ওর কারণেই দুই বন্ধু এখন কবরবাসী, আমি রিফাতকে নিজ হাতে খাইয়ে দিয়েছি : নয়ন বন্ডের মা !

রিফাত শরীফ এবং নয়ন বন্ড এই মুহূর্তে দেশে সবচেয়ে আলোচিত ও সমালোচিত দুটো নাম। প্রকাশ্যে শত শত মানুষের সামনে রিফাত শরীফকে কু.পিয়ে হ.ত্যার ঘটনার প্রধান অভিযুক্ত নয়ন বন্ড ইতোমধ্যেই পুলিশের সঙ্গে ‘ব.ন্দুকযু.দ্ধে’ নি.হত হয়েছেন। এই রিফাত ও নয়ন বন্ড এক সময় ঘনিষ্ঠ বন্ধু ছিলেন বলে জানিয়েছেন উভয়ের স্বজনরা।

নয়ন বন্ডের মা শাহিদা বেগম বলেন, ‘রিফাত শরীফ আমার ছেলে নয়নের বন্ধু ছিল। বন্ধুত্বের সুবাদে আমাদের বাসায় রিফাতের আসা-যাওয়া ছিল। আমি রিফাতকে নিজ হাতে খাইয়ে দিয়েছি। আমি মিন্নির সঙ্গে নয়নকে বার বার সকল সম্পর্ক ছিন্ন করতে বলেছি। কিন্তু নয়ন শোনেনি। নয়নের মনে যা চাইত ও তাই করত।’
তিনি আরও বলেন, ‘নয়ন যদি আমার কথা শুনত তাহলে এমন নি.র্মম ঘটনা ঘটত না। একটি মেয়ের প্ররোচনায় পড়ে মায়ের কথা উপেক্ষা করার কারণে আজ দুই বন্ধু অকালে প্রা.ণ হারিয়ে এখন কবরবাসী।’

মিন্নি
একটি মেয়ের জন্য দুটি ছেলের মৃ.ত্যু হয়েছে এমন মন্তব্য করে নয়ন বন্ডের মা শাহিদা বেগম বলেন, ‘মিন্নির জন্য রিফাতকে নয়ন কু.পিয়ে হ.ত্যা করেছে। আবার পুলিশের সঙ্গে ব.ন্দুকযু.দ্ধে নয়ন নি.হত হওয়ায় রিফাত হ.ত্যার বিচার হয়ে গেছে।এই দুই বন্ধুর অকালে মৃ.ত্যুর জন্য কে দায়ী? কার ইন্ধনে ও অসততার কারণে এমন নি.র্মম ঘটনা ঘটেছে? কার জন্য দু’জন মায়ের বুক খালি হয়েছে তা আমি জানি। মিন্নির জন্য এসব হয়েছে।’

এছাড়া নয়ন ও রিফাত শরীফের এক সময়ের বন্ধুত্বের কথা স্বীকার করে রিফাত শরীফের বাবা দুলাল শরীফ বলেন, ‘অনেক আগে নয়ন ও রিফাতের মধ্যে ঘনিষ্ঠ বন্ধুত্ব ছিল। তবে নয়ন মা.দক ব্যবসা ও সে.বনে জড়িয়ে পড়ার পর নয়ন ও রিফাতকে আমি একসঙ্গে দেখিনি। নয়নের মা.দক ব্যবসা ও মা.দক সে.বনকে কেন্দ্র করে বন্ধুত্বের মধ্যে দূরত্ব বাড়লেও তাদের মধ্যে শত্রুতা হয়েছে এমনটাও আমি কখনো শুনিনি।’

এদিকে মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ৯টার দিকে বরগুনার মাইঠা এলাকার বাবার বাসা থেকে মিন্নির বাবা মোজাম্মেল হোসেন কিশোরসহ মিন্নিকে জিজ্ঞাসাবাদ ও তার বক্তব্য রেকর্ড করতে বরগুনার পুলিশ লাইনে নিয়ে আসে পুলিশ।এরপর দীর্ঘ ১০ ঘণ্টার জিজ্ঞাসাবাদ ও বিভিন্ন মাধ্যম থেকে পাওয়া তথ্য-উপাত্ত পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে বিশ্লেষণ ও পুলিশের কৌশলী এবং বুদ্ধিদীপ্ত প্রশ্নের উত্তর দিতে গিয়ে আটকে যান মিন্নি। বেরিয়ে আসে হ.ত্যাকাণ্ডে তার সম্পৃক্ততার প্রমাণ। এরপরই মিন্নিকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

অবশেষে সেই মাথা কা**টা শিশুর বাকি দে*হ উদ্ধার !

মাথা কা*টা শিশু সজীবের (৮) বাকি দে*হ উদ্ধার করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার বিকেলে নেত্রকোনা পৌর শহরের কাটলী এলাকায় নির্মাণাধীন একটি ভবনের তিনতলা থেকে শিশুটির বাকি দে*হ উ*দ্ধার করেছে পুলিশ।নেত্রকোনা অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) ফখরুজ্জামান জুয়েল তথ্যের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, নেত্রকোনা পৌর শহরের পাটপট্রি ব্রীজ সংলগ্ন কাটলী এলাকার কায়কোবাদ খানের নি*র্মা**ণাধীন তিনতলা ভবনের উপর থেকে র*ক্ত পড়তে দেখে স্থানীয় লোকজন পুলিশে খবর দেয়। নেত্রকোনা মডেল থানা পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে শিশুটির বাকি দেহ উদ্ধার করে।পরে সজিবের বাবাকে খবর দেওয়া হয়। তিনি এসে ছেলের মর**দেহ শনাক্ত করেন।তিনি আরও জানান, ঘটনাস্থল থেকে থেকে একটি ধারালো কা*টার (কাগজ কাটায় ব্যবহৃত হয়) উ*দ্ধার করা হয়েছে। ধারণা করা হচ্ছে এই কাটার দিয়েই তাকে গ*লা কে*টে হ*ত্যা করা হয়েছে।

এদিকে, এ ঘটনায় গটপিটুনীতে নি*হত যুবকটি পরিচয় পাওয়া গেছে। তার নাম রবিন (২৫)। নিহত শিশু সজিব ও রবিন একই এলাকার বাসিন্দা।শিশু সজিব নেত্রকোনা সদরের আমতলা গ্রামের রিকশা চালক রইছ উদ্দিনের ছেলে। রইছ উদ্দিন তার পরিবার নিয়ে নেত্রকোনা পৌর শহরের কাটলী এলাকার হিরণ মিয়ার বাসায় ভাড়ায় থাকেন। আর রবিন নেত্রকোনা পৌর শহরের একলাছ মিয়ার ছেলে। পেশায় সে একজন রিক্সাচালক। সে মাদ*কা*সক্ত বলে জানা গেছে।

নি*হত শিশুটির বাড়ির মালিক হিরা মিয়া জানান, গণপিটুনিতে নিহ*ত রবিন আগে তার বাসায় ভাড়া থাকতো। মাদ*কাসক্ত ছিল বলে কয়েক মাস আগে তাকে বাসা থেকে বিদায় করে দেয়া হয়েছে। এরপর থেকে রইছ মিয়ার বাসায় আসা-যাওয়া করতো রবিন।
নেত্রকোনা মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) তাজুল ইসলাম ও স্থানীয় লোকজন জানান, দুপুর ১টার দিকে শহরের কাটলি এলাকা দিয়ে রবিন হাতে ব্যাগ নিয়ে দৌঁড়াচ্ছিলেন। এলাকায় তাকে নতুন মনে করে স্থানীয় লোকজন তাঁর নাম-পরিচয় জানতে চান। রবিন আমতা আমতা করতে থাকলে লোকজন জিজ্ঞাস করেন,

তাঁর ব্যাগের ভেতরে কী আছে? রবিন বলেন, তার ব্যাগের ভেতরে ভাঙারির জিনিস আছে। তাকে সন্দেহ হলে ওই ব্যাগটি দেখতে চায় স্থানীয়রা। কিন্তু তিনি ব্যাগটি না দেখাতে চাইলে স্থানীয়রা ব্যাগ নিয়ে টানা-হেঁচড়া করতে থাকে। একপর্যায়ে ব্যাগের ভেতর থেকে শিশুর কা**টা মাথা ছিটকে পড়ে।এর পরই রবিনকে ধাওয়া দেয় লোকজন। একপর্যায়ে শহরের নিউটাউন এলাকার অনন্তপুকুর পাড়ে তাকে পিটুনি দেয় এলাকাবাসী। এতে ঘটনাস্থলেই রবিনের মৃ**ত্যু হয়। পরে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে সজীবের কা*টা মাথা ও রবিনের লা*শ উদ্ধার করে নেত্রকোনা আধুনিক সদর হাসপাতালে পাঠায়।

একটি কৃত্রিম পায়ের জন্য অষ্টম শ্রেণি ছাত্রী আয়েশার আকুতি !

চার বছর আগে দুই ইঞ্জিনচালিত ভ্যানের চা*পায় ডান পা থেঁ**তলে যায় আয়েশা খাতুনের। চিকিৎসার পর ডান পায়ের হাঁটুর নিচ থেকে কে*টে ফেলেন চিকিৎসকরা। এরপর থেকেই ক্রাচ দিয়ে চলাফেরা করতে শুরু করে মেয়েটি। চিকিৎসকরা একটি কৃত্রিম পা লাগানোর পরামর্শ দেন। তবে অভাব-অনটনের কারণে একটি কৃত্রিম পা লাগানোর টাকা জোগাড় করতে পারেননি আয়েশার বাবা।

সাতক্ষীরার তালা সদরের আগোলঝাড়া গ্রামের বাসিন্দা আয়েশা খাতুন। বর্তমানে আগোলঝাড়া দাখিল মাদরাসায় অষ্টম শ্রেণিতে লেখাপড়া করছে সে। তার বাবা ওমর আলী শেখ দিনমজুর। একটি ধানের চাতালে কাজ করেন।মাদরাসাছাত্রী আয়েশা খাতুন জানায়, চতুর্থ শ্রেণিতে পড়ালেখা করার সময় পার্শ্ববর্তী ডুমুরিয়া থানার চুকনগর এলাকায় দুটি ইঞ্জিনচালিত ভ্যানের মাঝখানে চাপা পড়ে তার ডান পা থেঁ**তলে যায়। পরে চিকিৎসকরা পা কে**টে বাদ দেন। চিকিৎসকরা জানিয়েছিলেন- একটি কৃত্রিম পা লাগালে সে স্বাভাবিকভাবে চলাফেরা করতে পারবে। তবে তার দিনমজুর বাবার পক্ষে আজও একটি পা লাগা*নোর ব্যবস্থা করা সম্ভব হয়নি।

আয়েশা বলে, আগোলঝাড়া প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে পিএসসি পরীক্ষায় জিপিএ ৩.৩৩ পেয়ে পাস করেছি। বর্তমানে আগোলঝাড়া দাখিল মাদরাসায় অষ্টম শ্রেণিতে লেখাপড়া করছি। ক্রাচ দিয়ে চলাফেরা করতে হয়। এভাবে চলাফেরা করতে খুব কষ্ট হয়। আপনারা আমার একটি কৃত্রিম পায়ের ব্যবস্থা করেন। খুব খুশি হবো।আয়েশার ফুফা মোড়ল শাহিন উদ্দীন বলেন, বিভিন্ন মানুষদের কাছে সহযোগিতার জন্য গিয়েছি, কিন্তু কোনো ফল হয়নি। সাভারের সিআরপি হাসপাতালে কথা বলেছি, সেখানকার চিকিৎসকরা জানিয়েছেন কৃত্রিম পা লাগাতে প্রায় ৩০ হাজার টাকা খরচ হবে। টাকা জোগাড় না হওয়ার কারণে এখনো পা লাগানো হয়নি।

তিনি আরও বলেন, জেলা সমাজসেবা কার্যালয়ে সহযোগিতার জন্য যাওয়া হয়েছিল। তারা জানিয়েছেন দেড় থেকে দুই হাজার টাকা সহযোগিতা দেয়া হবে। তবে সেটিও মৌখিকভাবে বলেছেন। আবেদন করেও কোনো সহায়তা পাওয়া যায়নি।আয়েশার বাবা ওমর আলী শেখ বলেন , আমি কখনো ধানের চাতাল আবার কখনো মানুষের জমিতে শ্রমিকের কাজ করে সংসার চালাচ্ছি। অভাবের সংসারে ৩০ হাজার টাকা একত্রে করা সম্ভব হয়নি আজও। হৃদয়বান কোনো মানুষ সহযোগিতা করলে আমার মেয়েটি আবার স্বাভাবিকভাবে হাঁটতে পারবে।

এ বিষয়ে স্থানীয় ইউপি সদস্য মাওলানা আসাদুজ্জামান মোড়লের সঙ্গে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি।
আয়েশার প্রতিবেশী আইনজীবীর সহায়ক বাবলুর রহমান জানান, পরিবারটি খুব অসহায়। টাকার অভাবে মেয়েটির একটি কৃত্রিম পা লাগাতে পারছেন না তার শ্রমিক বাবা।

তালা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল অফিসার রাজীব সরদার বলেন, কৃত্রিম পা কিনতে ২০-২৫ হাজার টাকা লাগতে পারে বা তার কমবেশিও হতে পারে। রাজধানীতে কৃত্রিম পা কিনতে পাওয়া যায়। তবে সেটা চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়েই কিনতে হবে। সেটি চিকিৎসকরাই প্রতিস্থাপন করবেন।আয়েশা খাতুনের সার্বিক বিষয় জেনে সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসক মোস্তফা কামাল বলেন, সহযোগিতা চেয়ে মেয়েটি জেলা প্রশাসক বরাবর একটি আবেদন করলে তার স্বাভাবিকভাবে চলাফেরা করার জন্য ব্যবস্থা নেয়া হবে। সূত্রঃজাগো নিউজ

নারী শিক্ষকদের দিয়ে শরীর ম্যাসাজ করান পিটিআই সুপার !

প্রশিক্ষণার্থী নারী শিক্ষকদের দিয়ে শরীর ম্যাসাজ করান যশোর পিটিআইএর সুপারিনটেনডেন্ট হাসানারুল ফেরদৌস। মহিলা ইনস্ট্রাক্টরদের সাথে অশা*লীন আচরণ, মানসিক অত্যাচার ও দুর্ব্যবহারের অভিযোগ উঠেছে তার বিরুদ্ধে। স্টাফদের অকথ্য ও অশ্লীল ভাষায় গালমন্দ করেন এ পিটিআই সুপার।

ট্রেনিংয়ের সাপোর্ট সার্ভিসের টাকাও যশোর পিটিআইয়ের সুপারিনটেনডেন্ট হাসানারুল ফেরদৌস আত্মসাৎ করেছেন বলে অভিযোগ উঠেছে।সুপার হাসানারুল ফেরদৌসের অনিয়ম-অত্যাচারের প্রতিকার চেয়ে গতকাল বুধবার (১৭ জুলাই) সংবাদ সম্মেলন করেছেন যশোর পিটিআইয়ের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা। যশোর প্রেস ক্লাবে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তার বিরুদ্ধে এসব অভিযোগ তুলে ধরা হয়। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন পিটিআইয়ের ইনস্ট্রাক্টর মাহবুর আলম।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন ইনস্ট্রাক্টর আবু তালেব, ইনস্ট্রাক্টর আবু বকর সিদ্দিক।লিখিত বক্তব্যে বলা হয়, সুপারিনটেনডেন্ট হিসেবে যোগদানের পর থেকে হাসানারুল ফেরদৌস পিটিআইতে নিজের অসৎ উদ্দেশ্য বাস্তবায়নের জন্য কর্মকর্তা, কর্মচারী, পরীক্ষণ বিদ্যালয়ের শিক্ষক এবং প্রশিক্ষণার্থীদের সঙ্গে দুর্ব্যবহার ও অশালীন আচরণ করেন। তিনি নারী প্রশিক্ষণার্থীদের দিয়ে শরীর ম্যাসাজ করিয়ে নেন।

মহিলা ইনস্ট্রাক্টরদের সাথে অশালীন আচরণ ও মানসিক অত্যাচার করেন। স্টাফদের সর্বদা অকথ্য ও অশ্লীল ভাষায় গালমন্দ করেন এবং মানসিক চাপে রাখেন।পিটিআই কর্মকর্তারা আরও জানান, আইসিটি ট্রেনিংয়ের সাপোর্ট সার্ভিসের অর্থ আত্মসাৎ করেছেন সুপারিনটেনডেন্ট হাসানারুল ফেরদৌসঅ সহকর্মীদের সাথে প্রতিহিংসাপরায়ণ আচরণ করেন তিনি। কথায় কথায় নিজের ডান হাত সম্প্রসারিত করে ‘আমার হাত এর চেয়েও লম্বা’ বলে তিনি নিজের শ্রেষ্ঠত্ব জাহির করেন।

তিনি ক্ষমতার দাপট দেখিয়ে তিনজন অফিস সহকারীকে বদলি করেছেন, যার কারণে অফিস সহকারী ছাড়াই চলছে পিটিআই অফিস। এছাড়া অপকর্ম ঢাকার জন্য চারজন ইনস্ট্রাক্টরকে দুর্গম এলাকায় বদলি করেছেন তিনি।লিখিত বক্তব্যে কর্মকর্তারা দাবি করেন, সুপারিনটেনডেন্টের এমন সব অস্বাভাবিক কার্যক্রমে পিটিআইয়ের কার্যক্রম স্থবির হয়ে পড়েছে।

যা, বর্তমান সরকারের মানসম্মত শিক্ষা নিশ্চিত করার অন্তরায় হয়ে দাঁড়িয়েছে। কর্মকর্তা-কর্মচারীরা এমন কর্মকাণ্ড থেকে মুক্তি পেতে কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন যশোর পিটিআইয়ের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা।

ব্যাগে শিশুর কাটা মাথা, গণপিটুনিতে ঘাতক নিহত

নেত্রকোনা জেলা শহরে প্রকাশ্য দিবালোকে ব্যাগে শিশুর কাটা মাথা নিয়ে ঘুরে বেড়াতে দেখে গণপিটুনিতে মৃত্যু হয় এক যুবকের (২৮)। বৃহস্পতিবার (১৮ জুলাই) বেলা পৌনে ১টার জেলা শহরের নিউটাউন এলাকার অনন্তপুকুর পাড়ে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত শিশুটির নাম সজীব মিয়া (৮)। সে শহরের পূর্ব কাটলী এলাকার রিকশাচালক রইছ উদ্দিনের ছেল। আর গণপিটুনিতে নিহত যুবকের নাম রবিন। তার পিতার নাম এখলাসউদ্দিন। সে-ও পেশায় একজন রিকশাচালক এবং মাদকসেবী বলে জানা গেছে।

এলাকাবাসী ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, বৃহস্পতিবার দুপুরে এক যুবক হাতে একটি ব্যাগ নিয়ে বারহাট্টা রোডের পাশে সুইপার কলোনিতে মদ খেতে যায়। এ সময় ব্যাগে থেকে ফোঁটা ফোঁটা রক্ত পড়তে দেখে স্থানীয়দের সন্দেহ হয়।

পরে তারা ব্যাগটি দেখতে চাইলে ওই যুবক দৌড়ে পালাবার চেষ্টা করে। তখন স্থানীয়রা তাকে আটক করে ব্যাগ তল্লাশি করে তার মধ্যে এক শিশুর ছিন্ন মাথা দেখতে পায়। পরে উত্তেজিত জনতা জড়ো হয়ে তাকে এলোপাতারি গণপিটুনি দেয়। গণপিটুনির একপর্যায়ে সে মারা যায়।

খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে ওই যুবকের লাশ এবং শিশুর ছিন্ন মাথাটি উদ্ধার করে। পরে সজীবের স্বজনরা হাসপাতালে গিয়ে ছিন্ন মাথাটি সজীবের বলে শনাক্ত করে।

সজীবের স্বজনরা জানায়, সকাল সোয়া ১১টার দিকে সে তার বাবার কাছ থেকে পাঁচ টাকা নিয়ে স্থানীয় একটি দোকান থেকে খাওয়ার জিনিস কিনতে যায়। এর পর থেকে তাকে পাওয়া যাচ্ছিল না। এদিকে বিকেল ৩টার দিকে কাটলী এলাকার একটি নির্মাণাধীন বিল্ডিংয়ের তিনতলার ছাদে সজীবের দেহের বাকি অংশ পাওয়া যায়। খবর পেয়ে পুলিশ সেটি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য নেত্রকোনা আধুনিক সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠায়।

নেত্রকোনা সদর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার এস এম আশরাফুল আলম এবং অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ) শাহজাহান মিয়া বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

এ প্রসঙ্গে নেত্রকোনা সদর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার এস এম আশরাফুল আলম কালের কণ্ঠকে বলেন, ঘাতক যুবক ও নিহত শিশুটির পরিবার পাশাপাশি থাকে এবং একে অন্যের পরিচিত। সে মাদকাসক্ত এবং নানা ধরনের মাদক সেবন করে। এই দুই পরিবারের মধ্যে কোনো আন্তকোন্দল আছে কি-না এবং এই খুনের মোটিভ কী তা অনুসন্ধানে আমরা কাজ করছি।

আজ সকালে আবুধাবিতে বাস দুর্ঘটনায় প্রাণে বেঁচে গেল ৫২ জন হজযাত্রী !

আজ মঙ্গলবার সকালে আরব আমিরাতে ৫২ জন হজ্জ্ব যাত্রীসহ একটি বাস দুর্ঘটনা ঘটে কিন্তু ভাগ্যক্রমে বড় ধরণের দুর্ঘটনার হাত থেকে বেঁচে যায় ৫২ হাজী সহ বাসটি ।

আবুধাবি পুলিশ কর্তৃক জারি করা একটি বিবৃতি অনুসারে, ৫২ জন হজ্জ্ব যাত্রী পবিত্র শহর মক্কা থেকে উমরাহ পালন করে আবুধাবি হয়ে ওমানের সুলতানতে পৌঁছানোর সময় বাসে এ দুর্ঘটনা ঘটে । একটি সংযুক্ত আরব আমিরাত মহাসড়কে বাসটি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে মেটাল বাধ ভেঙে গিয়ে বাইরে চলে যায় । ওমানের দিকে আবুধাবি শেখ খলিফা বিন জায়েদ রোড এ দুর্ঘটনা ঘটে।

এ দুর্ঘটনায় কারো কোন হতাহতের ঘটনা বা আঘাতের খবর পাওয়া যায়নি। আবুধাবি ট্রাফিক পুলিশের বহিরাগত অঞ্চলের ট্রাফিক বিভাগের পরিচালক জানান, হজ্জ্ব যাত্রীদের উদ্ধারের জন্য অবিলম্বে দুর্ঘটনাস্থলে পৌঁছে ।

একটি বিকল্প পরিবহন ব্যবস্থা করা হয় না হওয়া পর্যন্ত তাদের বিভিন্ন সেবা , খাবার এবং পানীয় সরবরাহ করা হয়েছে।পুলিশ নিয়মিত যানবাহন চালানোর জন্য সতর্কতা অবলম্বন করে এবং দুর্ঘটনা এড়াতে ট্র্যাফিকের নিয়ম ও স্পিড সীমাগুলি অনুসরণ করতে নির্দেশ দিয়েছে ।

এইচএসসির ফলের অপেক্ষায় সাড়ে ১৩ লাখ শিক্ষার্থী

আগামীকাল উচ্চমাধ্যমিক সার্টিফিকেট (এইচএসসি) ও সমমানের পরীক্ষার ফল প্রকাশিত হচ্ছে। দুপুর ১টায় শিক্ষার্থীরা আনুষ্ঠানিকভাবে নিজ কলেজ ও মাদ্রাসা থেকে ফল জানতে পারবে। এছাড়া এসএমএস ও অনলাইনে ফল জানা যাবে।

বুধবার দুপুর সাড়ে ১২টায় সংবাদ সম্মেলনে ফল প্রকাশের আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দেবেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি। এর আগে সকাল ১০টায় প্রধানমন্ত্রীর হাতে ফলাফলের সার-সংক্ষেপ তুলে দেয়ার মাধ্যমে ফলপ্রকাশের প্রক্রিয়া শুরু করা হবে।

উল্লেখ্য, চলিত বছরের এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষা শুরু হয় গত ১ এপ্রিল। আটটি সাধারণ শিক্ষা বোর্ড, মাদ্রাসা ও কারিগরি বোর্ড মিলিয়ে মোট পরীক্ষার্থী ছিলেন ১৩ লাখ ৫১

হাজার ৫০৫ জন। এর মধ্যে আটটি সাধারণ শিক্ষা বোর্ডের অধীনে শুধু এইচএসসি পরীক্ষার্থী ছিলেন ১১ লাখ ৩৮ হাজার ৭৪৭ জন।

অবশেষে নোবেলের রেজাল্ট নিয়ে মুখ খুললেন অনুপম

কোন প্রতিযোগিতায় প্রথম স্থান অধিকার একটি জিনিস আর মানুষের মনের মণিকোঠায় জায়গা করে নেওয়া আর একটি জিনিস। বাংলাদেশের গর্ব নোবেল তার প্রতিভা দিয়ে এই দ্বিতীয় কাজটি করে নিয়েছেন।

আর তাই দুই বাংলায় আজ অধিকাংশ মানুষের মনে তার স্থান। একান্ত এক সা*ি*ক্ষাৎকারে গায়ক এবং লেখক অনুপম রায় বলেন, ‘নোবেল খুব ভালো ছেলে। ওর খুব ভালো হবে আমি ওর সাথে আছি। ও সব কাজে আমাকে পাবে সাথে।’

ইতিমধ্যে প্রখ্যাত পরিচালক সৃজিত মুখার্জি পরিচালিত সিনেমা ‘ভিঞ্চি দা’ সিনেমার জন্য কণ্ঠ দিয়েছেন নোবেল। ‘তোমার মনের ভেতর’ শিরোনামের গানটির কথা লিখেছেন ও সুর করেছেন অনুপম। তাছাড়া তরুণ গায়ক নোবেল এবং তার লাখ

লাখ অনুরাগীদের কাছে খুব যু*ক্তি*যু**ক্ত অনুরোধ রেখেছেন আর এক গুণী মানুষ, গায়িকা লোপামুদ্রা মিত্র।

তিনি বলেন, ‘নোবেল এর ফ্যান ক্লাব কে একটা কথাই বলতে চাই আর তা হল, একটি রিয়েলিটি শো এর রেজাল্ট এর উপর মানুষের ভবিষ্যত নি**র্ধারিত হয় না। আমরা অরিজিৎ সিং এর গান শুনি। অরিজিৎ সিং ও একটি রিয়েলিটি শো থেকে বাদ পড়েছিল সেটা আমরা সকলেই জানি।’

‘আমি নিজের কথা বলতে পারি আমাদের এখানে স্টেট লেভেল এর একটি কম্পিটিশন হতো সেখানে আমি ও চান্স পাইনি। একটি রিয়েলিটি শো মানুষের ভবিষ্যত নি**র্ধারিত করে দেয় না। নোবেল এর আসল পরীক্ষা শুরু হচ্ছে এখন থেকে। তার চেষ্টা এবং তার গায়েকি তাকে অনেক দূর নিয়ে যাবে এটা আমার বিশ্বাস।’

তালাক পেয়ে খুশিতে দুধ দিয়ে গোসল করলেন স্বামী!

টাঙ্গাইলের মধুপুরে স্ত্রীর তালাকের নোটিশ পেয়ে খুশিতে দুধ দিয়ে গোসল করেছেন এক স্বামী। সোমবার উপজেলার জাঙ্গালিয়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। শুধু গোসল নয়, আনন্দে দুই শতাধিক পড়শিকে বাড়িতে নিমন্ত্রণ করে ভূরিভোজও করিয়েছেন তিনি। এ ঘটনায় এলাকায় হাস্যরসের সৃষ্টি হয়েছে।

উপজেলার জাঙ্গালিয়া গ্রামের নয়নে আলীর ছেলে আলমকে (১৮) একই গ্রামের মো. আনোয়ার হোসেনের মেয়ে রিনা আক্তার (১৬) তালাকের নোটিশ পাঠালে স্বামী এ কাণ্ড করেন।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে দুধে গোসল করার ছবিটি ভাইরাল হলে পুরো উপজেলায় তোলপাড় শুরু হয়।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, তিন মাস আগে উপজেলার জাঙ্গালিয়া গ্রামের নয়ন আলীর ছেলে আলম (১৮) একই গ্রামের মো. আনোয়ার হোসেনের মেয়ে রিনা আক্তারকে (১৬) ভালোবেসে বিয়ে করেন। ছেলে-মেয়ের চাপেই বাবা-মা এ বাল্যবিয়েটি দিয়েছিলেন। কিন্তু বিয়ের এক মাস পার হতে না হতেই নেশা করা নিয়ে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে মনোমালিন্য শুরু হয়। এ মনোমালিন্যের এক পর্যায়ে স্বামী আলমকে তালাক দেন স্ত্রী রিনা।

মেয়ের বাবা আনোয়ার ড্রাইভার জানান, ছেলে কামাই-রোজি করেনা উল্টো নেশা করে মাতলামি করে। মেয়ে তার সংসার করবে না বলে তালাক দিয়েছে।

স্থানীয়রা জানান, এক সময় কোনো শুভ খবরে দুধ ঢেলে, আপনজনকে আশীর্বাদ করা ছিল পাহাড়ী গারো সমাজের প্রচলিত নিয়ম। ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠি কোচরা নতুন বধূকে বরণে দুধে স্নান করাতেন। বিচ্ছেদ হওয়া স্বামীস্ত্রীর সম্পর্ক পুনঃএকত্রীকরণ হলে দুধ ঢেলে আশীর্বাদের রেওয়াজ এখনো রয়েছে। যাতে সারাজীবন টিকে থাকে সেই সম্পর্ক।

কিন্তু তালাকের নোটিশ পেয়ে উচ্ছসিত স্বামী খুশিতে ডগমগ হয়ে দুধে গোসল করেন। এমন ঘটনা সচরাচর ঘটে না। এ ধরনের নেতিবাচক খুশিতে আলোচনা-সমালোচনার ঝড় বইছে ওই এলাকায়।

যেভাবে জানা যাবে এইচএসসির ফল

২০১৯ সালের এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষা শুরু হয় ১ এপ্রিল। আটটি সাধারণ শিক্ষা বোর্ড, মাদরাসা ও কারিগরি বোর্ড মিলিয়ে মোট পরীক্ষার্থী ছিল ১৩ লাখ ৫১ হাজার ৫০৫ জন। এর মধ্যে আটটি সাধারণ শিক্ষা বোর্ডের অধীনে শুধু এইচএসসি পরীক্ষার্থী ছিল ১১ লাখ ৩৮ হাজার ৭৪৭ জন।

উচ্চমাধ্যমিক সার্টিফিকেট (এইচএসসি) ও সমমানের পরীক্ষার ফল আগামী বুধবার (১৭ জুলাই) প্রকাশ করা হবে।

বেলা ১টায় স্ব স্ব কেন্দ্র ও প্রতিষ্ঠান থেকে এবং অনলাইনে একযোগে ফল প্রকাশ করা হবে। শিক্ষা মন্ত্রণালয় ও আন্তঃশিক্ষা বোর্ড কমিটি সূত্র এ তথ্য জানিয়েছেন।

বুধবার সকাল ১০টায় গণভবনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাতে ফলের অনুলিপি তুলে দেয়া হবে। পরে সংবাদ সম্মেলন করে বিস্তারিত জানানো হবে।

এদিকে স্ব স্ব প্রতিষ্ঠান থেকে রেজাল্ট শিট ডাউনলোডের প্রক্রিয়া কেন্দ্রের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাদের জানিয়েছে ঢাকা বোর্ড। বোর্ডের ওয়েবসাইটে

(www.dhakaeducationboard.gov.bd) ‘রেজাল্ট’ কর্নারে ক্লিক করে ইআইআইএন নম্বর এন্ট্রি করে প্রতিষ্ঠনভিত্তক রেজাল্ট শিট ডাউনলোড করা যাবে। এ ছাড়া ডিসি ও ইউএনও ইমেইলে কেন্দ্র ও প্রতিষ্ঠানভিত্তিক ফল পাঠানো হবে। ডিসি অফিস ও ইউএনও কার্যালয় থেকে ফলের হার্ড কপি সংগ্রহ করা যাবে।

এ ছাড়া দুপুর ১টায় মাদরাসা শিক্ষা বোর্ডের ওয়েবসাইটে (www.bmeb.gov.bd) প্রবেশ করে আলিম পরীক্ষার জেলা ও প্রতিষ্ঠান ভিত্তিক ফল পাওয়া যাবে।

Share