন ঘটনাই কোন ভালো ঘটনাও হঠাত করেই হতে পারে এবং এই ঘটনার জন্যে কাউকেই দোষ দেওয়া যায় না।হুট করে কারুর মৃ**ত্যু, কোন দু*র্ঘটনা, কোন কারুর প্রোমোশন ইত্যাদি আগে জানান দিয়ে আসে না।ধরুন আপনার অফিসে আপনার

প্রমোশন হবে কোন একদিন, আপনি তো আর সেটা আগে থেকে জানবেন না, যদি না আপনাকে সব কিছু জানানো হয়।রাস্তা পার হওয়ার সময় কোন গাড়ি এসে *ধাক্কা মারবে, সেটা তো আর জানিয়ে হবে না। যদি না আপনি ইচ্ছে করে গাড়ি আসার মুহূর্তেই রাস্তা পার হন। কিন্তু মৃ**ত্যু? মৃ**ত্যু কি?
ওই মু*হূর্তে কি হয়? তার পরই বা কি হয়? এসব আমাদের অজানা, সুতরাং আমরা এরম কোন একটা ধারণা করতে পারিনা যে মৃ**ত্যুও জানিয়েও আসে।
তেমনি এক ঘটনা ঘটেছে আজ কক্সবাজারের ব্যস্ততম নগরী উখিয়ার কোটবাজারে। প্রতিদিনের মতই তিনি আজ গাড়ি নিয়ে বেরিয়েছিলেন,অর্ধশত যাত্রী

নিয়ে কক্সবাজার থেকে যাত্রী নিয়ে টেকনাফের উর্দ্দেশে যাচ্ছিলেন কিন্তু হঠাৎ এমন এক ভ*য়*ঙ্কর পরিস্থিতির সম্মুখীন হতে হবে সেটা কেউ কল্পনাতেও আনে নি।এই ব্যাক্তির নাম জহির আহমদ, এক নামে সবাই জহির ড্রাই*ভার বলে ডাকেন। উখিয়া উপজেলার পালংখালীর বাসিন্দা উনি।কাজে বেরিয়েছিলেন অন্যান্য দিনের মতই। প্রায় ২৫ কিমি গাড়ি চালিয়ে সকাল ৯ টা নাগাদ যখন কোটবাজারে পৌঁছান তখনই তার হা*র্ট অ্যা*টাক হয়।যাত্রীদের নিরাপদে রেখে

গাড়ি থামিয়ে স্টে*য়ারিং ধরে বসে থাকতে থাকতেই হেলে পড়েন উনি। পাশেই যাত্রীরা সেটা খেয়াল করলে এমন পরিস্থিতিতে সবাই আ*তঙ্কিত হয়ে যান।
উনার অবস্থা দেখে গাড়ির অর্ধশত যাত্রী এ অবস্থা দেখে কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন। তাৎক্ষণিকউনাকে স্টেশনের লাগোয়া অরিজিন হাসপাতালে নেওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক উনাকে চেকআপ করে মৃ**ত ঘোষণা করেন।