আরব আমিরাতের আবুধাবি পরিবহন অধিদপ্তরের বিশেষ ঘোষণা ! ১ জানুয়ারী, 2020 পর্যন্ত …

পরিবহণ অধিদফতর – আবু ধাবি (ডিওটি) আবুধাবিতে টোল গেটগুলির ফী প্রয়োগের বিষয়ে অনিশ্চয়তা দূর করে স্পষ্ট করে দিয়েছে মঙ্গলবার, ১৫ ই অক্টোবর, স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছে যে গাড়ি চালকদের আগামী ১ জানুয়ারী, 2020 পর্যন্ত কোন ফী চার্জ করা হবে না। তাছাড়া, কিছু ফি ছাড় এবং মাসিক ক্যাপগুলিও ঘোষণা করা হয়েছিল।

গত কয়েক সপ্তাহ ধরে সংযুক্ত আরব আমিরাত জুড়ে খালিজ টাইমসের সাথে কথা বলার জন্য বাসিন্দারা উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েছিলেন কারণ তাদের গাড়ি নিবন্ধনের জন্য অ্যাকাউন্ট তৈরি করতে এবং তারপরে অর্থ প্রদানের জন্য টপ-আপ করার বিষয়টি ছিল। এছাড়াও, আবুধাবি নিবন্ধিত যানবাহনের মালিকরা তাদের স্বয়ংক্রিয় অ্যাকাউন্টের বিবরণ সহ এখনও এসএমএস পাননি। প্রযুক্তিগত ত্রুটির সম্মুখীন হয়েছে , মুসাফাহা সড়কের চারটি টোল গেটের একটিতে এই ত্রুটিযুক্ত স্থান নির্ধারণের কারণেই স্থানান্তরিত করতে হয়েছিল।

এই সমস্ত উদ্বেগের সাথে, পরিবহন চালকদের কিছু দেওয়ার দরকার মনে করে এবং রবিবার সন্ধ্যায় ধারাবাহিক টুইটের মাধ্যমে আবুধাবি সরকারী মিডিয়া অফিস নতুন পদক্ষেপের কথা ঘোষণা করেন। আবুধাবি পরিবহণ অধিদফতর ঘোষণা করেছে যে আবুধাবি ট্র্যাফিক টোল গেট সিস্টেমটি বিনা মূল্যে 15 ই অক্টোবর, 2019 থেকে ২০২০ সালের ১ জানুয়ারি পর্যন্ত চলাচল করতে পারবে । এই সময়টি বাসিন্দাদের সেরা ভ্রমণের সময় পরিকল্পনা করতে এবং পরিবহন বিকল্পগুলি অন্বেষণ করার জন্য আরও বেশি সময় সরবরাহ করবে আহ্বান করেছে ।

“মোটর চালকরা প্রত্যাশিতভাবে স্বস্তি পেয়েছেন তবে রাস্তায় যানবাহন হ্রাস এবং পরিবেশ সংরক্ষণের প্রয়োজনীয়তা বোঝেন – টোলগুলির পিছনে মূল ধারণা অর্জন করবে ।একটি প্রাইভেট ফার্মের দীর্ঘকালীন বাসিন্দা এবং প্রকৌশলী ফয়সাল আবদুল বলেছেন “এটি আশ্চর্যজনক সংবাদ এসএমএস এখনও মুলতুবি রয়েছে সুতরাং, আমি আসলে আজ বা কাল একই ধরণের ঘোষণার প্রত্যাশা করছিলাম আমরা সহকর্মীরা আজ বিকেলে টোল নিয়ে আলোচনা করছিলাম দফতর কর্তৃপক্ষের এই সিদ্ধান্তটি বোধগম্য তাদের ধন্যবাদ ।

আবুধাবি বিমানবন্দর থেকে ১ মিলিয়ন দিরহাম পুরুস্কার পেয়ে গেল প্রবাসী আফজাল !

আবুধাবি বিমানবন্দরে সম্প্রতি একজন যাত্রী ভ্রমণ কালে আজ ১ মিলিয়ন দিরহামের লটারি জিতেছেন।’Feel Good, Fly AUH’ প্রচার শেষ হওয়ার পরে বিজয়ীর নাম ঘোষণা করা করেছে ।জুন থেকে আগস্ট এর মধ্যে আবু ধাবি আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর (এএইচ) দিয়ে যেসব যাত্রীরা ভ্রমণ করেছিলেন তাদের জন্য পুরষ্কার প্রাপ্তির জন্য ড্র করা হয়েছিল।বিজয়ী আফজাল চেম্বন, ৩০ শে সেপ্টেম্বর, ২০১৯ এ আবুধাবি আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে দ্বারা আয়োজিত একটি বিশেষ লাইভ-স্ট্রিমড ড্র ইভেন্টের সময় প্রকাশিত হয়েছিল।

এই ঘোষণার প্রচারের সমাপ্তি অনুসরণ করা হয়েছিল, যা এই যাত্রীর মধ্য দিয়ে ভ্রমণকারী সকল যাত্রীদের জন্য উন্মুক্ত ছিল follows গ্রীষ্মে বিমানবন্দর আবুধাবি বিমানবন্দরের চিফ এক্সিকিউটিভ অফিসার ব্রায়ান থম্পসনের কাছ থেকে আফজাল ১ মিলিয়ন দিরহামের চেকটি গ্রহণ করেন।
থম্পসন বলেছিলেন: “আবুধাবি বিমানবন্দরে আমরা আমাদের যাত্রীদের একটি সাবলীল ও বিরামবিহীন ভ্রমণের অভিজ্ঞতা প্রদানের পাশাপাশি চমৎকার ফলপ্রসূ অফার এবং সুযোগগুলি সরবরাহ করতে পেরে আনন্দিত। আজ, আমরা একজনের জীবন পরিবর্তনে অংশ নিতে পেরে গর্বিত। আমাদের যাত্রীদের মধ্যে থেকে ১ মিলিয়ন পুরষ্কার প্রদান করে এবং আবু ধাবি আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর দিয়ে ভ্রমণ করার আহ্বান করেন ।

আফজাল “আমি যখন আবু ধাবি আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর দিয়ে ভ্রমণ করি তখন আয়োজিত র‌্যাফেল ড্রয়ে অংশ নিয়েছিলাম, বিশেষ করে অন্যান্য কয়েক হাজার যাত্রীও অংশ নেবেন জেনে আমি বিশেষ পুরষ্কার জয়ের প্রত্যাশা করিনি, । আমি কখনই ভাবিনি যে আবুধাবি আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর দিয়ে ভ্রমণ করে এতো বড় পুরুস্কার পেয়ে যাব আর আমার জীবনকে এভাবে পরিবর্তন করে দিবে , যা আমি অবিশ্বাস্যভাবে কৃতজ্ঞ। আমি আবু ধাবি বিমানবন্দরকে ধন্যবাদ জানাতে চাই, যা আমার অভিজ্ঞতায় সর্বদা যাত্রীদের দুর্দান্ত পরিষেবা সরবরাহ করার চেষ্টা করেছে এবং আমার প্রিয় বিমানবন্দর হয়ে গেছে ।

সৌদি আরবে সড়ক দুর্ঘটনায় নি’ হত ৪ বাংলাদেশির লা’ শ পাঠাল !

সৌদি আরবে সড়ক দুর্ঘটনায় নি’ হত চার বাংলাদেশির লা ‘শ বাংলাদেশে পাঠানো হয়েছে। বুধবার ভোরে চারজনের ম ‘রদেহ ঢাকার হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পৌঁছার কথা।গত ২৩ আগস্ট সৌদি আরবের মদিনায় আল ফাহাদ কোম্পানিতে কাজ শেষে পিকআপভ্যানে করে বাসায় ফিরছিলেন নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজার উপজেলার চার যুবক। পথে তাঁদের বহনকারী পিকআপের চাকা ফেটে প্রাইভেটকারের সঙ্গে ধাক্কা লেগে পিকআপভ্যানটি উল্টে যায় এবং ঘটনাস্থলেই তাঁরা মা’ রা যান।

পরে তাঁদের ম’ রদেহ মদিনায় কিং ফাহাদ হাসপাতালের হিমঘরে রাখা হয়েছিল। গত দেড় মাস নি’ হতদের পরিবারের লোকজন শেষবারের মতো প্রিয় সন্তানের মুখটি দেখার জন্য অপেক্ষায় রয়েছেন।এদিকে, হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে লা’ শ গ্রহণ করার জন্য এরই মধ্যে সৌদি আরবের রাজধানী রিয়াদে বাংলাদেশ দূতাবাস থেকে নি’ হতের পরিবারকে জানানো হয়েছে।

নি’ হতরা হলেন নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজার উপজেলার কালাপাহাড়িয়া ইউনিয়নের বদলপুর গ্রামের সুরুজ মিয়া ও নুরে আলম ওরফে নুরা মিয়া, খালিয়ারচর গ্রামের উজ্জ্বল এবং উপজেলার খাগকান্দা ইউনিয়নের চম্পকনগর গ্রামের রাসেল।

শেরেবাংলা হল হয়ে গেল শহীদ আবরার হল, টয়লেটের লোকেশনে লেখা হল খু’নি’দের নাম !

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়- বুয়েটের শেরে বাংলা হলের নাম পরিবর্তন হয়ে গুগল ম্যা’পে দেখাচ্ছে আবরার হল।শুধু তাই নয়, হলের ভেতরে যে টয়লেটগুলো রয়েছে, সেগুলোর লোকেশন দেখাচ্ছে আব’রার হ’ত্যা’য় অভি যু’ক্তদের নামে। যেমন- কিলার ফুয়াদ পাবলিক টয়লেট, অমিত শাহ পাবলিক টয়লেট, রাসেল পাবলিক টয়লেট, অনিক সরকার পাবলিক ট’য়লেট, রবিন পাবলি’ক টয়লেট।

গত ৬ই অক্টোবর রাতে বুয়েটের শেরে বাংলা হলের ২০১১ নম্বর কক্ষে আবরার ফাহাদকে বুয়েট শাখা ছাত্রলীগের কয়েকজন নেতাক’র্মী মা’রধ’র করে। পরে, হলের দ্বিতীয় তলার সিঁড়ি থেকে অচে’তন অবস্থায় আব”র ফাহাদকে উদ্ধার করা হয়। ঢাকা মে’ডিক্যাল কলেজ (ঢামেক) হাসপা’তালে নিলে চি’কিৎসক তাকে মৃ”ত’ ঘো’ষণা করেন।’

শাকিবকে নিয়ে আবারো স্বপ্ন ভঙ্গ হলো কোয়েল মল্লিকের ,

শাকিব খানের প্রযোজনা সংস্থা এসকে মুভিজ থেকে ‘হ্যাকার’ নামে নতুন ছবি নির্মাণের ঘোষণা এসেছে। সোমবার পরিচালক সমিতিতে ছবিটির নামও এন্ট্রি করা হয়েছে। ছবিটি নির্মাণ করবেন নির্মাতা মালেক আফসারী। সোমবার সন্ধ্যা থেকে বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে খবর প্রকাশিত হয় এ ছবিতে শাকিব খানের নায়িকা থাকছেন কলকাতার অভিনেত্রী কোয়েল মল্লিক।বিষয়টি জানতে নির্মাতা মালেক আফসারীর সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে বলেন, ‘হ্যাকার’ ছবিতে কোয়েল মল্লিকে নেয়ার বিষয়টি অনেক আগের প্ল্যান। তবে এ ব্যাপারে আমি শিউর না। কারণ ছবিটি নির্মাণের অর্থ ব্যয় করবে প্রযোজক;

তাই তারাই চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত জানাতে পারবেন। আর আমি শুনেছি কোয়েল মল্লিকের সঙ্গে ছবিটির বিষয়ে কথা হয়েছে। যেহেতু শিডিউলটা আমার হাতে এসে পৌঁছায়নি তাই এ বিষয়ে কনফার্ম কিছু বলতে পারছি না।পরিচালকের দেয়া তথ্য মতে বিষয়টি জানতে যোগাযোগ করা হয় ছবির সহযোগী প্রযোজক মোহাম্মাদ ইকবালের সঙ্গে। তিনি বলেন, কোয়েল মল্লিককে নায়িকা নেয়ার খবরটি ভুয়া। আমরা পরিচালক সমিতিতে ছবিটির নাম এন্ট্রি করেছি এটা সত্য। তবে নায়িকা এখনো চূড়ান্ত হয়নি। কলকাতার নায়িকা নেয়ার কোনো চিন্তাই আমাদের নেই। আগামী ১ তারিখ থেকে ‘বীর’ ছবির শুটিং, ‘বীর’ শেষ করার পর এ ছবির বিষয়ে সিদ্ধান্ত হবে।

শাকিব-কোয়েল
তবে এ প্রযোজক জানান, ‘হ্যাকার’ ছবির চিত্রনাট্য করেছেন আবদুল্লাহ জহির বাবু। ছবির জন্য শাকিব খানের সঙ্গে মিশা সওদাগরও শতভাগ চূড়ান্ত। নায়িকা ঠিক হলে প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান থেকেই জানানো হবে। সবকিছু ঠিক থাকলে আসছে ডিসেম্বরের প্রথম সপ্তাহেই ছবিটির শুটিং শুরু হবে।

অপমান হওয়া নিয়ে সাংবাদিকদের মুখোমুখি চিত্রনায়িকা মৌসুমী নিজেই

বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির দ্বি-বার্ষিক নির্বাচন নিয়ে রয়েছে পাল্টাপাল্টি অভিযোগ। এবার সভাপতি পদে মিশা সওদাগর। অন্যদিকে একই পদে স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন চিত্রনায়িকা মৌসুমী।তবে সোমবার (১৪ অক্টোবর) বিএফডিসিতে খল অভিনেতা ড্যানি রাজের কাছে অপমানিত হন ৩ শ-এরও বেশি চলচ্চিত্রে অভিনয় করা নায়িকা মৌসুমী। এছাড়া আগামী ২৫ অক্টোবর নির্বাচনকে ঘিরে নানা অভিযোগও রয়েছে এই অভিনেত্রীর। বিষয়গুলো নিয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন মৌসুমী-

-সোমবার (১৪ অক্টোবর) সন্ধ্যায় আসলে কী ঘটেছিল?
মৌসুমী: আওয়ামী লীগের সক্রিয় রাজনীতিতে আমি এখন যুক্ত আছি। সেই সূত্রে সোমবার সন্ধ্যায় স্থানীয় এক আওয়ামী লীগ নেত্রী ও কর্মীরা ফোন দিয়ে জানতে চায়, আমি কোথায় আছি? আমি তখন প্রচারণার জন্য এফডিসিতে ছিলাম। তারা বলেন, আমাকে শুভ কামনা জানাতে এফডিসিতে আসবেন। সে হিসেবে তারা আসেন। তারা শিল্পী সমিতির সামনে আমার সাথে সেলফি তুলে চলে যাওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন। ঠিক ওই সময়ে ড্যানি রাজ এসে বলেন, ‘এরা করা? আপনার এখানে এসেছেন কেন?’ তিনি ধমকের সুরে বলেন, ‘বের হয়ে যান।’ তখন আমি তাকে বাধা দিয়ে বলি, ‘তারা আমার অতিথি আপনি উত্তেজিতভাবে কথা বলছেন কেন?’ তখন ড্যানি চিৎকার করে আমাকে বলেন, ‘আপনি কে?’

আমি হতভম্ব হয়ে যাই। শত শত ছবিতে কাজ করা একজন অভিনেত্রীকে শিল্পী সমিতির একজন সদস্য জিজ্ঞেস করছেন, ‘আপনি কে?’ আমি পাশে তাকিয়ে দেখি মিশা। তাকে বলি, মিশা তুমি কথা বলছ না কেন? তুমি তো সদ্য বিদায়ী প্রেসিডেন্ট। ড্যানি রাজ আমাকে ‘আপনি কে’ বলার সাহস কোথায় পেলেন?
চারদিকে তখন তুমুল উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে।মৌসুমী :
-এরপর কী ঘটে? বিষয়টি নির্বাচন কমিশনার কি জানেন?
মৌসুমী: এর কিছুক্ষণ পর প্রধান নির্বাচন কমিশনার কাঞ্চন ভাই (ইলিয়াস কাঞ্চন) আসেন। বিষয়টি নিয়ে মিটিংয়ে বসেন। ঘটনা শোনার পর বেশ ক্ষুব্ধ হন তিনি। এরপর ড্যানিকে বলেন, ‘আপনি কি নির্বাচনের প্রার্থী? অন্য প্রার্থীদের অভিযোগ নেই, কিন্তু আপনি ভোটার হয়ে অসদাচরণ কেন করেছেন? আপনি কি জানেন, এমন আচরণের জন্য এই মুহূর্তে আপনার সদস্যপদ বাতিল করতে পারি?’

এরপর ড্যানি রাজ বলেন, ‘আমি দুঃখিত, আমার ভুল হয়ে গেছে। সরি।’
কিন্তু ক্ষমা চাওয়াই তো সব নয়। একজন সিনিয়র শিল্পীর সঙ্গে দুর্ব্যবহার করবেন, আর ক্ষমা চাইবেন সব শেষ হয়ে যাবে? আমার প্রশ্ন অন্য সিনিয়র শিল্পীদের কাছে, আপনার সঙ্গে যদি কোনও শিল্পী এমন ব্যবহার করতেন, আপনারা মেনে নিতেন? আমার চেয়েও তো অনেক সিনিয়র শিল্পী এফডিসিতে নিয়মিত যাতায়াত করেন, তারা কী বলবেন?
-আপনার প্যানেল নিয়ে নির্বাচনে আসার কথা ছিল। কয়েকজনের নামও শোনা গেল। এরপর শেষ মুহূর্তে অনেকেই সরে গেলেন। প্যানেল আর হলো না। আপনি তাহলে কাদের ভরসায় নির্বাচন করছেন?
মৌসুমী: এটা ঠিক, আমি প্যানেল করতে চেয়েছি। কিন্তু নানা মহলের চাপে অনেকে সরে যেতে বাধ্য হয়েছেন। বেনামে বহু হুমকি আসতে থাকে তাদের ফোনে। আমার ফোনেও এগুলো আসছে। তবে আমি এগুলোর ভয় করি না।

তাদের তো পরিকল্পনা ছিল ইলেকশন নয়, সিলেকশন। সবাই সরে যাবে মাঝখান দিয়ে তারা বিজয়ী হবেন। তবে আমি নির্বাচন করাতে সেটা আর হচ্ছে না। নির্বাচন হচ্ছে। আর আমার ভরসার জায়গাটা হচ্ছেন সাধারণ ভোটার। ২৬-২৭ বছর ধরে তাদের সঙ্গে আমার ওঠা-বসা। তারা আমাকে যেমন ভালো করে জানেন-চেনেন, আমিও তেমনিভাবে তাদের চিনি ও জানি।
-অভিযোগ রয়েছে আপনাকে পাওয়া যায় না? সাংবাদিকরা পান না। সাধারণ ভোটাররা আপনার কাছে কীভাবে পৌঁছাবেন?
মৌসুমী: আমি তো সাংবাদিকের সঙ্গে কথা বলি। এটা তো নতুন নয়। অনেক পুরনো শিল্পীরা আমার নম্বর জানেন। আমার গোড়াপত্তন তো এফডিসিতেই। সেখানে সরাসরি যে কেউ-ই আমার সঙ্গে কথা ও দেখা করেন। তাদের সমস্যা সমাধানের জন্য আমাদের কার্যালয়ও (শিল্পী সমিতি) আছে।

এরপর আমি আমার একটি নম্বর প্রত্যেক ভোটারের কাছে পৌঁছে দিয়েছি। যেন তারা সরাসরি আমার সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারেন। আশা করি, যোগাযোগের কোনও সমস্যা হবে না।-একটি বিষয় হয়তো খেয়াল করেছেন, চলচ্চিত্রের নির্মাণ একেবারে কমে গেছে। চলতি বছর খুবই কম সংখ্যক ছবি মুক্তি পেয়েছে। চলচ্চিত্র নির্মাণ নিয়ে কী ভাবছেন?
মৌসুমী: আগে তো পরিবেশ তৈরি করতে হবে। আমরা সেই পরিবেশটাই তৈরি করতে চাই। এগুলো নিয়ে আগে আমাদের কাজ করতে হবে। অনুকূল পরিবেশ পেলে প্রযোজকরা আস্তে আস্তে সিনেমায় ফিরবেন।

কমে গেল আরব আমিরাত সহ বিভিন্ন দেশে স্বর্ণের দাম !

এই মুহূর্তে দেশে প্রবাসে যে যেখানে আছেন আমার বাংলাদেশ এ স্বাগতম ! ধনী থেকে গরিব সবাই চায় এটি কাছে রাখতে । কিন্তু অনেক দাম হওয়ার কারনে শুধু ধনী বাক্তিরাই সেটি সংরক্ষন করতে পারে। তবে যারা দেশের বাইরে থাকেন তারাও মাঝে মাঝে ভাল স্বর্ণ কম মূল্যে কিনতে পারে।বেশ কিছুদিন যাবৎ স্বর্ণের দাম খুব বেড়ে গিয়েছিল।

তবে মধ্যপ্রাচ্যের বিভিন্ন দেশে যেমন আরব আমিরাত আজ সকাল থেকে স্বর্ণের দাম গত দিনের তুলনায় প্রতি গ্রামে ২ -৩ দিরহাম কমেগেছে। গত সপ্তাহে যেখানে প্রতি গ্রামের (24 ক্যারাট) দাম ছিল ১৮৩.০০ দিরহাম কিন্তু কমে গিয়ে আজ ১৮০ দিরহাম নেমে এসেছে।

ভরি =১১.৬৫৪ গ্রাম

বাংলাদেশ: প্রতি গ্রাম স্বর্ণের দাম (24 ক্যারাট)  =  3525  টাকা ।  দুবাই: প্রতি গ্রাম স্বর্ণের দাম (24 ক্যারাট) – 1 গ্রাম =  180.00দেরহাম,  (22 ক্যারাট) – 1 গ্রাম = 169.00 দেরহাম । সৌদি আরব: প্রতি গ্রাম স্বর্ণের দাম (24 ক্যারাট) – 1 গ্রাম =  181.20 সৌদি রিয়্যাল, (22 ক্যারাট) – 1 গ্রাম = 170.26 সৌদি রিয়্যাল ।

কাতার: প্রতি গ্রাম স্বর্ণের দাম (24 ক্যারাট) – 1 গ্রাম = 174.48 কাতারি রিয়্যাল ।

সিঙ্গাপুর: প্রতি গ্রাম স্বর্ণের দাম (24 ক্যারাট) – 1 গ্রাম = 63.44 ডলার ।

মালয়েশিয়া: প্রতি গ্রাম স্বর্ণের দাম (24 ক্যারাট) – 1 গ্রাম = 190.34 রিংগিত ।

ইংল্যান্ড: প্রতি গ্রাম স্বর্ণের দাম (24 ক্যারাট) – 1 গ্রাম = 38.55 ব্রিটেন পাউন্ড ।

বাহরাইন: প্রতি গ্রাম স্বর্ণের দাম (24 ক্যারাট) – 1 গ্রাম = 18.30 দিনার ।

ওমান: প্রতি গ্রাম স্বর্ণের দাম (24 ক্যারাট) – 1 গ্রাম = 17.45 রিয়াল ।

অস্ট্রেলিয়া: প্রতি গ্রাম স্বর্ণের দাম (24 ক্যারাট) – 1 গ্রাম = 58.48 অস্ট্রেলিয়ান ডলার ।

কুয়েত: প্রতি গ্রাম স্বর্ণের দাম (24 ক্যারাট) – 1 গ্রাম = 15.13 দিনার ।

কানাডা :  প্রতি গ্রাম স্বর্ণের দাম (24 ক্যারাট) – 1 গ্রাম =  61.18 কানাডিয়ান ডলার ।

আমেরিকা: প্রতি গ্রাম স্বর্ণের দাম (24 ক্যারাট) – 1 গ্রাম = 46.75 আমেরিকান ডলার ।

যেকোনো সময় স্বর্ণের রেট উঠানামা করতে পারে। যে যেখানে আছেন নিরাপদে থাকুন, আনন্দময় হোক আপনার সারাদিন।নতুন নতুন খবর পেতে সবসময় আমার বাংলাদেশের এর সঙ্গে থাকুন। ধন্যবাদ ।

সংযুক্ত আরব আমিরাত বৈঠক শেষে যা বললেন রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন !

সংযুক্ত আরব আমিরাত আজ মঙ্গলবার রাশিয়ার রাষ্ট্রপতি ভ্লাদিমির পুতিনের ল্যান্ডমার্ক সফরকালে রেড কার্পেটটি সরিয়ে নিয়েছে। রাশিয়ার রাষ্ট্রপতি রাষ্ট্রীয় অরস সেনা আরবীয় ঘোড়ায় চড়ে অশ্বারোহী দ্বারা আবুধাবিতে কসর আল ওাতানকে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল। পুতিন এবং তাঁর সহযোগী প্রতিনিধিদল দুটি দেশের পতাকা দিয়ে রেখাযুক্ত রাস্তায় গাড়ি চালিয়েছিল। ওভারহেড ট্র্যাফিক লক্ষণগুলি রাশিয়ান ভাষায় বার্তা প্রদর্শিত হয়েছিল বিশেষ অতিথি, যিনি সংযুক্ত আরব আমিরাত সফর করছেন 12 বছর পর 21-বন্দুকের সম্মান দেওয়া হয়েছিল।

সংযুক্ত আরব আমিরাত এয়ার ফোর্স এরোব্যাটিক ডিসপ্লে টিম, আল ফুরসান রাশিয়ান জাতীয় রঙে আকাশে রঙিন হয়ে প্রাসাদের উপরে উড়ে এসেছিল। তিনি প্রাসাদে পৌঁছার সাথে সাথে রাশিয়ান পতাকা বহনকারী এমিরতিসীরা একটি ঐতিহ্যবাহী সংগীত পরিবেশনা করলেন।

আবুধাবির ক্রাউন প্রিন্স এবং সংযুক্ত আরব আমিরাতের সশস্ত্র বাহিনীর উপ-সর্বোচ্চ কমান্ডার, হিজরিজ শেখ মোহাম্মদ বিন জায়েদ আল নাহিয়ান রাশিয়ার রাষ্ট্রপতিকে স্বাদরে গ্রহণ করেছিলেন। দু’জন নেতা – যারা ঘনিষ্ঠ বন্ধন ভাগ করে নেওয়ার জন্য পরিচিত – তারা প্রাসাদটির মধ্যে হেঁটেছিলেন, যেখানে শিক্ষার্থীরা উভয় দেশের পতাকা উত্তোলন করে তাদের উত্সাহিত করেছিল ।

সংযুক্ত আরব আমিরাত এয়ার ফোর্স এরোব্যাটিক ডিসপ্লে টিম, আল ফুরসান রাশিয়ান জাতীয় রঙে আকাশে রঙিন হয়ে প্রাসাদের উপরে উড়ে এসেছিল। তিনি প্রাসাদে পৌঁছার সাথে সাথে রাশিয়ান পতাকা বহনকারী এমিরতিসীরা একটি ঐতিহ্যবাহী সংগীত পরিবেশনা করলেন।

আবুধাবির ক্রাউন প্রিন্স এবং সংযুক্ত আরব আমিরাতের সশস্ত্র বাহিনীর উপ-সর্বোচ্চ কমান্ডার, হিজরিজ শেখ মোহাম্মদ বিন জায়েদ আল নাহিয়ান রাশিয়ার রাষ্ট্রপতি আমন্রণ করেছিলেন। দু’জন নেতা – যারা ঘনিষ্ঠ বন্ধন ভাগ করে নেওয়ার জন্য পরিচিত – তারা প্রাসাদ পেরিয়েছিলেন, যেখানে শিক্ষার্থীরা উভয় দেশের পতাকা উত্তোলন করে তাদের আনন্দিত করেছিল। পুতিন দু’দেশের মধ্যে সম্পর্ক উন্নয়নে শেখ মোহাম্মদ বিন জায়েদের অব্যাহত সহায়তার প্রশংসা করেছেন।

তিনি উল্লেখ করেছেন যে সংযুক্ত আরব আমিরাত সফররত রাশিয়ান পর্যটকরা পর্যটন অর্থনীতিতে প্রায় ১.৩ বিলিয়ন ডলার যুক্ত করেছেন এবং ২৩ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছেন।
রাশিয়ান রাষ্ট্রপতি বলেন, “বিমানবন্দর থেকে রাষ্ট্রপতি প্যালেসে আমার সফরকালে আমি সংযুক্ত আরব আমিরাতের গতিশীল বিকাশের অগ্রগতি সম্পর্কে অবহিত হয়েছিলাম।”তিনি আরো বলেন যে দু’দেশের মধ্যে দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক বন্ধুত্বপূর্ণ ও গঠনমূলক প্রসঙ্গে অব্যাহত রয়েছে এবং যে কৌশলগত অংশীদারিত্বের ঘোষণা সংযুক্ত আরব আমিরাত এবং রাশিয়ার বাণিজ্য ও অর্থনৈতিক সম্পর্ককে আরো সুদৃঢ় করার ইঙ্গিত দেয়।

পুতিন আরও বলেন যে দু’দেশ বহু বিনিয়োগ ক্ষেত্র বিশেষ করে জ্বালানি ও শান্তিপূর্ণ পারমাণবিক শক্তি খাতে অংশীদারিত্ব করেছে। দুইদেশের মধ্যে পারমাণবিক শক্তি অংশীদারিত্ব করা হল।

পর্দার আড়ালে থেকেও জনপ্রিয়তায় একটুও পিছনে পড়েনি শাবনূর !

ঢাকাই সিনেমার প্রিয় মুখ শাবনূর। অনেক দিন থেকেই পর্দার আড়ালে তিনি। তাতে কী? তার জনপ্রিয়তায় একটুও ভাটা পড়েনি এখনো। হঠাৎ কোথাও কোনো অনুষ্ঠানে হাজির হলে তাকে দেখতে ঢল নামে মানুষের। খুশির খবর হলো অভিনয় জীবনের ২৬ বছর অতিক্রম করলেন এই নায়িকা। এ উপলক্ষে তার জীবনের ২৬ তথ্য দিয়ে সাজানো হলো এই প্রতিবেদন।

শাবনূর ১৯৭৯ সালের ১৭ ডিসেম্বর যশোর জেলার শার্শা উপজেলার নাভারণে জন্মগ্রহণ করেন। ২. শাবনূরের পুরো নাম কাজী শারমিন নাহিদ নূপুর। পরিবারের মানুষরা তাকে নূপুর বলেও ডাকেন। ৩. চলচ্চিত্রে নাম লেখানোর সময় স্বনামধন্য নির্মাতা এহতেশাম এই নায়িকার নাম রাখেন শাবনূর। শাবনূর শব্দের অর্থ রাতের আলো। ৪. শাবনূরের পিতার নাম শাহজাহান চৌধুরী। তিন ভাই বোনের মধ্যে সবচেয়ে বড় তিনি। বোন ঝুমুর এবং ভাই তমাল নিজ নিজ পরিবারসহ অস্ট্রেলিয়া প্রবাসী। ৫. শাবনূর আজ তার চলচ্চিত্রের পথচলায় ২৬ বছর পূর্ণ করলেন। শাবনূরের প্রথম চলচ্চিত্র চাঁদনী রাতে ১৯৯৩ সালের ১৫ অক্টোবর মুক্তি পায়। ছবিটি পরিচালনা করেন এহতেশাম এবং তার বিপরীতে নায়ক ছিল সাব্বির। এই ছবিটি ব্যর্থ হয়।

৬. শাবনূরের দ্বিতীয় সিনেমা ‘তুমি আমার’। এই সিনেমায় নায়ক হিসেবে পেয়েছিলেন সালমান শাহকে। এই সিনেমা দিয়ে আলোচনায় চলে আসেন এই নায়িকা।৭. সালমান শাহের সঙ্গে জুটি হয়ে মোট ১৪টি সিনেমায় অভিনয় করেছেন শাবনূর। এ জুটির বেশির ভাগ সিনেমা ব্যবসায়িক সফলতা পাওয়ার পাশাপাশি দর্শকনন্দিতও হয়েছে।৮. বিশেষ করে সালমান শাহ-শাবনূর জুটির উল্লেখযোগ্য সিনেমাগুলোর মধ্যে আছে ‘বিক্ষোভ’, ‘তোমাকে চাই’, ‘স্বপ্নের ঠিকানা’, ‘মহামিলন’, ‘বিচার হবে’, ‘জীবন সংসার’, ‘আনন্দ অশ্রু’সহ আরো বেশকিছু সিনেমা।৯. চিত্রনায়ক ওমর সানির সঙ্গে জুটি বেঁধেও ওয়াকিল আহমেদ পরিচালিত ‘প্রেমের অহংকার’ ও ‘অধিকার চাই’ শিরোনামে দুটি সফল সিনেমা উপহার দিয়েছেন সেই সময়।১০. সালমান শাহর সঙ্গে শাবনূরের শেষ সিনেমা ছিলো বুকের ভেতর আগুন। এ সিনেমার শুটিং শেষ হওয়ার আগেই মারা যান সালমান শাহ। এরপর সিনেমাটির বাকি অংশে শাবনূরের বিপরীতে অভিনয় করেন চিত্রনায়ক ফেরদৌস।

১১. সালমানের মৃত্যুর পর শাবনূর জুটি হিসেবে রিয়াজের বিপরীতে কাজ শুরু করেন। তার সঙ্গেও অনেক ব্যবসাসফল চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছেন। রিয়াজের বিপরীতে ‘মন মানেনা’, ‘তুমি শুধু তুমি’, ‘ভালবাসি তোমাকে’, ‘বিয়ের ফুল’, ‘নারীর মন’, শ্বশুরবাড়ী জিন্দাবাদ ছবিগুলো ব্যবসাসফল হয়। ১২. রিয়াজের সঙ্গে অর্ধশতাধিক সিনেমায় জুঁটি হয়েছেন শাবনূর। ১৩. সালমানের যুগেও ওমর সানী, অমিত হাসান, আমিন খান, বাপ্পারাজদের সঙ্গেও অভিনয় করে সফলতা পান শাবনূর। সালমানের মৃত্যু-পরবর্তী সময়ে রিয়াজ, শাকিব খান ও ফেরদৌসসহ অনেক নায়কের সঙ্গেই অভিনয় করে সফল হন শাবনূর। ১৪. ১৯৯৩ সাল থেকে বলা যায় প্রায় টানা পনেরো বছর শাবনূর তার রাজত্ব করে গেছেন। পরে অনেক পরিচালকের অনুরোধে চরিত্রে ভিন্নতা এনে চলচ্চিত্রে নিজেকে উপস্থাপন করেছেন।

১৫. অনেক দর্শকপ্রিয় চলচ্চিত্র তিনি উপহার দিলেও মোস্তাফিজুর রহমান মানিক পরিচালিত ‘দুই নয়নের আলো’ চলচ্চিত্রে অভিনয়ের জন্য ২০০৫ সালে তিনি প্রথম জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পান। এটিই তার প্রথম এবং একমাত্র জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার। ১৬. শাবনূরের উচ্চতা ৫ ফুট ৩ ইঞ্চি।
১৭. ২০১১ সালের ৬ ডিসেম্বর ব্যবসায়ী অনিক মাহমুদের সঙ্গে শাবনূরের আংটি বদল হয় এবং ২০১২ সালের ২৮ ডিসেম্বর তাকে বিয়ে করেন। এরপর তিনি অস্ট্রেলিয়ায় বসবাস শুরু করেন ও নাগরিকত্ব লাভ করেন।১৮. ২০১৩ সালের ২৯ ডিসেম্বর শাবনূর প্রথম ছেলেসন্তানের মা হন। তার ছেলের নাম আইজান নিহান।১৯. একমাত্র ছেলে আইজান নিহানের উজ্জ্বল ভবিষ্যতের কথা চিন্তা করেই অস্ট্রেলিয়ার সিডনিতে থাকেন শাবনূর। সেখানে ছেলেকে স্কুলে ভর্তিও করেছেন।

২০.রাজধানীর বারিধারা এলাকায় অবস্থিত সিডনি ইন্টারন্যাশনাল স্কুলের কর্ণধার শাবনূর।২১. হুমায়ূন আহমেদের গল্পেও কাজ করার সুযোগ হয়েছিলো শাবনূরের। ২০০৬ সালে কথাসাহিত্যিক হুমায়ূন আহমেদ রচিত উপন্যাস জনম জনম অবলম্বনে নির্মিত নিরন্তর ছায়াছবিতে অভিনয় করেন। আবু সাইয়ীদ পরিচালিত এই ছবিতে তিথি চরিত্রে তার অভিনয় সমালোচকদের প্রশংসা লাভ করে।২২. শাকিব খান তার ক্যারিয়ারে অনেক নায়িকার সাপোর্ট পেয়েছেন। তাদের মধ্যে অন্যতম শাবনূর। এফ আই মানিক পরিচালিত ‘ফুল নেবে না অশ্রু নেবে’ ও ইস্পাহানি আরিফ জাহান পরিচালিত ‘গোলাম’ চলচ্চিত্রে শাকিবের বিপরীতে অভিনয় করেছিলেন শাবনূর। ২৩.ঢাকাই সিনেমার একটি উল্লেখযোগ্য ব্যবসাসফল সিনেমার নাম ‘মোল্লাবাড়ির বউ’। এই সিনেমায়ও রিয়াজের নায়িকা ছিলেন শাবনূর।

২৪. ব্যক্তি জীবনে শাবনূর ভীষণ মিশুক প্রকৃতির মানুষ। এখনো নিয়মিত তার সময়ের কলাকুশলীদের খোঁজখবর রাখেন তিনি।
২৫. বছরের অধিকাংশ সময় অস্ট্রেলিয়ায়ই থাকেন। তবে দেশে ফিরলেই সিনেমার নানা অনুষ্ঠানে তার দেখা মেলে।
২৬.সব শেষ মোস্তাফিজুর রহমান মানিক পরিচালিত ‘এত প্রেম এত মায়া’ ছবির শুটিং করার কথা ছিলো শাবনূরের। এ ছবির একটি গানেও কণ্ঠ দিয়েছেন তিনি। টাইটেল গানে কণ্ঠ দেয়ার মাধ্যমে তিনি প্রথমবারের মতো চলচ্চিত্রে প্লেব্যাক করেন। কবে এ সিনেমার শুটিং করবেন বিষয়টি এখনো অনিশ্চিত।

রাজ-শুভশ্রী প্রেমে মগ্ন আফ্রিকার গভীর জঙ্গলে !

দুর্গা পুজো শেষ হতে না হতেই দেশ ছেড়েছেন রাজ চক্রবর্তী এবং শুভশ্রী গঙ্গোপাধ্যায়। কেনিয়া, তানজানিয়াসহ বর্তমানে আফ্রিকান সাফারিতে মগ্ন রাজ-শুভশ্রী। আফ্রিকার গভীর জঙ্গলে গিয়ে কখনও সিংহের সঙ্গে দেখা হচ্ছে তাঁদের, আবার কখনও তাঁদের গাড়ির সানে দিয়ে চলে যাচ্ছে জেবরার দল। এক কথায়, আফ্রিকার গভীর অরণ্যে পশু, পাখির সঙ্গে বেশ ভালই দিন কাটছে টলিউডের এই প্রথম সারির দম্পতির।

একদিকে যখন আফ্রিকান সাফারিতে বাঘ, সিংহ, ময়ূর, জেবরাদের দেখে সময় কাটছে রাজ-শুভশ্রীর, সেই সঙ্গে তাঁরা একান্তে সময় কাটাতেও কিন্তু ভুলছেন না। সম্প্রতি রাজ চক্রবর্তী একটি ছবি শেয়ার করেন। যেখানে রাজের কাঁধে মাথা রেখে সময় কাটাতে দেখা যাচ্ছে শুভশ্রীকে।পুজোর আগে মুক্তি পায় রাজ চক্রবর্তীর সিনেমা পরিণীতা। এই সিনেমায় প্রধান চরিত্রে অভিনয় করে দর্শকদের ভালবাসা কুড়িয়ে নেন রাজ-ঘরণী। বক্স অফিসে পরিণীতার দমদার সাফল্যের পরই পুজো কাটিয়ে বিদেশে পাড়ি দেন রাজ-শুভশ্রী।