ফিলিস্তিনিতে বন্দি শিশুদের এক ফোঁটা পানিও দেওয়া হয়না !

একফোঁটা পানিও পান করতে দেওয়া হয়না ফিলিস্তিনি বন্দি শিশুদেরকে। ফিলিস্তিনি প্রিজনার্স অ্যাসোসিয়েশন নামে একটি বেসরকারি সংস্থার দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, ২০১৫ সালের পর থেকে ইসরাইলি সেনারা প্রায় ৬ হাজারেরও বেশি ফিলিস্তিনি শিশুকে আটক করেছে।

ফিলিস্তিনি শিশু দিবস উপলক্ষে শুক্রবার এক বিবৃতিতে সংস্থাটি জানিয়েছে, আটককৃত শিশুদের ৯৮ শতাংশই বন্দী অবস্থায় শারীরিক ও মানসিক নিপী*ড়নের শি*কার হয়েছে।সংস্থাটি জানায়, প্রথমে গুলি করে আহত করার পর শত শত ফিলিস্তিনি শিশুকে আটক করে ইসরাইলি কর্তৃপক্ষ।
রামাল্লাহভিত্তিক কারাবন্দী বিষয়ক ফিলিস্তিনি কর্তৃপক্ষের কমিটির তথ্য অনুযায়ী বর্মানে ইসরাইলের কারাগারে বন্দী রয়েছে রয়েছে প্রায় ৫ হাজার ৭০০ ফিলিস্তিনি।এদের মধ্যে ৪৮ নারী ও ২৫৯ জন শিশু রয়েছে। বেসরকারি সংস্থা ফিলিস্তিনি প্রিজনার্স অ্যাসোসিয়েশনের বিবৃতি অনুযায়ী দখলকৃত

পূর্ব জেরুজালেমের শিশুরাই সবচেয়ে বেশি ইসরাইলি বাহিনীর হামলা-নিপীড়নের লক্ষ্যবস্তু হয়েছে।উত্তেজনা চরমে পৌঁছালে এখানকার শত শত শিশু প্রতি মাসে অন্তত একবার গ্রে*ফতারের ঝুঁকিতে থাকে।বিবৃতিতে বলা হয়েছে, রাতের বেলা চালানো অভি*যানে শিশুদের আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ ও আটক কেন্দ্রে পাঠিয়ে দেয়া হয়।

ঘণ্টার পর ঘণ্টা তাদের খাবার ও পানি বঞ্চিত করে রাখা হয়। শিশুদের জিজ্ঞাসাবাদের সময় একজন অভিভাবকের উপস্থিতির অধিকার প্রায়ই লঙ্ঘন করা হয়। এসব শিশুদের প্রায়ই হিব্রু ভাষায় লেখা বিবৃতিতে স্বাক্ষর করতে বলা হয়- যদিও ওই ভাষা তারা বোঝে না।আটক শিশুদের মুক্তি দেয়া হলেও প্রায়ই তারা দুঃস্বপ্ন দেখে, নিদ্রাহীনতায় ভোগে, স্কুলে অমনোযোগী হয়ে যায় আর পরিবার ও সমাজের পরিবেশের যেকোনো ঘটনাতেই অল্পতেই রেগে যায়।

ফিলিস্তিনি প্রিজনার্স অ্যাসোসিয়েশনের বিবৃতিতে আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংস্থাগুলোর কাছে ফিলিস্তিনি শিশুদের অধিকার রক্ষায় ব্যবস্থা নেয়ার আহ্বান জানানো হয়।

ইয়েমেনে আটকে গেছেন সৌদি যুবরাজ, আমেরিকার কাছে সাহায্য প্রার্থনা !

ইয়েমেনে সামরিক আগ্রাসন চালাতে গিয়ে সৌদি যুবরাজ মুহাম্মাদ বিন সালমান সেখানে আটকে গেছেন। এজন্য তিনি আবারো আমেরিকার সাহায্য চেয়েছেন।যুক্তরাষ্ট্রের প্রভাবশালী দৈনিক নিউ ইয়র্ক টাইমস এক প্রতিবেদনে এ মন্তব্য করেছে।প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, ইয়েমেন ইস্যুতে বিন সালমান আন্তর্জাতিক ও অভ্যন্তরীণ চাপের মুখে রয়েছেন।

দীর্ঘ চার বছরের বেশি সময় ধরে দারিদ্রপীড়িত ইয়েমেনের ওপর সৌদি আরব জোটবদ্ধভাবে সামরিক আগ্রাসন চালালেও এখন পর্যন্ত কোনও লক্ষ্য অর্জন করতে পারেনি।পলাতক প্রেসিডেন্ট আব্দ রাব্বু মানসুর হাদিকে ক্ষমতায় পুনর্বহাল ও হুথি আসনারুল্লাহ আন্দোলনকে নির্মূল করা ছিল এই সামরিক আগ্রাসনের প্রধান দুটি লক্ষ্য।সৌদি আগ্রাসনে ধব্বংসস্তুপে পরিণত হয়েছে ইয়েমেন। এ অবস্থায় হতাশ সৌদি যুবরাজ যুক্তরাষ্ট্রের কাছে বাড়তি সাহায্য চেয়েছেন।

কাঙ্ক্ষিত সাহায্যের মধ্যে রয়েছে গোয়েন্দা সহযোগিতা ও মার্কিন স্পেশাল ফোর্স মোতায়েনের দাবি। ইয়েমেন আগ্রাসনের শুরু থেকেই সৌদি আরবকে অস্ত্র ও রসদ দিয়ে সহযোগিতা করে আসছে যুক্তরাষ্ট্র।

ইয়েমেনে আটকে গেছেন সৌদি যুবরাজ, আমেরিকার কাছে সাহায্য প্রার্থনা !

ইয়েমেনে সামরিক আগ্রাসন চালাতে গিয়ে সৌদি যুবরাজ মুহাম্মাদ বিন সালমান সেখানে আটকে গেছেন। এজন্য তিনি আবারো আমেরিকার সাহায্য চেয়েছেন।যুক্তরাষ্ট্রের প্রভাবশালী দৈনিক নিউ ইয়র্ক টাইমস এক প্রতিবেদনে এ মন্তব্য করেছে।প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, ইয়েমেন ইস্যুতে বিন সালমান আন্তর্জাতিক ও অভ্যন্তরীণ চাপের মুখে রয়েছেন।

দীর্ঘ চার বছরের বেশি সময় ধরে দারিদ্রপীড়িত ইয়েমেনের ওপর সৌদি আরব জোটবদ্ধভাবে সামরিক আগ্রাসন চালালেও এখন পর্যন্ত কোনও লক্ষ্য অর্জন করতে পারেনি।পলাতক প্রেসিডেন্ট আব্দ রাব্বু মানসুর হাদিকে ক্ষমতায় পুনর্বহাল ও হুথি আসনারুল্লাহ আন্দোলনকে নির্মূল করা ছিল এই সামরিক আগ্রাসনের প্রধান দুটি লক্ষ্য।সৌদি আগ্রাসনে ধব্বংসস্তুপে পরিণত হয়েছে ইয়েমেন। এ অবস্থায় হতাশ সৌদি যুবরাজ যুক্তরাষ্ট্রের কাছে বাড়তি সাহায্য চেয়েছেন।

কাঙ্ক্ষিত সাহায্যের মধ্যে রয়েছে গোয়েন্দা সহযোগিতা ও মার্কিন স্পেশাল ফোর্স মোতায়েনের দাবি। ইয়েমেন আগ্রাসনের শুরু থেকেই সৌদি আরবকে অস্ত্র ও রসদ দিয়ে সহযোগিতা করে আসছে যুক্তরাষ্ট্র।

ক্রাইস্টচার্চে হা**মলার বিষয়ে ট্রাম্পকে কিছুই বলেননি বাংলাদেশি ফরিদ !

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সঙ্গে বৈঠকে বিভিন্ন দেশের প্রতিনিধিদের মধ্যে নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চের মসজিদে নামাজরত মুসল্লিদের ওপর হা**মলায় স্ত্রীকে হারানো সিলেটের বিশ্বনাথ উপজেলার উত্তর মিরেরচর গ্রামের ফরিদ আহমেদও ছিলেন।

গত ১৭ জুলাই আধা ঘণ্টার ওই বৈঠকে বিভিন্ন দেশ থেকে আসা প্রতিনিধিদের কাছ থেকে নিজেদের ধর্মীয় স্বাধীনতার অভিজ্ঞতার কথা জানতে চান মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প।ক্রাইস্টচার্চের মসজিদে নামাজরত মুসল্লিদের ওপর হা*মলার ঘটনায় ভাগ্যক্রমে ফরিদ আহমেদ বেঁচে গেলেও তার স্ত্রী হোসনে আরা আহমেদ নি*হত হয়েছেন। শারীরিক প্রতিবন্ধী স্বামীকে বাঁচাতে গিয়ে পেছন থেকে গুলিবিদ্ধ হন ৪২ বছর বয়সী হোসনে আরা।

ওই বৈঠকে বিভিন্ন দেশ থেকে আসা প্রতিনিধিদের সঙ্গে ছিলেন বাংলাদেশি ফরিদ আহমেদ। সেখানে উপস্থিত ছিলেন আরেক বাংলাদেশি প্রিয়া সাহা। মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের কাছে বাংলাদেশে ধর্মীয় সংখ্যালঘু নি**র্যা**তন সম্পর্কে প্রিয়া সাহা নালিশ করলেও নিউজিল্যান্ডের মসজিদে হামলার বিষয়ে কোনো নালিশ করলেন না ফরিদ।

উল্টো নিউজিল্যান্ডের মসজিদে হা**ম*লার পর সহায়তার হাত বাড়িয়ে দেয়া ও বিশ্বব্যাপী সংখ্যালঘুদের পাশে দাঁড়ানোর জন্য মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পকে ধন্যবাদ দিয়েছেন ফরিদ আহমেদ।

ওই বৈঠকে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পকে উদ্দেশ্য করে ফরিদ আহমেদ বলেন, আপনি সত্যিই একজন মানবতাবাদী একজন বিশ্ব নেতা। আজ আমাকে আপনার সঙ্গে সাক্ষাতের সুযোগ দেয়ায় অসংখ্য ধন্যবাদ।ওই সময় ওভাল অফিসের বৈঠকে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেন, মানুষ যদি স্বাধীনভাবে ধর্মীয় চর্চা করতে না পারে তখন তার সব ধরনের স্বাধীনতাই ঝুঁকিতে পড়ে যাবে। আমার মতো অন্য কোনো প্রেসিডেন্ট ধর্মীয় স্বাধীনতাকে এতো গুরুত্বের সঙ্গে দেখেন না বলেও জানান ট্রাম্প।

ওই সময় বিভিন্ন দেশের প্রতিনিধিদের উদ্দেশ্য করে ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেন, কেবল ধর্মীয় বিশ্বাসের কারণে আপনাদের অনেক দুর্ভোগে পড়তে হয়েছে। এটি কাম্য নয়।ট্রাম্পকে বলা বাংলাদেশি ফরিদের বক্তব্যের বিষয়ে নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী জেসিন্ডা আর্ডার্ন বলেন, ফরিদ আহমেদ ব্যক্তিগতভাবে ট্রাম্পকে ধন্যবাদ দেয়ায় অবাক হইনি আমি। ওই বৈঠকে ক্রাইস্টচার্চের মসজিদে নামাজরত মুসল্লিদের ওপর হা**মলার ভ*য়া*বহ স্মৃতিচারণ করার কথা ছিল তার। কিন্তু তিনি তা করেননি।

জেসিন্ডা আর্ডার্ন বলেন, ফরিদ একজন ভালোবাসার ও সহানুভূতি সম্পন্ন মানুষ। তার প্রতিটা আলাপ থেকে তা বেরিয়ে আসে। কাজেই দেশের বাইরে গিয়েও তিনি তেমনটা করবেন, সেটাই আমি ধরে নিয়েছিলাম। যে কারণে বিশ্বব্যাপী সংখ্যালঘুদের পাশে দাঁড়ানোর জন্য ফরিদ ট্রাম্পকে ধন্যবাদ দেয়ায় আমি অবাক হইনি। ফরিদ আহমেদ এমন একজন মানুষ, যিনি মানবতাকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন।

এসব তথ্য জানিয়েছেন ফরিদ আহমেদ নিজেই। শারীরিক প্রতিবন্ধী ফরিদ আহমেদ বর্তমানে নিউজিল্যান্ডে স্থায়ীভাবে বসবাস করছেন।

বাংলাদেশ সম্পর্কে উস্কানিমূলক তথ্য দিয়ে তোপের মুখে হিন্দু নারী !

প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বুধবার বিভিন্ন ধর্মের ২৭ জনকে মানুষকে ডেকেছিলেন তাদের দুর্ভোগের কথা শোনার জন্য।সেখানে মায়ানমার, নিউজিল্যান্ড, ইয়েমেন, চায়না, কিউবা, ইরিত্রিয়া, নাইজেরিয়া, তুরস্ক, ভিয়েতনাম, সুদান, আফগানিস্তান, নর্থ কোড়িয়া, শ্রীলঙ্কা, পাকিস্তান জার্মানি, বাংলাদেশ সহ আরো কয়েকটি দেশের ব্যক্তিরা উপস্থিত ছিলেন।

তাদের প্রত্যেকেই ট্রাম্পকে তাদের নিজ দেশের দুর্ভোগের কথা বলছিলেন। সেখানেই বাংলাদেশ থেকে যাওয়া নারী ট্রাম্পকে বলেন, তার জমি জমা কেড়ে নিয়েছে বাংলাদেশি মুসলিমরা, তার ঘরবাড়িতেও আগুন লাগিয়ে দিয়েছে। তাই তিনি ঘরবাড়ি ছেড়ে পালিয়ে এসেছেন।ওভাল অফিসে আয়োজিত এই অনুষ্ঠানে তিনি ট্রাম্পকে বলেন, ‘আমি বাংলাদেশ থেকে এসেছি। সেখানে ৩৭ মিলিয়ন হিন্দু-মুসলিম-বৌদ্ধ খ্রিস্টানকে গুম করা হয়েছে। এখনো সেখানে ১৮ মিলিয়ন সংখ্যালঘু জনগণ রয়েছে।

দয়া করে আমাদের সাহায্য করুন। আমরা আমাদের দেশ ত্যাগ করতে চাই না। আমি আমার ঘর হারিয়েছি, আমার জমি নিয়ে নিয়েছে, আমার ঘরবাড়িতে আগুন লাগিয়ে দিয়েছে কিন্তু সেসবের কোনো বিচার নেই।’ডোনাল্ড ট্রাম্প জিজ্ঞেস করেন কারা এসব করছে? বাংলাদেশি ওই নারী বলেন, ‘সবসময় উগ্রবাদী মুসলিমরা এই কাজ করছে। সবসময় তারা রাজনৈতিক প্রশ্রয়ে এই কাজ করে।’জানা গেছে ওই নারীর নাম প্রিয়া সাহা। সে বাংলাদেশ হিন্দু- বৌদ্ধ- খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদ’র

কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক। কার গ্রামের বাড়ি চরবানিরী, মাটিভাঙ্গা, নাজিরপুর, পিরোজপুর।

ওই নারীর বক্তব্যের পর দেশের সোশ্যাল মিডিয়ায় ঝড় উঠেছে। রীতিমতো নেটিজেনরা ওই নারীর বক্তব্যের প্রতিবাদ করেন। তারা ট্রাম্পকে হ্যাশ ট্যাগ, মেনশন করে জানাচ্ছেন ওই মহিলা মিথ্যে কথা বলেছেন। তবে কেন ওই নারী এমন কথা বললেন তা জানা যায়নি। তবে যুক্তরাষ্ট্রের একটি গণমাধ্যম পুরো অনুষ্ঠানটি ফেসবুকে লাইভ করেছে।

যার কারণে ভিডিওটি সকলের সামনে চলে আসে।

পৃথিবীর মানচিত্র থেকে ইসরায়েলের নাম সরিয়ে ফিলিস্তিনের নাম যোগ করলো নিউজল্যান্ড !

পৃথিবীর মানচিত্র থেকে ইসরায়েলের নাম সরিয়ে ফিলিস্তিনের নাম যোগ করলো নিউজল্যান্ড সরকার। এবং এতে ফিলিস্তিনের রাজধানী হিসেবে জেরুজালেমের নাম উল্লেখ করা হয়েছে। সম্প্রতি দেশটি অভিবাসী বিষয় সম্পর্কে ওয়েবসাইটে মানচিত্রটি প্রকাশ করে।

নিউজিল্যান্ডের সরকারি ওয়েবসাইটের এ মানচিত্রটি সেদেশে ফিলিস্তিনি অভিবাসনের নথি প্রকাশের জন্য তৈরি করেছে। এতে নীল রং দিয়ে ফিলিস্তিনের মানচিত্র দেখানো হয়েছে এবং তাতে দেশের নামও উল্লেখ করা হয়েছে।নীল চিহ্নিত মানচিত্রে ফিলিস্তিনের নাম উল্লেখ করে তাতে রাজধানী হিসেবে পূর্ব জেরুজালেমকে দেখানো হয়েছে। আর তাতে রয়েছে নিউজিল্যান্ডে বসবাসরত ফিলিস্তিনি অভিবাসী সম্পর্কে তথ্য।

এদিকে ইহুদিবাদী ইসরায়েল নিউজিল্যান্ডের এই পদক্ষেপের জন্য আপত্তি জানিয়ে দেশটির ইমিগ্রেশন মন্ত্রীকে এই বিষয়ে তদন্ত করার আহ্বান জানিয়েছে।
অন্যদিকে আন্তর্জাতিক আণবিক শক্তি সংস্থা (আইএইএ) ফিলিস্তিনকে পর্যবেক্ষক সদস্য হিসেবে এ সংস্থায় যোগ দেওয়ার অনুমতি দিয়েছে।

এর মাধ্যমে আন্তর্জাতিক সংস্থাটি ফিলিস্তিনকে স্বাধীন রাষ্ট্র হিসেবে স্বীকৃতি দিল। এ ঘটনায়ও ক্ষোভ প্রকাশ করেছে ইসরায়েল।আইএইএ’র মহাপরিচালক ইউকিয়া আমানো ও ভিয়েনায় নিযুক্ত ফিলিস্তিনের রাষ্ট্রদূত সালাহ আবদুশ শাফি এ নিয়ে মঙ্গলবার একটি চুক্তিতে স্বাক্ষর করেন।

চারতলা ভবন ধসে নিহত ১২ আটকা পড়েছে ৫০ জন !

ভারতে মুম্বাইয়ে চারতল একটি ভবন ধসে ১২ জন নিহত হয়েছেন। ওই ভবনের মধ্যে ৫০ জন আটকা পড়েছে। মঙ্গলবার (১৬ জুলাই) মুম্বাইয়ের ডংরি এলাকায় এ ঘটনা ঘটেছে।

ভারতের প্রভাবশালী সংবাদমাধ্যম আনন্দাবাজার পত্রিকার খবরে বলা হয়েছে, স্থানীয় সময় সকাল ১১টা ৪০ মিনিটের দিকে ডংরির ট্যান্ডেল স্ট্রিটে ভেঙে পড়ে চারতলা ওই ভবন।

ভবনের নিচে কমপক্ষে ৪০ থেকে ৫০ জন আটকা পড়েছেন আশঙ্কা করা হচ্ছে। দুর্ঘটনার পরপরই উদ্ধারকর্মীরা ঘটনাস্থলে পৌঁছে যায় এবং উদ্ধার কাজ শুরু করে।স্থানীয় প্রশাসন জানিয়েছেন, যে ভবনটিতে দুর্ঘটনা ঘটেছে সেটি বেশ সরু গলির ভেতরে। এজন্য উদ্ধার তৎপরতা চালাতে হিমশিম খেতে হচ্ছে।

ভবনের মধ্যে আটকে পড়াদের জীবিতদের উদ্ধারে আপ্রাণ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। গত কয়েক সপ্তাহের বৃষ্টির কারণে মাটি নরম হয়ে ভবনটি দেবে গেছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। সূত্র: সময় নিউজ টিভি

ভারতে মুসলমানদের ওপর নিপীড়ন চলছে: ব্রিটিশ এমপি !

ভারতে সংখ্যালঘু মুসলিমদের ওপর ভ*য়াবহ নিপীড়ন চলছে বলে উল্লেখ করে এসব ঘটনার তী*ব্র সমালোচনা করেছেন ব্রিটিশ পার্লামেন্টের একজন এমপি। একই সঙ্গে ‘ভয়াবহ উদ্বেগজনক পরিস্থিতি’ ঠেকাতে ব্যবস্থা নেয়ার জন্যও ভারত সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন তিনি।

ব্রিটেনের ছায়া মন্ত্রিসভার সদস্য এবং লেবার পার্টি এমপি জোনাথন অ্যাশওয়ার্থ রোববার (১৪ জুলাই)উদ্বেগ জানিয়ে মুসলিমদের ওপর সহিং*স আক্র*মণের ঘটনায় ত*দন্ত চালাতে ব্রিটিশ সরকারকে আহ্বান জানিয়েছেন।তিনি তার এক চিঠিতে বলেন, আমার আসনের সংখ্যালঘু মুসলিম সম্প্রদায়ের সদস্যদের মাধ্যমে আমি ভারতে চলমান স*হিংস হা*মলার ব্যাপারে জেনেছি। ভারতের পরিস্থিতি চ*রম উদ্বেগজনক; সেখানে উদ্দেশ্যপ্রণোদিত ধর্মীয় হ*ত্যাকা*ণ্ড,

হা*মলা, দা*ঙ্গা, বৈষম্য, ভাঙ*চুর এবং সংখ্যালঘু মুসলিমদের ধর্মীয় বিশ্বাসের চর্চার অধিকারের ওপর কঠোর বিধি-নিষেধ রয়েছে।জোনাথনের এই চিঠির জবাবে ব্রিটিশ পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক মুখপাত্র বলেছেন, ভারতে সংখ্যালঘু মুসলিম নিপী*ড়নের ঘটনায় পরিস্থিতির উন্নতি ঘটানোর জন্য ভারত সরকারের সঙ্গে কাজ করছি।

আমাদের মুসলিম তরুণ ক্ষমতায়ন শীর্ষক প্রকল্পের মাধ্যমে ১৫০ জন তরুণ ও ২০ জন শিক্ষককে নিয়ে কাজ চলছে। এই প্রকল্প ভারতের শতাধিক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে চালু রয়েছে।

চীনে বন্যায় নি*হত ৬১, গৃহহীন ৪ লাখ মানুষ

চীনের দক্ষিণ ও মধ্যাঞ্চলে শুরু হওয়া বন্যায় চলতি সপ্তাহে এখন পর্যন্ত অন্তত ৬১ জন নি**হত হয়েছেন। টানা প্রবল বর্ষণের ফলে সৃষ্ট বন্যায় গৃ*হহীন হয়ে পড়েছেন ৩ লাখ ৫৬ হাজার মানুষ। চীনা উদ্ধারকারী সংস্থার বরাত দিয়ে মার্কিন দৈনিক নিউইয়র্ক টাইমসের এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

বৃহস্পতিবার রাতে চীনের জরুরি দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা মন্ত্রণালয়ের প্রকাশিত এক নোটে জানানো হয়েছে, প্রবল এই বন্যায় ৯ হাজার ৩০০টি বাড়ি ধসে পড়েছে।এ ছাড়া ৩ লাখ ৭১ হাজার হেক্টর জমির ফসল নষ্ট হয়েছে। বন্যার কারণে প্রত্যক্ষভাবে প্রায় ২০০ কোটি ডলার সমমূল্যের ক্ষতি হয়েছে বলে জানিয়েছে দু*র্যোগ ব্যবস্থাপনা মন্ত্রণালয়।

মন্ত্রণালয়ের প্রকাশিত ওই নোটে আরও জানানো হয়েছে, বন্যাকবলিত এলাকাগুলো থেকে নারী-শিশুসহ এখন পর্যন্ত ৪ হাজার তিনশ জনকে উ*দ্ধার করা হয়েছে।দেশটির দক্ষিণাঞ্চলীয় প্রদেশে গুয়ানদং সবচেয়ে বেশি ক্ষতির মুখে পড়েছে। এ ছাড়া দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলের চংগিং শহরের পাশের ইয়ংজিত নদীর পানি বিপদসীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

চলতি গ্রীষ্মকালে চীনের উত্তারঞ্চলীয় প্রদেশগুলোতে প্রবল খরা দেখা দেয় আর দক্ষিণাঞ্চলের প্রদেশেগুলোতে দেখা দেয় ভ*য়াবহ বন্যা।জরুরি দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা মন্ত্রণালয় সতর্ক করে বলেছে, উত্তরাঞ্চলীয় এলাকাগুলোতে চলতি বছরে সর্বনিম্ন বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে। এদিকে ভারী বৃষ্টিপাতের ফলে ইয়োলো নদীর পানি বৃ*দ্ধি পাওয়ার কারণে বন্যার আশঙ্কাও দেখা দিয়েছে।

ট্রাম্পের সাথে দেখা করলেন সৌদি ইতিহাসের প্রথম নারী রাষ্ট্রদূত !

যুক্তরাষ্ট্রে নিযুক্ত সৌদি আরবের ইতিহাসের প্রথম নারী রাষ্ট্রদূত রাজকুমারী রিমা বিন্ত বানদার প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সঙ্গে দেখা করে নিজের পরিচয়পত্র পেশ করেছেন।সোমবার (৮ জুলাই) হোয়াইট হাউসে ট্রাম্পের সঙ্গে দেখা করেন রিমা বিন্ত বানদার।

রিমা বিন্ত বানদার ফেব্রুয়ারিতে খালিদ বিন সালমানের স্থলাভিষিক্ত হয়ে এপ্রিলে রিয়াদে যুবরাজ মুহাম্মদ বিন সালমানের কাছ থেকে শপথ নেন। জুন মাসে কাজ শুরু করেন তিনি।দূতাবাসের এক বিবৃতিতে রিমা বলেন, সৌদি এবং যুক্তরাষ্ট্রের সম্পর্ক উভয় দেশের স্বার্থের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

এ ছাড়াও টুইটারে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের কাছে নিজের পরিচয়পত্র পেশের ছবি পোস্ট করে রিমা বিন্ত বানদার বলেন, দুই দেশের বন্ধন শক্তিশালী ও দৃঢ় করার লক্ষ্যে কাজ করতে উন্মুখ তিনি। সৌদি রাজকুমারী রিমা বিন্ত বানদার ২০ বছর যুক্তরাষ্ট্রে কাটিয়েছেন। তার বাবা বানদার বিন সুলতান যুক্তরাষ্ট্রে রাষ্ট্রদূত হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। জর্জ ওয়াশিংটন ইউনিভার্সিটি থেকে মিউজিয়াম স্টাডিজের স্নাতক পাস করেন রিমা।

রাষ্ট্রদূত হিসেবে নিয়োগের আগে সৌদি আরবে নারী অধিনায়ক বিষয়ক আন্দোলনে সোচ্চার ছিলেন রিমা। মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রী মাইক পম্পেও রাজকুমারী রিমা বিন্ত বানদারকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শুভেচ্ছা জানিয়ে রিমার করা টুইটে রিটুইট করে তিনি লিখেন, রিমার সঙ্গে কাজ করতে মুখিয়ে আছেন তিনি।